শিরোনাম
প্রকাশ : ১৩ জানুয়ারি, ২০২১ ১৬:১৪
আপডেট : ১৩ জানুয়ারি, ২০২১ ১৬:১৬
প্রিন্ট করুন printer

অনিরাপদ বিদেশযাত্রা ও আমাদের ভাবমূর্তি

তানবীর সিদ্দিকী

অনিরাপদ বিদেশযাত্রা ও আমাদের ভাবমূর্তি
ফাইল ছবি

শত চেষ্টা, মানব পাচারবিরোধী কঠোর আইন, সরকার ও বেসরকারি বিভিন্ন উদ্যোগ- কোনো কিছুই থামাতে পারছে না অবৈধ বিদেশযাত্রা। বন্ধ করা যাচ্ছে না সাগর, মরুভূমি বা বরফের মধ্যে জমে মৃত্যুর মিছিল। বিশেষ করে ইউরোপের দেশগুলোতে অবৈধ অভিবাসীদের এ অনিরাপদ ও অবৈধ যাত্রা কোনোভাবেই থামানো যাচ্ছে না। গত নভেম্বর এর প্রথম দিকে আন্তর্জাতিক গণমাধ্যমের বরাত দিয়ে অভিবাসন নিয়ে কাজ করে এমন কিছু সংগঠনের জোট বাংলাদশে সভিলি সোসাইটি ফর মাইগ্রন্টেস (BCSM) এর কাছে খবর আসে ক্রোয়েশিয়া-বসনিয়া সীমান্ত অঞ্চলে কয়েক শত বাংলাদেশি আটকে পড়েছে অবৈধভাবে ইউরোপ পাড়ি দিতে দিয়ে। জার্মান রেডিও ডয়েচে ওয়েলে সর্বপ্রথম এসব অভিবাসীদের দুর্দশার কথা জানিয়ে বলে যে, গত বেশ কয়েক মাস ধরে ৫ শতাধিক অভিবাসী পরিত্যাক্ত ভবন এমনকি জঙ্গলে বাস করছনে।

ডিডব্লিউ এর মতে এসব আটকে পড়া বাংলাদেশিরা মধ্যপ্রাচ্য ও ইউরোপের পাচারকারী চক্রের সাথে সংশ্লিষ্ট একদল বাংলাদেশি মানব পাচারকারী দ্বারা প্ররোচিত হয়েছিলেন। তাদের প্রত্যেকে ইউরোপে পৌঁছানোর জন্য গড়ে ১০ থেকে ১৪ হাজার ইউএস ডলার খরচ করেছেন। বিভিন্ন রুটে এসব অভিবাসীরা ভূমধ্যসাগর হয়ে বসনিয়াতে এসে পৌঁছান। এরপর তারা বিপুল অর্থ ব্যয় করে ইউরোপীয় ইউনিয়নের সদস্য রাষ্ট্র ক্রোয়েশিয়ায় প্রবেশের জন্য কয়েকবার চেষ্টা করে ব্যর্থ হন। প্রতিবারই ক্রোয়েশিয়ান সীমান্তরক্ষী বাহিনী তাদের ধরে নিয়ে গিয়ে মারধর করে অর্থ, মোবাইল ফোন, শীতের পোশাকসহ অন্যান্য জিনিসপত্র ছিনিয়ে নিয়ে তাদের আবার বসনিয়াতে ফেরত পাঠায়। বসনিয়ায় বাংলাদেশের কোন কূটনৈতিক প্রতিনিধি না থাকায় নেদারল্যান্ডসে বাংলাদেশি দূতাবাসই এক্ষেত্রে দায়িত্বপ্রাপ্ত ছিল কোনো হস্তক্ষেপ বা সহায়তা করার। 

সংকটময় ও শীতের দিনগুলোতে তাদের সুরক্ষায় অন্ন, আশ্রয় এবং চিকিৎসা সুবিধা প্রদানের জন্য বসনিয়া সরকার, বাংলাদেশ সরকার এবং আন্তর্জাতিক মানবিক সংস্থাসমূহ বিশেষত রেডক্রস, আইএলও, আইওএমকে অবিলম্বে কার্যকর পদক্ষেপ গ্রহণ করার জন্য বিসিএসএম আহ্বান জানায়। বিসিএসএম আশঙ্কা করে যে, শীত শুরু হওয়ার সাথে সাথে এসব দুর্গম জঙ্গলে খোলা আকাশের নীচে অস্থায়ী তাবু থেকে তাদের উদ্ধার করার জন্য তাৎক্ষনিক ব্যবস্থা না নেয়া হলে অনেকেই মৃত্যুবরণ করবেন। ডিডব্লিউ এর প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, আটকে পড়া কয়েকজন বাংলাদেশি দেশে ফিরতে ইচ্ছুক ছিলেন কিন্ত সংখ্যাগরিষ্ঠরা তা করতে রাজি হননি। বিসিএসএম পরিস্থিতি ট্র্যাজেডিকে পরিণত হওয়ার আগে বসনিয়া সরকারকে আন্তর্জাতিক রীতি অনুযায়ী প্রয়োজনীয় মানবিক সহায়তা প্রদানেরও দাবি জানায়। একইসাথে, বাংলাদেশ সরকারকেও এই বাংলাদেশিদের আসন্ন বিপদ থেকে উদ্ধার এবং মানবপাচার ও মানব চোরাকারবারসহ বিভিন্ন ধরণের অনিরাপদ অভিবাসন বন্ধ করতে কার্যকর ব্যবস্থা নিতে আহ্বান জানায়। পরে অবশ্য আটকে পড়া বাংলাদেশিদের সম্পর্কে আর কোনো তথ্য পাওয়া যায়নি। জানা যায়নি তাদের পরিণতি কি হয়েছিল শেষ পর্যন্ত।

এই ঘটনা নতুন কিছু নয় আমাদের জন্য। রঙিন জীবনের স্বপ্ন আর দালালদের খপ্পড়ে পড়ে প্রতি বছর এই মৃত্যুর মিছিল বাড়ছে। খালি হচ্ছে মায়ের বুক। স্বামী হারা, বাবা হারা হচ্ছেন কতজন তা আমরা জানি না। অনেকের লাশ বা দাফনের খবরও আমরা জানি না। সেই সাথে মৃত্যু হচ্ছে হাজারও স্বাপ্নের। শোনা যায় ইউরোপের দেশগুলোর বিভিন্ন বন-জঙ্গলে ঠাণ্ডায় বরফ হয়ে এখন মৃত্যু আর লাশের স্তুপ।

কয়েক মাস আগের এক সকালে ঘুম ভাঙে এক ভদ্রমহিলার ফোনে। কথা বলতে চান। সম্মতি দিতেই তিনি জানালেন বিপদে পড়ে ফোন করেছেন। এক ব্যক্তিকে (দালাল) ৬ লাখ টাকা আর স্বামী স্ত্রী দুজনের পাসপোর্ট দিয়েছিলেন কানাডা যাওয়ার জন্য। এখন সে লাপাত্তা। কানাডা যাওয়ার প্রতারণা নিয়ে তার মাত্র কদিন আগে আমি সতর্ক করে ফেসবুকে স্ট্যাটাস দিয়েছি। সেখানে লিখেছিলাম আমরা শুধু প্রতারণা করি না, প্রতারিত হতেও ভালোবাসি। ১০ দিন যেতে না যেতেই সেই কেস! আমার বুঝতে বাকি নেই কি ঘটেছে। শুধু বললাম, এটা অন্যায়; এভাবে কেউ কাউকে টাকা দেয়! মহিলা প্রায় কেঁদে দিয়ে বললেন, সব সঞ্চয় আর ধারদেনা করে টাকা দিয়েছিলাম। এখন তো আর কোনো উপায় দেখছি না। তিনি ডিগ্রি পাশ, স্বামী গ্রাফিক্সের কাজ করেন। কানাডায় তাদের পিআর পাওয়ার কোনো সম্ভাবনা নেই। তারপরও খোঁজ খবর না করে কেন টাকা পাসপোর্ট দিলেন জানতে চাইলে বলেন, কানাডায় বসে কলকাঠি নাড়েন একজন বাংলাদেশি। তিনি জানিয়েছিলেন বিশেষ ব্যবস্থায় তাদের ভিসা হয়ে গেছে, ভিসার কপিও মহিলা দেখেছেন, তারপর টাকা দিয়েছেন। বুঝলাম তিনি ফাঁদে ভালোমতো আটকেছিলেন। তিনি শুধু একা নন, আরও অন্তত বিশ জন এই প্রতারণার শিকার বলে তিনি জানতে পেরেছেন। আমার কাজ হলো টাকা উদ্ধার করে দিতে সহায়তা করা। আমার নাম্বার তিনি পেয়েছেন অন্য আর এক ভিক্টিমের কাছ থেকে। তিনি কিভাবে পেয়েছেন তা জানেন না। প্রায় ২৫ বছর ধরে দেশের বাইরে যাতায়াত করি। এখনো অনেক দেশের ইমিগ্রেশন পার হওয়ার সময় হাত পা কাপে। আর উনারা এতোগুলো টাকা, পাসপোর্ট দিলেন কোন যাচাই না করে! খারাপও লাগছে উনাদের জন্য। সেফ মাইগ্রেশন নিয়ে বিশ বছরের বেশি কাজ করি। অস্ট্রেলিয়ায় পিআর পাওয়ার বিষয়ে আমরা সাহায্য করার চেষ্টা করি। এর নাড়ি-নক্ষত্র আমাদের জানা। উনার কাছে যা যা তথ্য, ফোন নাম্বার, কাগজ আছে সব নিয়ে বিকেলে আসতে বলি। এর মধ্যে আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর একটা এজেন্সির সাথে আলাপ করে পুরো ঘটনা বলে সহায়তা চাইলাম যারা এর আগেও সহায়তা করেছেন। এমন কত শত প্রতারণার ঘটনা যে প্রতিদিন ঘটছে তার খবর আমরা ক'জন জানি!

