শিরোনাম
প্রকাশ : ২২ এপ্রিল, ২০২১ ০৮:১০
আপডেট : ২২ এপ্রিল, ২০২১ ১১:৪৩
প্রিন্ট করুন printer

সুবিধাবাদী সুযোগসন্ধানী আমলাতন্ত্র নাকি দলের পরীক্ষিত নেতা/ জনপ্রতিনিধি?

বাণী ইয়াসমিন হাসি

সুবিধাবাদী সুযোগসন্ধানী আমলাতন্ত্র নাকি দলের পরীক্ষিত নেতা/ জনপ্রতিনিধি?
বাণী ইয়াসমিন হাসি
Google News

বৈশ্বিক মহামারি করোনা ভাইরাসের ঊর্ধ্বমুখী সংক্রমণ প্রতিরোধে জরুরি স্বাস্থ্যসেবা ব্যবস্থাপনা ও অন্যান্য সরকারি কার্যক্রম সুসমন্বয়ের লক্ষ্যে সরকারের জ্যেষ্ঠ সচিব, সচিব এবং সচিব পদমর্যাদার ৬৪ সচিবকে দেশের ৬৪ জেলার দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে।

সম্প্রতি এই দায়িত্ব দিয়ে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় থেকে একটি অফিস আদেশ জারি করা হয়েছে। এর আগে করোনা মহামারির প্রথম পর্যায়েও ৬৪ জেলায় ৬৪ সচিবকে এমন দায়িত্ব দেওয়া হয়েছিলো। 

ওই অফিস আদেশে বলা হয়েছে, দায়িত্বপ্রাপ্ত সিনিয়র সচিব/সচিবরা সমন্বয় কাজে তার মন্ত্রণালয়/বিভাগ/দপ্তর সংস্থার উপযুক্ত সংখ্যক কর্মকর্তাকে সম্পৃক্ত করতে পারবেন। এছাড়া দায়িত্বপ্রাপ্ত জেলার সংসদ সদস্য ও জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান, জনপ্রতিনিধি, স্থানীয় গণমাধ্যম ব্যক্তি ও সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের সাথে পরামর্শ ও প্রয়োজনীয় সমন্বয়সাধন করে কোভিড-১৯ সংক্রান্ত স্বাস্থ্যসেবা ব্যবস্থাপনা ও সংশ্লিষ্ট কার্যক্রম পরিচালনার কাজ (সচিবরা) তত্ত্বাবধান ও পরিবীক্ষণ করবেন। তারা জেলার আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি পরিবীক্ষণ ও প্রয়োজনীয় সমন্বয়সাধন করবেন। সমন্বয়ের মাধ্যমে প্রাপ্ত সমস্যা/চ্যালেঞ্জ বা অন্য বিষয়ে সরকারের সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়/বিভাগ/দপ্তর/সংস্থাকে লিখিত আকারে জানাবেন এবং মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ ও প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়কে নিয়মিত অবহিত করবেন বলেও আদেশে উল্লেখ করা হয়েছে। 

এখন প্রশ্ন হলো প্রতিটা জেলায় একাধিক এমপি, কোন কোন জেলায় মন্ত্রী থাকা সত্ত্বেও সচিবদেরকে কেন এই গুরুদায়িত্ব দেওয়া হলো? দায়িত্ব পেয়ে সচিবরা কাউকেই তোয়াক্কা করেন না। যেখানে মন্ত্রী এমপিদেরই কোন মূল্যায়ন নেই; সেখানে জনগণ তো নস্যি!

প্রতিটা জেলায় ডিসি এসপিরা এখন রাজনৈতিক নেতার ভূমিকায়। তারাই এখন সবকিছুর সার্টিফিকেট দেন। আমার মনে আবারও প্রশ্ন; এই যে জেলায় জেলায় হেফাজতের এত তাণ্ডব হলো তখন উনারা কেন নিরাপদ দূরত্ব বজায় রাখলেন ? আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় নেতাদের সমন্বয়ে গঠিত প্রতিনিধিদল যখন ক্ষতিগ্রস্ত এলাকা সফর করলো, তখন খুব স্বাভাবিকভাবেই নেতাকর্মীরা চাঙ্গা হলো এবং ঐক্যবদ্ধ ভাবে মাঠে নামলো। তারা হেফাজতের তাণ্ডবের বিরূদ্ধে শক্ত প্রতিরোধ গড়ে তুললো। সুবিধাজনক পরিবেশে তখন ডিসি এসপি এবং তাদের অধীনস্তরা মাঠে নামলো। অথচ যেকোন ধরনের বিশৃঙ্খলা এবং নাশকতা কঠোর হাতে দমন করার দায়িত্ব ছিল তাদের।