সরকারের পক্ষ থেকে প্রতিরোধমূলক ব্যবস্থার পাশাপাশি নিজেদের সতর্ক হওয়া খুব জরুরী। এক্ষেত্রে সচেতন হলে আপনারাই আপনাদের স্বজনদের মৃত্যু ঝুঁকি কিছুটা হলেও কমিয়ে আনতে পারেন। জীবনের ঝুঁকি নেবেন না, দালালের খপ্পড়ে পড়ে অবৈধভাবে ইউরোপে পাড়ি দেবেন না। প্রয়োজনে দেশে কিছু করার চেষ্টা করুন যে টাকা খরচ করে বিদেশে যাচ্ছিলেন। আত্মীয়-বন্ধু কাউকে অবৈধভাবে ইউরোপের দেশে যাবার জন্য উৎসাহিত করবেন না।

বিদেশে যান, আমেরিকা, কানাডা, অস্ট্রেলিয়া, ইউরোপ যান। কিন্তু দেখে শুনে বৈধভাবে যান। আর বোকামি কইরেন না! বোকামি করবেন না। এতে আপনি শুধু নন আপনার পরিবারও ক্ষতিগ্রস্ত হয়, নষ্ট হয় দেশের ভাবমূর্তি। 

লেখক: ফ্রিল্যান্স সাংবাদিক, মানবধিকার ও নিরাপদ অভিবাসনকর্মী।


বিডি প্রতিদিন/ ওয়াসিফ


আপনার মন্তব্য

পরবর্তী খবর

প্রকাশ : ২৬ জানুয়ারি, ২০২১ ১৯:০৪
প্রিন্ট করুন printer

পুরুষত্বের ইগোর কারণেই স্ত্রীর সফলতাতে ঈর্ষান্বিত হয় স্বামী

হাসিনা আকতার নিগার

পুরুষত্বের ইগোর কারণেই স্ত্রীর সফলতাতে ঈর্ষান্বিত হয় স্বামী
হাসিনা আকতার নিগার

কর্পোরেট জগতে চাকরি অনেক বেশি চ্যালেঞ্জিং। এখানে বেতন ও অন্যান্য সুযোগ-সুবিধার পরিমাণ যত বেশি ঠিক তত বেশি সময়, মেধা শ্রম দিতে হয় নিজেকে প্রতিষ্ঠিত করতে। যা ব্যক্তিজীবন থেকে বলতে গেলে সবটুকু সময় নিয়ে যায়। আর প্রতিযোগিতার এ যুগে নিজেকে টিকে থাকতে হলে অফিসকে প্রাধান্য দেয়া ছাড়া গত্যন্তর থাকে না।    

অন্যদিকে সরকারি চাকরিতে নিশ্চিত জীবন বেতন ভাতা পেনশন নিয়ে। কর্পোরেটে এ নিশ্চিতা নাই। তবে নিজের দক্ষতা প্রমাণ করতে পারলে বেশ ভালো ভাবেই জীবন চলে কর্পোরেট জগতে। 

এ ভালো ভাবেই চলার জন্য সোনিয়াকে অনেকটা সময় দিতে হয় তার অফিসে। বেশ বড় এক কোম্পানির মার্কেটিং চিফ হিসেবে কাজ করছে সে। স্বামী রাতুল সরকারি কর্মকর্তা। ছেলে স্কুলপড়ুয়া। সবকিছু এমনইতে ঠিকঠাক চলছে তাদের। কিন্তু রাতুল সোনিয়ার চাকরির সাফল্যতাতে কেমন জানি ম্রিয়মাণ থাকে। বিশেষ করে সংসারের আর্থিক বিষয়ে সোনিয়ার কেনাকাটাকে তার কাছে বিলাসিতা মনে হয়। প্রায়ই সে অভিযোগ করে সোনিয়া দামী খেলনা বা ছেলের আবদার মিটিয়ে তাকে নষ্ট করছে।

রাতুলকে সোনিয়া অনেকবার বুঝিয়েছে তাদের কাজের জগৎটা দিয়ে সংসার জীবনে জটিলতা করা ভুল। কিন্তু রাতুল সোনিয়ার উর্পাজন, পজিশন, স্বাবলম্বী থাকাটা মেনে নিতে পারছে না। অনেকবার সোনিয়াকে চাকরি ছাড়ার কথা বলেছে। দিন দিন রাতুল অন্য এক মানুষ হয়ে উঠে। সামান্য অজুহাতে ঝগড়া হয় তাদের। ছেলেটা বাবা মায়ের এ অশান্তি দেখে ভীতু হয়ে যায়। সোনিয়া আর না পেরে বাবার বাড়ি চলে আসে। তবে মানসিক যন্ত্রণাতে বিপর্যস্ত সে। 

সোনিয়ার মত এমন সমস্যা চাকরিজীবী অনেক নারীর জীবনে এখন নিত্যকার বিষয় হয়ে দাঁড়িয়েছে। স্বামী-স্ত্রীর কাজের ক্ষেত্রে পজিশনগত বৈষম্যতা পারিবারিক অশান্তির হেতু হয়। যার অন্তরালের কারণ হলো, পুরুষশাসিত সমাজে নারীদের অবদমন করার প্রবনতা এখনো বিদ্যমান। এমন ও দেখা যায় একজন উচ্চশিক্ষিত ছেলে বিয়ে করার ক্ষেত্রে তার স্ত্রী শিক্ষিত হোক এটা চায়। তবে স্ত্রীকে চাকরি করতে দিবে না। শিক্ষিত স্ত্রী দরকার নিজের স্ট্যাটাস, পরিবার ও সন্তানের সঠিক দেখভালের জন্য কেবল। স্ত্রী  চাকরি করাকে ভালো দৃষ্টিতে দেখা না এবং প্রয়োজন ও মনে করে না। 
    
একজন নারী অফিস পরিচালনাতে নিজের সিদ্ধান্ত, মতামত দিলে তা মেনে নেয়া যায়। কিন্তু পরিবারে তার সে অধিকার ও স্বাধীনতা তেমনভাবে নাই। আর এক্ষেত্রে স্বাবলম্বী স্বচ্ছল নারীর চলাফেরা স্বামী মুখাপেক্ষী স্ত্রীর মত হয় না স্বাভাবিকভাবে। এটা স্বামীর আত্মসম্মানে বাধে তিনি পুরুষ বলে। কিন্তু আধুনিককালে স্বামী-স্ত্রী নিজেদের মানসিক সংকটকে জটিল করছে বলে পরকীয়া, বিচ্ছেদসহ নানা সমস্যা তৈরি হচ্ছে। 

'মানিয়ে নাও' - এ শব্দটি  নারীকে খুব সহজে বলা যায়। দরকার হলে চাকরি ছেড়ে দেয়ার কথা আসে নারী বেলাতে। কিন্তু একজন পুরুষের ক্ষেত্রে একথাগুলো কল্পনাতীত। তাই প্রতিষ্ঠিত নারী এ কথাটার অন্তরালে অনেকটা লড়াই থাকে এ সমাজ ব্যবস্থায়। কারণ লিঙ্গ বৈষম্যতা, ধর্মীয় ও সামাজিক রীতি-নীতি নারীকে যে শিকল পরিয়ে রেখেছে তা পুরুষের অহংবোধের বহিঃপ্রকাশ। 

একজন নারীর আয় পুরুষের তুলনায় বেশি হলে পরিবারের পুরুষ হীনমন্যতার সাথে সাথে অনিরাপত্তায় ভুগে। একই সাথে তার চিন্তায় সন্দেহপ্রবণতা দেখা দেয়। যার ফলশ্রুতিতে অফিসের কাজে অধিক সময় ব্যয় নিয়ে উঠে নানা প্রশ্ন। 

স্বামীর রোজগারে সংসার চলে আর স্ত্রী সন্তান মানুষ করবে - এটা ভারতীয় অঞ্চলের চিন্তাধারা। এ মনোভাবের ব্যতয় হলে তা মানা কষ্টকর বলে মনে করেন ভারতের মনস্তাত্ত্বিক পরামর্শক শ্বেতা সিং।
 
এ বিষয়ে লন্ডনের বাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের এক গবেষণায় দেখা গেছে, পরিবারের সার্বিক বাজেটে স্ত্রীর ৪০% আয়কে স্বামী সাবলীলভাবে নেয়। কিন্তু এর বেশি বা গৃহকর্তা হিসেবে পুরুষের আয়ের চেয়ে নারীর আয় বেশি হলে তা মানিয়ে নিতে পারে না। বরং এটা কেন মানসিক যন্ত্রণার কাণে হয় তার সঠিক ব্যাখ্যা দিতে পারে না। 

তবে গবেষকরা আমেরিকার ৬ হাজার নারী পুরুষের উপর জরিপ পরিচালনা করে বলেন, পুরুষতান্ত্রিক সমাজের অবকাঠামোর কারণেই এ ধরনের মনস্তাত্ত্বিক সমস্যা দেখা দেয়। পুরুষের হাতে পরিবারের আর্থিক আধিপত্য থাকবে এ চিন্তা সাধারণ ও স্বাভাবিক বিষয়।

নারী স্বাধীনতা, লিঙ্গ সমতার কথা যতই বলা হোক না কেন, নারীর অগ্রগামিতা পরিবার সমাজে এখনো কন্টকময়। তাই স্ত্রীর কর্মক্ষেত্রের সফলতা স্বামী জন্য ঈর্ষা কারণ হয় পুরুষত্বের ইগো প্রবল বলে।

লেখক: কলামিস্ট 

বিডি প্রতিদিন/আরাফাত


আপনার মন্তব্য

পরবর্তী খবর

প্রকাশ : ২৫ জানুয়ারি, ২০২১ ১৬:২৬
আপডেট : ২৫ জানুয়ারি, ২০২১ ১৬:৩৫
প্রিন্ট করুন printer

ভারতের প্রজাতন্ত্র দিবসে বাংলাদেশ

হাসান ইবনে হামিদ

ভারতের প্রজাতন্ত্র দিবসে বাংলাদেশ

ভারতের প্রজাতন্ত্র দিবস আগামী ২৬ জানুয়ারি। এই দিনটিকে সামনে রেখে ভারত সরকার ও জনগণ নানামুখী কার্যক্রম হাতে নিলেও আকর্ষণের মূল কেন্দ্রবিন্দু হয়ে ওঠে প্রজাতন্ত্র বা গণতন্ত্র দিবসের কুচকাওয়াজ। 

কোভিড মহামারির কারণে এ বছরের কুচকাওয়াজের সময়সীমা সংক্ষিপ্ত করেছে ভারত সরকার। প্রতি বছর যে পরিমাণ অতিথি ও দর্শক প্রজাতন্ত্র দিবসের কুচকাওয়াজে উপস্থিত থাকেন, এবার তার এক-চতুর্থাংশ রাজপথের অনুষ্ঠানে উপস্থিত থাকবেন বলে জানানো হয়েছে। তবে এবারের আয়োজনে সবচেয়ে বড় আকর্ষণ হিসেবে সেখানে থাকছে বাংলাদেশের নাম। কেননা ভারতের ইতিহাসে তৃতীয়বারের মতো কোনো বিদেশি সামরিক বাহিনীর দলকে মধ্য দিল্লির রাজপথে জাতীয় কুচকাওয়াজে অংশ নিতে আমন্ত্রণ জানিয়েছে ভারত সরকার। 

দৃষ্টিনন্দন এ কুচকাওয়াজে অংশ নিতে বাংলাদেশ সশস্ত্র বাহিনীর সদস্যরা ইতোমধ্যে দিল্লী পৌঁছেছেন। বাংলাদেশের ১২২ জন গর্বিত সেনার দল এই কুচকাওয়াজে অংশ নিচ্ছে। বাংলাদেশ সেনা, নৌ ও বিমান বাহিনীর সমন্বয়ে সশস্ত্র বাহিনীর একটি সমন্বিত কন্টিনজেন্ট এই প্রজাতন্ত্র দিবস প্যারেডে অংশগ্রহণ করবে। এবার বাংলাদেশ সশস্ত্র বাহিনীকে আমন্ত্রণ জানানোর মাঝে এক বিশেষ তাৎপর্য রয়েছে।

সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ বাঙালি জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী ‘মুজিববর্ষ’ এবং ‘স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী’ উপলক্ষে এই আমন্ত্রণ জানানো হয়। ২০২১ সালে মুক্তিযুদ্ধের ৫০ বছর পূর্ণ হচ্ছে, যার মাধ্যমে বাংলাদেশ অত্যাচার ও নিপীড়নের কবল থেকে মুক্ত হয়ে একটি স্বাধীন জাতি হিসেবে আত্মপ্রকাশ করেছিল। আর সেই স্বাধীনতার পেছনে রাষ্ট্র হিসেবে সবচেয়ে বড় অবদান ছিল এই ভারতের। তাই দুটি গুরুত্বপূর্ণ ইতিহাসকে স্মরণ করে প্রজাতন্ত্র দিবসে বাংলাদেশকে আমন্ত্রণ জানানোতে এবারের প্রজাতন্ত্র দিবসের গুরুত্ব ও তাৎপর্য আরও বেড়ে গেছে। 

পঞ্চাশ বছর আগে যে বাহিনী একসঙ্গে লড়াই করেছে, এখন তারা গর্বের সঙ্গে রাজপথে মার্চ করবে। এর থেকে আনন্দের, গর্বের আর দ্বিতীয় কিছু হতে পারে না। ১৯৭১ সালের ১৬ ডিসেম্বর ঢাকার রেসকোর্স ময়দানে ৯৩ হাজার পাকিস্তানি সেনার আত্মসমর্পণের মধ্যে দিয়ে জন্ম হয়েছিল স্বাধীন রাষ্ট্র বাংলাদেশের। একাত্তরের মুক্তিযুদ্ধের পুরোটা সময় ভারতের সমর্থন বাঙালিরা পেলেও মুক্তিযুদ্ধে ভারতীয় সেনাবাহিনীর প্রত্যক্ষ অংশগ্রহণ শুরু হয়ে ২১ নভেম্বর। ভারতীয় সশস্ত্রবাহিনী ও মুক্তিবাহিনী একত্রে যৌথ বাহিনী গঠনের মাধ্যমে পাকিস্তানী সেনাবাহিনীর বিরুদ্ধে শুরু করে যুদ্ধ। 

একাত্তরের বিজয় দিবসের ঠিক আগের দু'সপ্তাহ ধরে চলেছিল তীব্র যুদ্ধ - যার একদিকে ছিল পাকিস্তানি সেনা, আর অন্যদিকে ভারতীয় সেনা আর বাংলাদেশের মুক্তিবাহিনী। মার্চে যুদ্ধ শুরু হলেও কূটনৈতিক বাধার কারণে শুরুতেই ভারতীয় বাহিনী বাংলাদেশের যুদ্ধে সরাসরি অংশ নিতে পারেনি। তবে শুরুর দিকে মুক্তিবাহিনীকে ভারতে সার্বিক প্রশিক্ষণ দেয়ার দায়িত্ব পালন করেছে ভারতীয় সশস্ত্র বাহিনী। আবার ভারত সেনাবাহিনীকে বাংলাদেশে যুদ্ধের জন্য আলাদা প্রস্তুতি নিতে হয়েছে। কেননা চীনকে মাথায় রেখেই ভারতীয় সেনাবাহিনী মাউন্টেন ওয়ারফেয়ার, হাই অল্টিচিউড লড়াইয়েরই প্রশিক্ষণ নিতেন, অস্ত্রশস্ত্র বা স্ট্র্যাটেজিও সেভাবেই জোগানো হত। সেখানে বাংলাদেশে নদীনালায় ভরা একটা সমতলভূমি, সেই জলময় পরিবেশে যুদ্ধের জন্য ভারতীয় সেনাবাহিনী কোন প্রস্তুতিই ছিল না, তাই এখানে যুদ্ধের জন্য আলাদা প্রস্তুতি নিতে হয়েছিল তাদেরকে। 

দুই দেশের সশস্ত্র বাহিনীকে আবার একসাথে রাজপথে দেখে মুক্তিযুদ্ধের এক বুদ্ধিদীপ্ত ঘটনার কথা মনে পড়ছে। ১৯৭১ সালে ভারতীয় সশস্ত্র বাহিনী ও মুক্তিবাহিনীর যৌথ আক্রমণের মাত্র দুই সপ্তাহের মাথায় কিভাবে পাকিস্তানের বিপুল সংখ্যক সেনা আত্মসমর্পণ করলো তা অনেকের কাছে এক বড় রহস্য। ভারতীয় সশস্ত্রবাহিনীর কি এমন পলিসি ছিলো যেখানে মাত্র ১৪ দিনের ব্যবধানে ৯৩ হাজার পাকিস্তানি বাহিনী এভাবে পর্যদুস্ত হলো। 

জানা যায়, ভারতীয় সেনাবাহিনী এখানে নতুন এক যুদ্ধ কৌশল প্রয়োগ করেছিল। সামরিক ভাষায় যেটাকে বলা হয় 'বাইপাসিং স্ট্র্যাটেজি' আর তার টার্গেট ছিল ঢাকা। যুদ্ধক্ষেত্রে এই ‘বাইপাসিং স্ট্র্যাটেজি’ এক বিশাল পার্থক্য গড়ে দিয়েছিল পাকিস্তান সেনাবাহিনী ও যৌথবাহিনীর মধ্যে। ভারতের কৌশলটা ছিল, পাকিস্তানি সেনা যেখানেই শক্ত ঘাঁটি গড়ে ভারতের অগ্রযাত্রাকে রুখতে চাইবে, সেটাকে পাশ কাটিয়ে এক রকম সোজা ঢাকার দিকে এগিয়ে যাওয়া। এটাকে বলে 'বাইপাসিং স্ট্র্যাটেজি’। আর এক্ষেত্রে ভারতীয় সেনাবাহিনী খুলনা-চট্টগ্রামের মতো শহরকেও পাশ কাটিয়ে সরাসরি ঢাকাকে টার্গেট করে এগিয়েছে। 

হিলির মতো কয়েকটা শক্ত ঘাঁটিতে পাকিস্তান সেনাবাহিনীর ওপর আক্রমণ চালাতেই হয়েছে। তবে যতোটা সম্ভব নিরাপদে থেকে ভারতীয় সেনাবাহিনী ঢাকার দিকে অগ্রসর হয়েছে। ভারতীয় বাহিনী ঢাকার দিকে আরো সহজে আসতে পেরেছিলো মুক্তিবাহিনীর কারণে। কারণ ভারতীয় সেনা যখন পাকিস্তানী সেনার উপর আক্রমণ করছে তখন পাকিস্তানি ফৌজ তাদের পশ্চাৎবর্তী এলাকাটাকেও নিরাপদ ভাবতে পারছিলো না মুক্তিবাহিনীর জন্যই। সব সময় একটা আশঙ্কা পাকিস্তানী ফৌজের ছিলো যে, তাদের পেছনে কী হচ্ছে, রাস্তা কেটে দিচ্ছে, রসদপত্র আসছে না, সাপ্লাই অ্যামবুশ করে দিচ্ছে - এটা তাদের মনোবল একদম চুরমার করে দিয়েছিল। এর ফলে দেখা গেল ঢাকার যখন পতন হয়েছে, তখন ভারতের পেছনে ফেলে আসা বহু জায়গায় পাকিস্তানি সেনারা তখনও ক্যান্টনমেন্টে আটকে বসে আছে এবং অসহায় আত্মসমর্পণে বাধ্য হচ্ছে। এই 'বাইপাসিং স্ট্র্যাটেজি' দ্রুত পাকিস্তান সেনাবাহিনীকে আত্মসমর্পণে বাধ্য করেছে। অপরদিকে ছিলো বিমানবাহিনীর অনন্য ভূমিকা। 

ইন্ডিয়ান এয়ারলাইন্সের একটা কাঠমান্ডু-দিল্লি ফ্লাইটকে ছিনতাই করে নিয়ে যাওয়া হয়েছিল রাওয়ালপিন্ডিতে। পাল্টা ব্যবস্থা নিয়ে ভারত তখন পূর্ব ও পশ্চিম পাকিস্তানের ভেতর বিমান চলাচল বন্ধ করে দেয় - অর্থাৎ নিজেদের আকাশসীমা তাদের ব্যবহার করতে দেয় না। ফলে পাকিস্তান ভারি সামরিক সরঞ্জাম, রসদ বা সৈন্যসামন্ত সরাসরি আকাশপথে পূর্বদিকে আনতেই পারেনি, তাদের সে সব পাঠাতে হয়েছিল অনেক ঘুরে শ্রীলঙ্কা হয়ে সমুদ্রপথে! যা ছিল অনেক সময়সাপেক্ষ ও কষ্টসাধ্য। এই বিষয়টিও যৌথবাহিনীর জন্য আশীর্বাদ হয়ে এসেছিল। ফলে আক্রমণের মাত্র দু’সপ্তাহের মাথায় পাকিস্তান সেনাবাহিনী আত্মসমর্পণে বাধ্য হয়। এভাবেই দুই দেশের সশস্ত্রবাহিনী একত্রে লড়াই করে বাংলাদেশের বিজয় পতাকা উড়িয়েছে। পঞ্চাশ বছর আগে যে দুই বাহিনী একত্রে মার্চ করেছিল, এতোবছর পর আবার তারাই একসাথে মার্চ করবে যা দুই দেশের জন্যই অনেক সম্মান ও গৌরবের। তাই ৭২তম প্রজাতন্ত্র দিবসে প্রথমবারের মত বাংলাদেশের সশস্ত্র বাহিনীর অংশগ্রহণ আলাদা তাৎপর্য বহন করছে। 