এই যে পর্দাকাণ্ড, বালিশ কাণ্ড, নারিকেল গাছ কাণ্ড। আলু চাষ, পুকুর খনন শিখতে বিদেশ ভ্রমণ। এগুলোর সবই কিন্তু আমলাদের কাণ্ড। তাদের সীমাহীন অনিয়ম আর দুর্নীতির দায় কিন্তু দিনশেষে সংশ্লিষ্ট মন্ত্রীকেই নিতে হয়। জনগণের কাছে গালি খায় মন্ত্রী, জনপ্রতিনিধি। কিন্তু মূল দোষীরা ধরাছোঁয়ার বাইরেই থেকে যায়।

একটি প্রকল্পের ডিপিপি থেকে শুরু করে সবই করেন আমলারা। মন্ত্রী মহোদয়ের টেবিলে ৮০০ পাতার ফাইল যায় প্রকল্প পাশের অল্প কিছু আগে। ৮০০ পৃষ্ঠা পড়ে যাচাই করার সুযোগ পান না মন্ত্রীরা। এই শতশত পৃষ্ঠার ঘুপচিতেই লাখ টাকা দামের  পর্দা, বালিশ, নারিকেল গাছ লুকিয়ে থাকে।

হ্যাঁ, রাজনীতিবিদদেরও দায় আছে। নিজেদের মধ্যেকার গ্রুপিং; একে অন্যকে টেনে নামানোর নোংরা খেলায় রাজনীতিবিদরা এবং রাজনৈতিক দলগুলো একে অন্যের বিরূদ্ধে মিথ্যা কাল্পনিক অভিযোগের পাহাড় দাঁড় করান। তাদের নিজেদের কাঁদা ছোড়াছুড়ির কারণে আমজনতার মধ্যে একটা নেগেটিভ ধারণার জন্ম নেয়। তারা মনে করে রাজনীতিবিদরাই দুর্নীতি করে এবং একমাত্র রাজনীতিবিদরাই দুর্নীতিবাজ। এতসব অপপ্রচারের কারণে মূল অপরাধী সরকারি আমলা, পিকে হালদার এবং স্বাস্থ্যের আফজালের মতন দুর্নীতিবাজরা পর্দার আড়ালেই থেকে যায়।

উদাহরণস্বরূপ ঢাকা ওয়াসার কথা বলা যেতে পারে। ষষ্ঠবারের মতো ঢাকা ওয়াসার ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) হিসেবে নিয়োগ পেয়েছেন প্রকৌশলী তাকসিম এ খান। বর্ষা আসে বর্ষা যায়, দিন বদলায়, কাল বদলায়, বদলায় না শুধু ঢাকা ওয়াসার সেবা। শুষ্ক মৌসুমে পানির সংকট আর বর্ষায় হাবুডুবু, নালা খালে পয়ঃবর্জ্য। টানা ছয়বার নিয়োগ পাওয়া এই কর্মকর্তার নিজের নিয়োগ, তার মাধ্যমে দেওয়া অন্যদের নিয়োগসহ নানা ক্ষেত্রে আছে বিতর্ক। দুর্নীতির অভিযোগ গেছে দুদক পর্যন্ত। জনসেবার উদ্দেশ্যে প্রতিষ্ঠিত সংস্থাটি এখন এমডি–শাসিত প্রতিষ্ঠানে রূপ নিয়েছে। অথচ সারাবছর জনগণের গালি খায় ঢাকার দুই মেয়র। 

ওয়াসার মতন একই অবস্থা সব সরকারি প্রতিষ্ঠানে। এই বিষবাস্প ছড়িয়ে পড়েছে জেলা উপজেলা পর্যায়েও। অধিকাংশ সরকারি অফিসগুলোতে টাকা ছাড়া ফাইল নড়ে না। সরকারের বড় বড় প্রকল্পগুলোতে কে বা কারা কাজ পাবেন সেটাও ভাগাভাগি করেন আমলারাই।

প্রতিটা জেলায় ডিসিরা এলআর ফান্ডের নামে ব্যাপক চাঁদাবাজি করেন। যেকোন প্রোগ্রাম এলে ব্যবসায়ীরা তটস্থ থাকেন। এই এলআর ফান্ডকে অডিটের আওতায় আনলে জেলা পর্যায়ে দুর্নীতি কিছুটা হলেও কমবে।