ভারতীয় সংবিধান কার্যকরী হওয়ার ঘটনাকে স্মরণ করে ১৯৫০ সালের ২৬ জানুয়ারি থেকে ভারতে সাধারণতন্ত্র দিবস বা প্রজাতন্ত্র দিবস হিসেবে এই দিনটি পালিত হয়ে আসছে। যেহেতু এই দিনে ভারতীয় গণপরিষদ সংবিধান কার্যকরের মাধ্যমে ভারতকে একটি গণতান্ত্রিক রাষ্ট্রে পরিণত করে তাই এই দিনটিকে ভারতের গণতন্ত্র দিবস হিসেবেও উল্লেখ করা হয়। দিনটি ভারতের তিনটি জাতীয় দিবসের অন্যতম। এই দিন সারা ভারতেই নানা অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। প্রজাতন্ত্র দিবস উপলক্ষ্যে নয়া দিল্লীতে কুচকাওয়াজ হয় রাষ্ট্রপতির আবাসস্থল রাষ্ট্রপতি ভবনের নিকটবর্তী রাইসিনা হিল থেকে রাজপথ বরাবর ইন্ডিয়া গেট ছাড়িয়ে। কুচকাওয়াজ আরম্ভ হওয়ার পূর্বে রাষ্ট্রপতি রাজপথের একপ্রান্তে অবস্থিত ইন্ডিয়া গেটে শহিদ সৈন্যদের উদ্দেশ্যে নির্মিত স্মারক অমর জওয়ান জ্যোতি-তে পুষ্পস্তবক অর্পণ করেন। 

স্বাধীনতা আন্দোলন ও তার পরবর্তী যুদ্ধগুলোতে ভারতের সার্বভৌমত্ব রক্ষায় শহীদ সৈন্যদের প্রতি শ্রদ্ধাজ্ঞাপন করে দুই মিনিট নীরবতা পালন করা হয়। ইন্ডিয়া গেটের শহীদ স্তম্ভে বাংলাদেশের স্বাধীনতা যুদ্ধে প্রাণ দেয়া ভারতীয় শহীদদের নামও রয়েছে। বাংলাদেশের মুক্তি আন্দোলনের প্রতিটি ধাপে রয়েছে ভারতের অবদান। তাই দিল্লির রাজপথে যখন দুই দেশের সশস্ত্র বাহিনী একসাথে ২৬ জানুয়ারি কুচকাওয়াজে অংশ নেবে তখন পঞ্চাশ বছর আগের স্মৃতি তাড়া করে ফিরবে দু’দেশের নাগরিকদের, বিশেষ করে তাদের যে বীর সৈনিকেরা আজো জীবিত, যাদের অনন্য সাহসিকতায় আজ বাংলাদেশ স্বাধীন।

লেখক: রাজনৈতিক ও আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিশ্লেষক।

বিডি প্রতিদিন/আরাফাত


আপনার মন্তব্য

পরবর্তী খবর

প্রকাশ : ২৩ জানুয়ারি, ২০২১ ১১:০৩
আপডেট : ২৩ জানুয়ারি, ২০২১ ১৩:০২
প্রিন্ট করুন printer

অবিসংবাদিত নেতাদেরও দলে দম্ভোক্তির ফল শুভ হয়নি!

সোহেল সানি

অবিসংবাদিত নেতাদেরও দলে দম্ভোক্তির ফল শুভ হয়নি!
সোহেল সানি

"আওয়ামী লীগ আবার কী, আমিই আওয়ামী লীগ-আমিই গঠনতন্ত্র এবং আমিই আওয়ামী লীগের মেনিফেস্টো।" এরকম দম্ভোক্তি করা হয়েছিল ১৯৫৪ সালে। আর দলে ওই সময়ে প্রকাশ্যে কেই-বা করতে পারেন- একমাত্র হোসেন শহীদ সোহরাওয়ার্দী ছাড়া? হ্যাঁ, তিনি দলের সর্বসম্মত সিদ্ধান্ত উপেক্ষা করে মোহাম্মদ আলীর নেতৃত্বাধীন মুসলিম লীগ সরকারের আইনমন্ত্রী হিসাবে যোগদানের পর দম্ভোক্তিটি করেন।

'আওয়ামী লীগের সিদ্ধান্তকে উপেক্ষা করে আইনমন্ত্রী হওয়াকে দলীয় গঠনতন্ত্র পরিপন্থী বলে সংবাদ সম্মেলনে প্রশ্ন ওঠে। গণতন্ত্রের মানসপুত্র বলে খ্যাত শহীদ সোহরাওয়ার্দী তখন উপর্যুক্ত দম্ভোক্তি প্রকাশ করেন। এতে আওয়ামী লীগের সর্বস্তরের নেতাকর্মী হতভম্ব হয়ে যান। বাংলার প্রধানমন্ত্রী থাকাকালীন সোহরাওয়ার্দীর ব্যক্তিগত সচিব ছিলেন মোহাম্মদ আলী। তাকে প্রধানমন্ত্রী মেনে নিয়ে আইনমন্ত্রী হওয়াকে মানতে পারছিলেন না সহকর্মীরা। সোহরাওয়ার্দী পরে পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী হলেও ষড়যন্ত্রের মুখে ক্ষমতা চলে যায় সেনাছাউনিতে। '৬৩ সালের ৫ ডিসেম্বর তাঁর রহস্যজনক মৃত্যু ঘটে। ফলে রাজনীতিতে আর ফেরা সম্ভব হয়নি। সোহরাওয়ার্দী মন্ত্রিসভার সদস্য আবুল মনসুর আহমদ তাঁর রাজনীতির ৫০ বছর গ্রন্থে এবং বঙ্গবন্ধু তাঁর আত্মজীবনী ও বিভিন্ন ভাষণে সোহরাওয়ার্দীকেই আওয়ামী লীগের প্রতিষ্ঠাতারূপে তুলে ধরেছেন। কিন্তু নেতার বক্তব্যে তাঁরাও হতভম্ব হন। প্রকৃতপক্ষে সহকর্মীরা ততক্ষণ ক্ষমতা পছন্দ করে যতক্ষণ তারা বিশ্বাস করে যে, দল পরিচালনা করবার যোগ্যতা তাদের নেতার আছে। অনেক সময় সাধারণ শান্ত কর্মীরা ভীতি-আক্রান্ত হয়েও নেতার অধীন হয়। কিন্তু এ অধীনতার স্থায়ীত্ব নেই।

দলের ভেতরে যখন নেতার কর্তৃত্ব প্রতিষ্ঠিত হয় তখন সম্ভাব্য বিদ্রোহীদের মধ্যেও নেতা ভীতি জাগিয়ে তুলতে পারেন। নেতার মধ্যে  আত্মবিশ্বাস, দ্রুত সিদ্ধান্তগ্রহণ ও বাস্তবায়নের গুণাবলী থাকতে হয়। অবশ্য এটা নেতৃত্ব সাপেক্ষ বিষয়। যেমন অ্যান্টনি যাতে মান্য করে সেজন্য সিজার তাঁকে বাধ্য করতে পারতেন।

যেমন মোহাম্মদ আলী জিন্নাহ সহকর্মীদের বাধ্য করতেন। তিনি এক অনন্য উচ্চতায় অবতীর্ণ হয়েছিলেন। মুসলিম লীগে তার কর্তৃত্ব এমন ছিলো যে, তার মুখের ওপর কথা বলার সাহস কারো ছিল না। বললে তা হতো ঔদ্ধত্যের। যে কারণে শেরে বাংলা মুসলিম লীগ থেকেই বিতাড়িত হন। সোহরাওয়ার্দীও জিন্নাহর নির্দেশ অমান্য করার স্পর্ধা দেখাননি। বরং তাকে স্বাধীন বাংলার দাবি বাদ দিয়ে মুসলিম লীগের দিল্লি কনভেনশনে 'পাকিস্তান প্রস্তাব' উত্থাপন করতে হয়। মুসলিম লীগের নাম 'জাতীয়তাবাদী লীগ' রাখার দাবি করে সোহরাওয়ার্দীকে গণপরিষদ সদস্য পদ হারাতে হয়।

সেই জিন্নাহ যক্ষ্মায় আক্রান্ত হলে প্রধানমন্ত্রী নওয়াবজাদা লিয়াকত আলী খানের করুণালাভেও ব্যর্থ হন। ১৯৪৮ সালের ১১ সেপ্টেম্বর মারা যান। পাকিস্তানের জাতির পিতার লাশ করাচি এয়ারপোর্টের বারান্দায় ৬ ঘণ্টা পড়ে ছিল। বাংলাভাষার বিরুদ্ধে দাঁড়ানোয় তাঁর প্রতি বাঙালিপ্রীতির অবসান ঘটেছিল। অথচ, বাংলাই ছিল জিন্নাহর বিজয় ঘাঁটি।

মহাত্মা গান্ধীরও শেষ জীবনে নেতৃত্ব ও কর্তৃত্ব খর্ব হয়। নেহেরু সরকারের কাছে দাবি আদায়ের জন্য অনশনে গিয়ে গুলিবিদ্ধ হয়ে জীবন দিতে হয়। সোহরাওয়ার্দী ও শরৎবসুর স্বাধীন বাংলার পক্ষে সমর্থন দিয়ে গান্ধীজীকে কংগ্রেস কর্তৃক তিরস্কৃত হতে হয়েছিল। দ্বিজাতিতত্ত্বের বলী হয়ে মওলানা আবুল কালাম আজাদকে কংগ্রেস সভাপতির পদ ছাড়তে হয়। বল্লভ ভাই প্যাটেল বিরাট ব্যবধানে বিজয়ী হলেও গান্ধীজীর হুকুমে পন্ডিত জওহরলাল নেহেরুই হন কংগ্রেস সভাপতি। ১৯৪৮ সালের ৩০ জানুয়ারি। নথুরাম গডসের হাতে নিহত হলে মহাত্মা গান্ধীকে জাতির পিতা ঘোষণা করা হয়। বঙ্গবন্ধুরও মুখের সামনে দাঁড়িয়ে কারো টু-টা শব্দ করার সুযোগ ছিলো না। এমন এক উচ্চতায় পৌঁছেছিলেন জাতির পিতারূপে। ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট নিহত হলে লাশ কবরস্থ করার আগেই বিশ্বাসঘাতকরা মোশতাকের সরকারে যোগ দেন। যারা বঙ্গবন্ধুরই মন্ত্রী-প্রতিমন্ত্রী। রাজনীতির লীলা-লাস্য বড়ই মধুর, বড়ই নিষ্ঠুর।

"মুজিবের মানসিক ও নৈতিক দৃষ্টিভঙ্গি, গুণাবলী,পরিমাণে কিছুটা কম হলেও, তাঁর কন্যা শেখ হাসিনার ব্যক্তিত্বে প্রতিভাত হয় ("For the spirit of Mujib is there, though diminished, in the personality of his daughter, Sheikh Hasina, who leads the party (Awami League) now"- The Gurardian, London, 11 July 1981) ১৯৮১ সালের ১১ জুলাই গার্ডিয়ান এ মন্তব্য করে। রাজনীতি ও রাজনীতির নানা বিষয়কে শেখ হাসিনার কাছে গুরুত্বপূর্ণ করে তোলার ক্ষেত্রে পিতা শেখ মুজিবের প্রত্যক্ষ ভূমিকা ছিলো না। কিন্তু প্রচ্ছন্নভাবে তাঁর কন্যার চোখে স্বাধীনতা ও সক্রিয়তাবাদের একটা আদর্শ হিসেবে নিজেকে দাঁড় করিয়েছিলেন। পিতার স্নেহাবেশে সমকালীন রাজনৈতিক ধারা, আওয়ামী লীগের গৌরবোজ্জ্বল যৌবনের সংগ্রামমুখর কর্মকাণ্ড এবং পূর্বাপর জাতীয় নেতাদের রণনীতি ও রণকৌশল স্বচক্ষে দেখেছেন, হাতে-কলমে শিখেছেন এবং গড়ে উঠেছেন সেভাবেই। জাতির পিতার সর্বাধিক কাছে থাকার সুবাদে স্নেহধন্য হয়ে একধরনের "প্রচ্ছন্ন বড়ত্ব" অর্জন করেন। বঙ্গবন্ধুকে হত্যার পর শেখ হাসিনার মাঝে থাকা সেই "প্রচ্ছন্ন বড়ত্ব" তাঁকে ১৯৮১ সালে আওয়ামী লীগের নেতৃত্বে সমাসীন করে।

যে পর্দার আড়ালে ঢেকে দেয়া হয়েছিল আওয়ামী লীগের সুনাম ও ঐতিহ্যের একেকটি ধারা, সেই পর্দার একেকটি স্তর নিজের তীক্ষ্ণবুদ্ধির ছুরি দিয়ে একটা একটা করে কেটে ফেলে আওয়ামী লীগকে আবার "জনগণের দল" হিসেবে পুনঃপ্রতিষ্ঠার পুরো কৃতিত্ব শেখ হাসিনার। ১৯৮১ সালে শেখ হাসিনার আগমন বাংলাদেশের রাজনীতিতে নতুন গতির সঞ্চার করে। এরশাদের সামরিক শাসনের অবসান ঘটিয়ে গণতান্ত্রিক ধারায় প্রত্যাবর্তন, সংসদীয় পদ্ধতির সরকার ব্যবস্থা প্রবর্তনে তাঁর অবদান তরঙ্গশীর্ষে। মুক্তিযুদ্ধের চেতনা বাস্তবায়ন এবং দেশে মূলধারার রাজনীতি ফিরিয়ে আনতে তাঁর ভূমিকা অবিস্মরণীয়। কিন্তু চক্রান্ত ষড়যন্ত্র তার পিছু ছাড়েনি। ২১ বার মৃত্যুর হাত থেকে বেঁচে গেছেন। শেখ হাসিনার অধীন  নেতাদেরও অন্ধ আনুগত্য কতটা স্থায়ী কতটা নিরাপদ? 

লেখক:  সিনিয়র সাংবাদিক ও কলামিস্ট

বিডি প্রতিদিন/ফারজানা


আপনার মন্তব্য

পরবর্তী খবর

প্রকাশ : ২২ জানুয়ারি, ২০২১ ১৪:২৭
প্রিন্ট করুন printer

মানুষকে চিনতে পারাটাই একটা জয়, একটা নতুন আবিষ্কার

অধ্যাপক ড. মোহাম্মদ আসাদুজ্জামান চৌধুরী

মানুষকে চিনতে পারাটাই একটা জয়, একটা নতুন আবিষ্কার
অধ্যাপক ড. মোহাম্মদ আসাদুজ্জামান চৌধুরী

মানুষকে চিনতে পারাটাও একটা জয়, একটা অভিজ্ঞতা, একটা নতুন আবিষ্কার। কথাটা খুব সাধাসিধা মনে হলেও এর গভীরতা অনেক বেশি। এতটা  গভীর যা মহাসমুদ্রের গভীরতাকেও ছাড়িয়ে যেতে পারে। গভীর অরণ্যের গভীরতাকেও হার মানাতে পারে। টমাস আলভা এডিসন বৈদ্যুতিক বাতি তৈরি করতে গিয়ে এর ফিলামেন্ট মেটেরিয়াল কি হবে তা নিয়ে ভাবনায় পড়ে গেলেন। একটার পর একটা করে ২০০০ মেটেরিয়াল ফিলামেন্ট হিসেবে ব্যবহার করার পরও আলো তেমন একটা পেলেন না। এডিসনের সহযোগী বিজ্ঞানীরা খুব মুষড়ে পড়লেন। অনেকটা ভেঙে পড়া নদীর মতো। অনেকটা কঠিন শীতে ভেঙে পড়া অসহায় মানুষের মতো। একটা বিষন্ন মন নিয়ে তারা বললেন এডিসন আমরা গবেষণায় ব্যর্থ হয়েছি। এডিসন কথাটি শুনে হাসলেন। হতাশায় ক্লান্ত মুখগুলোকে তিনি নতুন করে চিনলেন। বুঝলেন ওদের আত্মবিশ্বাস আর চিন্তায় অনেক নেতিবাচক প্রাচীর মাথা তুলে দাঁড়িয়েছে। এডিসন সেই সহযোগী বিজ্ঞানীদের অনুপ্রেরণায় ভাটা পড়া স্বপ্নগুলোকে ইতিবাচক ভাবে চিনতে চাইলেন। তিনি তাদের বললেন, কি বলছো তোমরা। আমরা তো আমাদের গবেষণায় সফল হয়েছি। বিজ্ঞানের অসাধ্যকে জয় করার পথে আরো একধাপ এগিয়ে গেছি। সহযোগী বিজ্ঞানীরা যেন নতুন করে চিনছেন এডিসনকে। একি কথা বলছে মানুষটা। তবে কি সে পাগল হয়ে গেলো। অনেকটা সংকোচিত হয়ে সহযোগী গবেষকরা বললেন, এডিসন তুমি কি করে বলছো আমরা গবেষণায় সফল হয়েছি। যেখানে আমরা দেখছি আমাদের গবেষণা ব্যর্থ হয়েছে। এডিসন কপালে মৃদু ভাঁজ টেনে বললেন, আরে তোমরা কি দেখতে পারছোনা আমরা কি অসম্ভবকে সম্ভব করেছি। আমরা ২০০০ মেটেরিয়াল পরীক্ষা করে দেখেছি তা ভালো আলো দেয় না। এর মানেটা বুঝো। এর মানে হচ্ছে আগামীদিনের বিজ্ঞানীদের আমরা একটা বার্তা দিতে পারবো তা হলো তোমরা এই ২০০০ মেটেরিয়াল ব্যবহার করে সময় নষ্ট করো না। বরং এই ২০০০ মেটেরিয়াল বাদ দিয়ে তোমরা এমন কোনো মেটেরিয়াল আবিষ্কার করো যা অনেক বেশি আলো দিবে। সহযোগী বিজ্ঞানীরা চিনলো এক নতুন এডিসনকে। যে পরাজয়কে জয়ে পরিবর্তন করতে পারে। যে ব্যর্থতার অভিজ্ঞতাকে সফলতার রং মাখাতে পারে। সহযোগী বিজ্ঞানীরা যেটাকে পণ্ডশ্রম ভেবেছিলো এডিসন সেখানে তাদের চোখে আঙুল দিয়ে দেখিয়ে দিলো সেটাও একটা নতুন আবিষ্কার হতে পারে।  বিশ্ববিখ্যাত বিজ্ঞানী টমাস আলভা এডিসনের তখন শিশুকাল। একদিন এডিসন ঘরে এসে তার মাকে একটি খামবন্দি চিঠি  দিলেন। তিনি তাকে বললেন, ‘আমার শিক্ষক আমাকে কাগজটি দিয়েছেন এবং শুধু তোমাকেই দিতে বলেছেন।’ মা চিঠিটি জোরে পড়া শুরু করলেন এবং তাঁর চোখ ভর্তি পানি, ‘আপনার পুত্র মেধাবী। এই স্কুলটি তার জন্য অনেক ছোট এবং এখানে তাকে শেখানোর মতো যথেষ্ট প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত শিক্ষক নেই।

দয়া করে আপনি নিজেই তার শিক্ষার ব্যবস্থা করুন।’ তার মা মারা যাওয়ার অনেক বছর পরের কথা। এডিসন তখন শতাব্দীর সেরা আবিষ্কারক। এক দিন তাঁর পারিবারিক পুরনো জিনিসপত্র দেখছিলেন। একটি ডেস্কের ড্রয়ারের কোনায় হঠাৎ তিনি একটি ভাঁজ করা কাগজ পেলেন। তিনি সেটি খুললেন। কাগজে লেখা ছিল—‘আপনার সন্তান খুব বোকা আর অমেধাবী। আমরা তাকে আমাদের স্কুলে আর আসতে দিতে পারি না।’ এডিসন কয়েক ঘণ্টা ধরে কাঁদলেন। কারণ এডিসন বুঝতে পারলেন তার মা সেদিন বড় কিছু ভাবেননি। বরং এডিসনকে তার মা নিজের প্রাণের আকুতি দিয়ে চিনেছেন। একটা পরাজয়ের জায়গা থেকে চিনেছেন। মা তার নাড়ি ছেঁড়া ধনকে নতুন করে আবিষ্কার করতে চেয়েছেন। নিজের একটু একটু অভিজ্ঞতা দিয়ে কাদামাটির নরম দোলাকে গড়ার লড়াইটা নিজের মতো করে লড়েছেন। তিনি টমাস আলভা এডিসনকে গড়ার আগেই ভেঙে দেননি বরং তার মধ্যে এমন ধারণা সৃষ্টি করেছিলেন যে তার  মতো মেধাবী যেন আর পৃথিবীতে কেউ নেই। সন্তানের পরাজিত মুখটাকে ঢেকে রেখে ক'টা  ইতিবাচক শব্দের নিষ্পাপ উচ্চারণে মা সেদিন এডিসনের জীবন বদলানোর ইতিহাসটা চিঠির মতো করেই লিখেছিলেন। এডিসনের মা মানুষ এডিসনের ভিতরের ঘুমন্ত শক্তিকে শিক্ষকের মতো করে চিনতে পারলেও স্কুলের শিক্ষকদের কাছে সে চেনাটা অচেনায় থেকে গিয়েছিলো। সবাই মানুষকে চিনতে পারে না, কেউ কেউ পারে। 

রবীন্দ্রনাথ ও আইনস্টাইনের মধ্যে যখন প্রথম যোগাযোগ ঘটল তখন রবীন্দ্রনাথ সাক্ষাৎ শেষে বেরিয়ে আসার পর সাংবাদিকরা তাকে প্রশ্ন করলেন, ‘এইমাত্র আপনি একজন বিশ্বখ্যাত বিজ্ঞানীর সঙ্গে কথা বললেন, আপনার প্রতিক্রিয়া কী?’ রবীন্দ্রনাথ উত্তর দিলেন, ‘আমি তো একজন বিশ্বখ্যাত কবির সঙ্গে কথা বললাম।’ 

এরপর সাংবাদিকরা আইনস্টাইনের সঙ্গে আলাপ প্রসঙ্গে বললেন, ‘আপনি একজন বিশ্বকবির সঙ্গে কথা বললেন, আপনার প্রতিক্রিয়া কী?’ আইনস্টাইন উত্তর দিলেন, ‘আমি কবির সঙ্গে কথা বলিনি, আমি একজন বিশ্বখ্যাত বিজ্ঞানীর সঙ্গে কথা বলেছি।’ এ যেন আলোর সাথে আলোর মেলবন্ধন যেখানে কোনো বিরোধ নেই। আছে একজন আরেকজনকে অন্যভাবে চেনার অলৌকিক আনন্দ। 

আইনেস্টাইন রবীন্দ্রনাথকে প্রশ্ন করেন, পৃথিবীর অভূতপূর্ব ঘটে যাওয়া ঐশ্বরিক সম্পর্ককে আপনি কিভাবে দেখেন। রবীন্দ্রনাথ সেখানে বিজ্ঞানকে টেনে আনেন। তিনি মানুষকে প্রোটন এবং ইলেকট্রনের সাথে তুলনা করেন। প্রোটন ও ইলেকট্রনের মধ্যে যে ফাঁকটুকু থাকে সেখানে তিনি মানুষের বিশুদ্ধ সত্তাকে দেখতে পান। সে সত্তা কখনো অমিতশক্তি নিয়ে একা দাঁড়িয়ে যায়। পৃথিবী বদলে দেয়। আবার কখনো সেখানে মানুষের সাথে মানুষের আন্তসম্পর্ক গড়ে উঠে। সেটা মানুষকে বাঁচার স্বপ্ন দেখায়, পুলকিত করে। সে জায়গা থেকেই হয়তো মানুষ অদেখা পৃথিবীকে চিনতে পারে। সে চেনাটা বিজ্ঞানকে সাহিত্য, কখনো সাহিত্যকে বিজ্ঞান বানিয়ে দেয়। সেখানে বিজ্ঞান, সাহিত্য, দর্শন ও মনস্তত্ব একসাথে হাত ধরাধরি করে এগিয়ে চলে কোনো অচেনাকে চেনার পরশপাথর মুখে বুলিয়ে।

আলোচনা শেষে আইনস্টাইন বেহালা বাজিয়ে কবিগুরুকে শোনান। বেহালার জাদুকরী সুর রবীন্দ্রনাথকে মোহিত করে তোলে। রবীন্দ্রনাথ দেখেন এক বিস্ময়কর কবিকে যিনি বেহালার সুর থেকে কবিতার ছন্দপতন ঘটাতে পারেন। একটা চেনার জয়, একটা অভিজ্ঞতার মুগ্ধতা আর নতুন সৃষ্টির আবিষ্কার যেন দুটো প্রাণকে একসুতোয় বেঁধে আকাশের নীল থেকে নীলিমায় হারিয়ে যায়। 

রবীন্দ্রনাথ তার সাহিত্যের এক অংশে বলেছেন, "গেটে উদ্ভিদ্তত্ত্ব সম্বন্ধে বই লিখেছেন। তাতে উদ্ভিদরহস্য প্রকাশ পেয়েছে, কিন্তু গেটের কিছুই প্রকাশ পায়নি অথবা সামান্য এক অংশ প্রকাশ পেয়েছে। কিন্তু গেটে যে-সমস্ত সাহিত্য রচনা করেছেন তার মধ্যে মূল মানবটি প্রকাশ পেয়েছেন।" গেটেকে রবীন্দ্রনাথ চিনেছেন এভাবেই। তবে সম্রাট নেপোলিয়ান গেটেকে চিনেছেন ফরাসি ভাষার জাদুকরী শক্তিতে এভাবেই "ভুজেত আঁনম!" যার বাংলা ভাবানুবাদ, "হে মহামানব, আপনি তাহলে মানুষ!" যার বাংলা অনুবাদ অনেকটা "হে মহামানব, আপনিও তবে কি মানুষ"। মানুষ যে তার কর্মের মাধ্যমে মানব থেকে মহামানব হয়ে উঠতে পারে তার একটা নিবিড় দৃষ্টিভঙ্গির প্রকাশ এখানে রয়েছে। মানুষের চোখে একেকটা মানুষ একেকরকম। যে মানুষটা অন্যের কাছে নিজের ভিন্নতটা চেনাতে পারে সে মানুষটা সব সময় সফল হয়। যেটা তাকে অন্যদের থেকে ব্যতিক্রম করে অনন্য উচ্চতায় নিয়ে যায়। একটা চেনা সময়ের আয়না ভেঙে পড়া অচেনা শহরকে ডেকে বলে বিজ্ঞান বানায় "পর্যবেক্ষণকারী' মানুষ। দর্শন বানায় 'চিন্তাশীল' মানুষ। সঙ্গীত ও সাহিত্য বানায় 'সমগ্র' মানুষ।"

মানুষ চেনাটা যতটা ইতিবাচক ততটাই নেতিবাচক। এমন একটা চেনা বোধের চেতনাটা কোথায় যেন পুকুরে পড়ে থাকা কচুরিপানায় গড়াগড়ি খায়। যেমন চেনা মুখটা যখন বিশ্বাসঘাতক হয় তখন বুকটা কম্পিত হয়। যখন সেটা সুবিধাবাদী হয় তখন ছেঁড়া কাঁথার কষ্টগুলো কাব্য হয়ে যায়। সেটা বাস্তব না নাটক বোঝাটা খুব কঠিন হয়ে যায়। সেই নষ্ট মানুষেরা নিজেদের কপালে অদৃশ্য কলংক একে নাকানি-চুবানি খায়। সব যেন নিস্তন্ধ হয়ে যায়।যেমন নিস্তব্ধ হয় চেনা চেনা মুখ, অচেনা সময়। 

জীবনানন্দের অদ্ভুত আঁধার এক কবিতাটির কথা মনে পড়ে গেলো। তিনি বলেছেন, 
অদ্ভুত আঁধার এক এসেছে এ-পৃথিবীতে আজ,
যারা অন্ধ সবচেয়ে বেশি আজ চোখে দ্যাখে তারা;
যাদের হৃদয়ে কোনো প্রেম নেই – প্রীতি নেই – করুণার আলোড়ন নেই
পৃথিবী অচল আজ তাদের সুপরামর্শ ছাড়া।

এটা কোনো কবিতা নয়।  মায়াহীন পৃথিবীতে মানুষ নামের অসংখ্য কীটপতঙ্গের খুব চেনা মানুষের মুখ। মুখোশ। 

একটা লেখায় পেলাম :
"বাইবেলের ‘দ্য লাস্ট সাপার’ অংশটুকুর একটি মুহূর্ত। যিশুখ্রিষ্ট তাঁর বারোজন শিষ্যকে নিয়ে মৃত্যুর আগে যে শেষ নৈশভোজ সারেন তাই দ্য লাস্ট সাপার নামে এই ভোজে যিশু তাঁর বারোজন শিষ্যকে নিয়ে রুটি ভাগ করে খান আর পান করেন সোমরস। নৈশভোজে যিশু ঘোষণা করেন এই শিষ্যদেরই একজন তাঁর সাথে বিশ্বাসঘাতকতা করবে। তাঁকে ধরিয়ে দেবে। এই ঘোষণার মুহূর্তে যিশু আর তার সঙ্গীদের অভিব্যক্তির আবহই ফুটিয়ে তুলেছেন লিওনার্দো দ্য ভিঞ্চি তাঁর ‘দ্য লাস্ট সাপার’ চিত্রকর্মে। কারো মুখে বিস্ময়, উদ্বেগ, কারো মুখে ভয়, কারো মুখে ছিলো বেদনা আর কারো মুখে সন্দেহ।"

খুব মর্মস্পর্শী। খুব নির্মমতা। মানুষের চারপাশেই এমন অনেক বিশ্বাসঘাতক চেনামুখ থাকে। খুব কাছের, খুবই কাছের সেটা বোঝা যায়। সে বোঝাটা  বোঝা হয়। তবে সে বোঝার বোধটা প্রকাশ করা যায় না। বুকের কোনো একটা আবেগের জায়গায় তা বুলেটবিদ্ধ হয়ে ঠাঁই দাঁড়িয়ে যায়।

বিডি প্রতিদিন/সালাহ উদ্দীন


আপনার মন্তব্য

পরবর্তী খবর

প্রকাশ : ২১ জানুয়ারি, ২০২১ ২২:৫৭
প্রিন্ট করুন printer

‘ভ্যাকসিন মৈত্রী’ বনাম অপপ্রচার!

হাসান ইবনে হামিদ

‘ভ্যাকসিন মৈত্রী’ বনাম অপপ্রচার!

"এতদিন আপনাদের যা বলে এসেছি আজ আর তা বলতে পারছি না। বাংলাদেশে তিনজন শনাক্ত হয়েছে। এদের মধ্যে দুইজন পুরুষ, একজন নারী"।

মার্চের ৮ তারিখে আইইডিসিআর এর তৎকালীন পরিচালক সেব্রিনা ফ্লোরার এই বক্তব্যে মুহুর্তেই পাল্টে যায় বাংলাদেশের দৃশ্যপট। সরকার দ্রুতই সাধারণ ছুটি ঘোষণা করে, বন্ধ করে দেয়া হয় সব ধরণের পরিবহন ব্যবস্থা। বাংলাদেশেও ধীরে ধীরে সংক্রমণ বাড়তে থাকে, বেশি সংক্রমিত এলাকায় সরকার কর্তৃক জারি করা হয় লকডাউন। বাস্তবিক অর্থে প্রাথমিক সময়টায় গোটা দেশই এই লকডাউনের আওতায় ছিলো। বিশ্বব্যাপী করোনা মহামারীতে মানুষের মৃত্যু চক্রবৃদ্ধিহারে বাড়তে শুরু করলে মানুষের মাঝেও ভয় আতংকের এক পরিবেশ সৃষ্টি হয়, এই ভাইরাস নিয়ে নানা বিভ্রান্তিতে পড়ে সাধারণ মানুষ। মানুষের কাছে সাবধান থাকার জন্য বার বার হাত ধোয়া, সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখা আর মুখে মাস্ক পরা সম্পর্কিত করণীয় বিষয়সমূহ প্রচার করা হয়েছে সরকারি ও বেসরকারি পর্যায়ে। 

এরপর দফায় দফায় পরিবেশ পরিস্থিতি বিবেচনায় নিয়ে সরকারের তরফ থেকে করণীয় সম্পর্কে ঘোষণা এসেছে। গোটা বিশ্ব বুঝি তীর্থের কাকের মতো অপেক্ষায় ছিলো করোনা ভ্যাকসিনের। অবশেষে সেই অপেক্ষার প্রহর শেষ হয় এবং টিকা আবিস্কারের সুসংবাদ আসে।  

করোনাভাইরাসের মহামারি মোকাবিলায় বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা জরুরি ভিত্তিতে অনুমোদন দিতে তিনটি টিকার কথা উল্লেখ করেছে। এই টিকাগুলো হলো যুক্তরাষ্ট্রের ওষুধ প্রস্তুতকারী প্রতিষ্ঠান ফাইজার ও মডার্না এবং যুক্তরাজ্যের অক্সফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয় ও ওষুধ প্রস্তুতকারী প্রতিষ্ঠান অ্যাস্ট্রাজেনেকার যৌথভাবে উদ্ভাবিত টিকা। এ বছরের শুরুতেই জরুরি ব্যবহারে উল্লেখিত টিকার অনুমোদন দেয় বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা। তারপর দ্রুততার সাথেই বিশ্বের প্রভাবশালী এবং টিকা আবিস্কৃত রাষ্ট্রসমূহের নাগরিকেরা সেই টিকা কর্মসূচিতে অংশ নিতে শুরু করে। কিন্তু বাংলাদেশের মানুষ টিকা পাওয়ার বিষয়টা নিয়ে অনেকটা অনিশ্চিত ছিলো, আদৌ টিকা পাবে কিনা তা নিয়েও ছিলো নানা জল্পনা কল্পনা। কিন্তু অক্সফোর্ড-অ্যাস্ট্রাজেনেকার টিকা যেনো বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার অনুমোদনের সাথে সাথেই পাওয়া যায় সে ব্যবস্থা আগেই করে রেখেছিলো বাংলাদেশ। আমাদের এই উপমহাদেশে ভারতের সেরাম ইনস্টিটিউট অক্সফোর্ডের টিকাটি উৎপাদন করার দায়িত্ব পেয়েছে। গত নভেম্বরে সেই সেরাম ইন্সটিটিউটের সাথে বাংলাদেশের বেক্সিমকো ফার্মা একটি সমঝোতা চুক্তি সই করে। সেই চুক্তি মোতাবেক যে দেশগুলো এই ভ্যাকসিন প্রথম পাবে বাংলাদেশ হবে তার মধ্যে একটি। আর সে সূত্র ধরে  প্রাথমিক পর্যায়ে বাংলাদেশ ৩ কোটি ডোজ ভ্যাকসিন সেরাম ইন্সটিটিউট থেকে কেনার ঘোষণাও দিয়ে রেখেছে। স্বাভাবিক নিয়মেই এই ৩ কোটি ডোজ এ মাসের শেষের দিকে বা ফেব্রুয়ারির শুরুতে বাংলাদেশ পাবার কথা। কিন্তু এর আগেই আজ বাংলাদেশ ২০ লাখ ভ্যাকসিন ভারতের কাছ থেকে উপহার হিসেবে পেয়েছে। 

ভারত ভ্যাকসিনের মতো গুরুত্বপূর্ণ জিনিস বাংলাদেশকে দেবে উপহার হিসেবে আর সেটা বিতর্ক ছাড়াই চুপিসারে চলে আসবে তা হতেই পারে না! সাম্প্রতিক সময়ে ভ্যাকসিন নিয়ে নানামুখী অপপ্রচার বা ভারত-বাংলাদেশ এর যেকোন দ্বিপক্ষীয় ইস্যুতে সার্বিক যে অপপ্রচার হয় সে অভিজ্ঞতা থেকে এটা প্রত্যাশিতই ছিলো! আর তাই করোনা ভ্যাকসিনের শুরু থেকেই নানামুখী গুজব চলমান ছিলো, যা শুনে মানুষ অনেকটা বিভ্রান্তও হয়েছে। 

শুরুতে বলা হলো, এই ভ্যাকসিন বাংলাদেশ বিনা কারণে ভারতের কাছ থেকে বেশি দামে কিনছে। এরপর বলা হলো, ভ্যাকসিন কিনলেও সঠিক সময়ে পাবেনা বাংলাদেশ। কিন্তু যখনি দেখা গেলো নির্দিষ্ট কম দামে সঠিক সময়েই ভ্যাকসিন বাংলাদেশ পাচ্ছে এবং বন্ধুরাষ্ট্র ভারত উল্টো উপহার হিসেবে বাংলাদেশকে ২০ লাখ ডোজ ভ্যাকসিন দিচ্ছে, তখন অপপ্রচারকারীরা বলতে শুরু করলো এটা ভারতের তৈরি নিম্নমানের অপরীক্ষিত ভ্যাকসিন! এই ভ্যাকসিন প্রয়োগে ভারতেই অনেক মানুষ অসুস্থ হয়ে যাচ্ছে। তাই এই ভ্যাকসিন নিলে নিশ্চিত শরীর খারাপের দিকে যাবে! 

এই প্রশ্নের উত্তরে প্রথমেই বলা দরকার, ভারতের যে ভ্যাকসিনটি কার্যকর নয় বলে বিতর্ক তৈরি হয়েছে সেটি ভারত বায়োটেকের ভ্যাকসিন। ভারতীয় এই ভ্যাকসিন কোভ্যাকসিন (Covaxin) হিসেবে পরিচিত। কোভ্যাকসিন ইন্ডিয়ান কাউন্সিল অফ মেডিক্যাল রিসার্চ এন্ড ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অফ ভাইরোলজি একসঙ্গে এই ভ্যাকসিন নিয়ে কাজ করেছে। আর ভ্যাকসিনটি প্রস্তুত করেছে ভারত বায়োটেক। ভারতের নিজেদের আবিস্কৃত এই কোভ্যাকসিন এর কার্যকরীতা সম্পর্কে প্রশ্ন তুলেছে খোদ ভারতীয় বহু মিডিয়াই। 

অপরদিকে বাংলাদেশ যেটি আমদানি করছে এবং আজ যে ২০ লাখ ডোজ ভ্যাকসিন বাংলাদেশ উপহার হিসেবে পেয়েছে সেটি অক্সফোর্ড-অ্যাস্ট্রাজেনেকার ভ্যাকসিন। ভারতের সেরাম ইনস্টিটিউট অক্সফোর্ডের টিকার পেটেন্ট নিয়ে সেটি কেবল উৎপাদন করবে, তাও ব্রিটিশ সংস্থা অ্যাস্ট্রাজেনেকার যৌথ সমন্বয়ে। অক্সফোর্ডের এই ভ্যাকসিনটি কোভিশিল্ড (Covishield) নামে পরিচিত। অর্থাৎ, বাংলাদেশ পাচ্ছে কোভিশিল্ড, কোভ্যাকসিন না। একটি হলো অক্সফোর্ডের আবিষ্কৃত আরেকটি হলো ইন্ডিয়ান কাউন্সিল অফ মেডিক্যাল রিসার্চ এন্ড ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অফ ভাইরোলজি'র আবিষ্কৃত। একটি উৎপাদন করছে অ্যাস্ট্রাজেনেকার যৌথ সমন্বয়ে সেরাম ইনস্টিটিউট, অন্যদিকে আরেকটি উৎপাদন করছে ভারতীয় বায়োটেক। তাই যারা ভ্যাকসিন নিয়ে এই অপপ্রচার করছেন তা যে সম্পূর্ণরুপে উদ্দেশ্যপ্রণোদিত তা স্পষ্ট। 

ভ্যাকসিনের দাম নিয়ে একটা অপপ্রচার ক’দিন আগে ফেসবুকে খুব দেখেছি। সোশাল মিডিয়ায় গন্ডি পেড়িয়ে এই প্রোপাগান্ডা যখন মেইনস্ট্রিম মিডিয়াতে আসলো তখন এক পর্যায়ে দাম সংক্রান্ত গুজব ঠেকাতে মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রীদের বিবৃতি পর্যন্ত দিতে হয়েছে। 

গত ১৮ ডিসেম্বর দ্যা গার্ডিয়ান পত্রিকার এক রিপোর্টে দেখা যায় অক্সফোর্ড-অ্যাস্ট্রাজেনেকার উদ্ভাবিত টিকা প্রতিডোজ আমেরিকা কিনছে ৪ ডলারে এবং ইউরোপ কিনছে তার চেয়েও একটু কমে। আর বাংলাদেশ সেই টিকা কিনছে প্রতিডোজ ৫ ডলার বা ৪২৫ টাকায়। বাংলাদেশকে কেনো এক ডলার বেশি দিয়ে এই টিকা কিনতে হচ্ছে তার কারণ না জেনেই সোশাল মিডিয়ায় শুরু হলো তুমুল সমালোচনা। আর এই সমালোচনার লাইন সেই একই আর তা হলো, বাংলাদেশ সরকার ভারতের কোম্পানিকে অযথা বেশি টাকা দিচ্ছে মানে ভারতকে সব দিয়ে দিচ্ছে বাংলাদেশ! কিন্তু কেনো এক ডলার বেশি দাম পড়েছে বা ভারতের সেরাম ইন্সটিটিউট থেকে এই টিকা না এনে যদি অন্য কোন দেশের কোম্পানি থেকে আনা হতো তাহলে যে আরো তিনগুণ বেশি দাম পড়তো সেব্যাপারে আমরা দৃষ্টিই দিচ্ছিনা বা জানিও না! ইউরোপীয় ইউনিয়ন এবং আমেরিকাতে যেকোন দেশের তুলনায় এই টিকা কম দামে পাওয়া যাবার পেছনে যে একটা বড় কারণ রয়েছে সে বিষয়টাও আমরা জানার দরকার মনে করছি না। ইউরোপীয় ইউনিয়ন ও মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র অক্সফোর্ড- অ্যাস্ট্রাজেনেকার টিকার জন্য আলাদা তহবিল গঠন করেছে এবং তারা বিনিয়োগও করেছে। বিভিন্ন দেশের সরকার ও দাতারা টিকা তৈরি এবং তার পরীক্ষার প্রকল্পগুলোতে কোটি কোটি পাউণ্ড পরিমাণ অর্থ ঢেলেছে। ভ্যাকসিন-উৎপাদক কোম্পানি আমেরিকার মডার্না তাদের টিকার পেছনে ৫৯ কোটি ৩০ লাখ পাউন্ড অর্থ ব্যয় করেছে, জার্মানির বায়োএনটেক এবং তাদের অংশীদার বৃহৎ আমেরিকান কোম্পানি ফাইজার যৌথভাবে  প্রায় ৪০ কোটি ৬০ লাখ পাউন্ড এবং অক্সফোর্ড-অ্যাস্ট্রাজেনেকার পেছনে সংশ্লিষ্ট দেশের সরকার ও দাতা প্রায় ১৬৫ কোটি পাউন্ড অর্থ ব্যয় করেছে। এখানে দাতারা ঝুঁকি নিয়েছে এবং ভ্যাকসিন ব্যর্থ হলে তারা তাদের সম্পূর্ণ বিনিয়োগ কিন্তু হারাতো। তাই ইইউ, রাশিয়া, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র এবং উদ্ভাবিত সফল টিকার সংশ্লিষ্ট রাষ্ট্র ও দাতা প্রতিষ্ঠান তুলনামূলক কম দামেই ভ্যাকসিন পাবে। এখানে আরেকটি বিষয় উল্লেখ করা দরকার, টিকা উৎপাদনকালীন ট্রায়াল যদি অন্যদেশে হয় তবে টিকা দ্রুত এবং স্বল্পমূল্যে পাবার ক্ষেত্রে সেই দেশও অগ্রাধিকার পায়। যেমন সফল টিকার কোন একটির ট্রায়াল যদি বাংলাদেশে হতো তবে বাংলাদেশও ইউরোপীয় ইউনিয়নের মতো কম দামেই এই টিকা পেতো। তাই ইউরোপ আমেরিকার চেয়ে বাংলাদেশ বেশি দামে টিকা কিনছে বা অযথা বেশি টাকা ভারতীয় কোম্পানিকে বাংলাদেশ সরকার দিচ্ছে এই বক্তব্যগুলো স্রেফ গুজব। বাস্তবের সাথে এসব ঘটনার কোন মিল নেই। উপরোক্ত বিষয়ের সাপেক্ষেই ভ্যাকসিনের মূল্য নির্ধারণ করা হয়েছে এবং ভ্যাকসিন উৎপাদনকারী রাষ্ট্র ও দাতা সংস্থা বাদে বাকিসব রাষ্ট্রকেই একটু বেশি দামে কিনতে হচ্ছে।

বাংলাদেশে অবস্থানরত ভারতবিরোধী একটা অংশের মূল সমস্যা হলো বাংলাদেশ কেনো ভারতের সেরাম ইন্সটিটিউটের সাথেই চুক্তিবদ্ধ হলো। অথচ আমরা অনেকেই জানিনা বিশ্বের বৃহত্তম টিকা প্রস্তুতকারক সংস্থা ভারতের সেরাম ইন্সটিটিউট। গোটা পৃথিবীর বৃহত্তম একটি টিকা প্রস্তুতকারী সংস্থার সাথে চুক্তিবদ্ধ নাহয়ে যদি অন্যকোন দেশের কোম্পানির সাথে চুক্তিবদ্ধ হতো তবে কি হতো বা বর্তমানের চেয়ে আরো কতো বেশিগুণ দামে এই টিকা পেতাম তা একটু হিসেব করা যাক। ভারত, যুক্তরাজ্য, যুক্তরাষ্ট্রসহ সাতটি দেশ অক্সফোর্ডের ভ্যাকসিনের অ্যাডভান্সড ট্রায়াল শুরুর অনুমতি পেয়েছিলো। সহজ ভাষায় যদি বলি, ভারতসহ বিভিন্ন দেশকে অক্সফোর্ড এই টিকা উৎপাদনের অনুমোদন দিয়েছে। অক্সফোর্ড যদি ভারতকে অনুমোদন দেয় বিক্রি করতে, তাহলে তারা বাংলাদেশের কাছে বিক্রি করবে। আর অক্সফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয় এবং অ্যাস্ট্রাজেনেকার যৌথ উদ্যোগে তৈরি ভ্যাকসিনের সেই পেটেন্ট পেয়েছে ভারতের সেরাম ইন্সটিটিউট এবং ইতোমধ্যে তারা ভ্যাকসিন উৎপাদন শুরু করছে। তাই বাংলাদেশের কাছে সবচেয়ে সহজ এবং নিকটবর্তী হিসেবে ভারতকেই বেছে নেয়া হয়েছে। কারণ একটি ভ্যাকসিন উৎপাদনই কিন্তু শেষ কথা নয় বরং এই ভ্যাকসিন সংরক্ষণ ও স্থানান্তরের মাধ্যমে অন্যদেশে আনয়নও একটি বড় ঝুঁকির কাজ। তাই সবচেয়ে নিকটবর্তী বন্ধুরাষ্ট্র হিসেবে ভারতের সেরাম ইন্সটিউটকেই বেছে নিয়েছে বাংলাদেশ। অথচ যারা আজকে প্রশ্ন উত্থাপন করছেন, কেন বেশি ডলার খরচ করে টিকা আনা হচ্ছে তারা ভাবতেও পারছেন না এই টিকার জন্য ইংল্যান্ড, আমেরিকা বা জার্মানির কোন কোম্পানির সাথে চুক্তি করলে খরচ তখন দ্বিগুণ হয়ে যেতো! দীর্ঘ সময় সংরক্ষণের ব্যয়ভার, পরিবহন খরচসহ এই ভ্যাকসিনের দাম তখন কত ডলারে গিয়ে ঠেকতো কে জানে!

ভ্যাকসিন মৈত্রীর আওতায় ভার‍ত সরকার বাংলাদেশসহ বন্ধুপ্রতীম ৬ দেশকে টিকা উপহার দিয়েছে। ভ্যাকসিন কূটনীতির অংশ হিসেবে ভারত প্রতিবেশী বন্ধু দেশগুলোতে বিনা পয়সায় অক্সফোর্ড-অ্যাস্ট্রাজেনেকার টিকা পাঠানোর যে কর্মসূচি হাতে নিয়েছে, তার আওতায় বাংলাদেশ সরকার আজ উপহার হিসেবে ২০ লাখ ডোজ টিকা পেয়েছে। এই উপহার ভারতের ''নেইবারহুড ফার্স্ট'' নীতির বহিঃপ্রকাশ। করোনা মহামারীর এই বিপর্যস্ত সময়েও ভারত নিজের দেশের পূর্ণাংগ চাহিদা না মিটিয়ে পাশের বন্ধুরাষ্ট্রদের টিকা উপহার দেয়াটা নিঃসন্দেহে সেই বন্ধুত্বের সম্পর্ককে আরো গভীরে প্রোথিত করবে। ভ্যাকসিনের ক্ষেত্রে আন্তর্জাতিক সহযোগিতাকে ভারত যে তাদের একটা কর্তব্য হিসেবেই দেখছে এই উপহার তার বড় প্রমাণ। 

উল্লেখ্য, ভারত তার বন্ধুরাষ্ট্রের মাঝে সবচেয়ে বেশি ২০ লক্ষ ডোজ টিকা দিয়েছে একমাত্র বাংলাদেশকেই। তাই সবার প্রতি আহ্বান থাকবে, বিশ্ব মহামারীর সময়েও যারা করোনা ভ্যাকসিন নিয়ে অপপ্রচার চালাচ্ছে তাদের বিরুদ্ধে সোচ্চার হোন। করোনা ভ্যাকসিন ইস্যুতেও যারা ভারত-বাংলাদেশ সম্পর্ক নিয়ে বিভ্রান্তি ছড়াচ্ছে তাদের বিরুদ্ধে ঐক্যবদ্ধ হোন। 

লেখক: রাজনৈতিক ও আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিশ্লেষক। 

বিডি-প্রতিদিন/সালাহ উদ্দীন


আপনার মন্তব্য

পরবর্তী খবর