সর্বত্রই কেমন যেন অসহিষ্ণুতা। বঙ্গবন্ধুর রাষ্ট্র দর্শনের অন্যতম একটি অনুষজ্ঞ হচ্ছে সৎ প্রশাসন প্রতিষ্ঠা করা। পদ নেই তবুও পদোন্নতি। আর এই পদোন্নতি এবং আরও বড় পদে যাওয়ার জন্য অসুস্থ প্রতিযোগিতা এবং অনৈতিক তৎপরতা। আমলাদের দৌরাত্ম্য থেকে বের হতে না পারলে দেশে আইনের শাসন প্রতিষ্ঠা সম্ভব হবে না। গণতন্ত্রের জন্যও ব্যাপারটা ক্ষতিকর।

আমাদের দেশের সরকারি কর্মকর্তারা বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই মাত্রাতিরিক্ত ক্ষমতা ভোগ করেন, অনেকে ক্ষমতার দাপটও দেখান। তারা সব সময় চান আলাদা গুরুত্ব, আলাদা মর্যাদা, বাড়তি সুযোগসুবিধা। এই বাড়তি মর্যাদা ও সুযোগসুবিধা ভোগ করতে গিয়ে তাদের অনেকেই সাধারণ মানুষকে বিড়ম্বনায় ফেলেন। অথচ তাদের সেটা করার কথা না। জনসেবা, জনকল্যাণ, জনগণের দুঃখ-দুর্দশা লাঘব করাই যাদের একমাত্র কাজ হওয়ার কথা। সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারী বা রাষ্ট্রের এসব স্থায়ী কর্মচারীদের ইংরেজিতে বলা হয় পাবলিক সার্ভেন্ট বা জনগণের সেবক। তাদের একমাত্র কাজ জনগণের সেবা করা। কারণ তাদের বেতন-ভাতা হয় সাধারণ মানুষের ট্যাক্সের টাকায়।

আমাদের দেশে বেশিরভাগ আমলা এখন ‘নব্য জমিদারের’ ভূমিকায় অবতীর্ণ। তারা নিজেরাই নিজেদের নামে নানা ধরনের ‘মহত্বের ছায়া’ আরোপ করে থাকেন। আমলাদের কাছ থেকে মানুষ ‘নিরপেক্ষতার নৈতিকতা’ আশা করে। কিন্তু অধিকাংশ ক্ষেত্রে তা ঘটে না। তারা নিজেরাই ক্ষমতাবান হিসেবে আবির্ভূত হন। ক্ষমতার অপব্যবহার, সমাজে নিজেদের ‘ব্রাক্ষ্মণ’ হিসেবে প্রতিষ্ঠা করার চেষ্টা, যুক্তির জোরের পরিবর্তে ‘জোরের যুক্তি’ প্রতিষ্ঠা করা–এগুলো শেষপর্যন্ত কোন ভালো ফল বয়ে আনে না। এতে জনরোষ সৃষ্টি হতে পারে। এটা রাষ্ট্রের স্বাস্থ্যের জন্য মোটেও ভালো না। কাজেই কোথাও যেন কোনরকম বাড়াবাড়ি না হয়, তারা নিজেরা নিজেদের স্বর্গের দেবতা মনে করে ফুল-চন্দনচর্চিত আসনে অধিষ্ঠিত না করেন, সেদিকে নজর দেওয়ার সময় এসেছে।

রাজনৈতিক নেতৃত্বের দুর্বলতার সুযোগে আমলাতন্ত্র তার নখদন্ত প্রবলভাবে প্রকাশ করতে শুরু করে।  এই করোনা সংকটকালে সরকারি আমলাদের মাত্রাতিরিক্ত গুরুত্ব দেয়া হয়েছে বলে জনপ্রতিনিধিরা অভিযোগও করেছেন। সচিবালয় ও মাঠ পর্যায়ে আমলাতন্ত্রের দাপটে চরম হতাশা তৈরি হয়েছে। অনেক সচিবই মন্ত্রীদের পর্যন্ত গুরুত্ব দেন না। সিদ্ধান্ত নেন নিজেদের মতো করে। এতে উপেক্ষিত মন্ত্রী দুঃখ করেন বিভিন্ন মহলে। প্রশাসনের প্রাণকেন্দ্র সচিবালয়ের মতো মাঠ পর্যায়েও কর্মরত অনেক প্রশাসনিক কর্মকর্তা জনপ্রতিনিধিদের তোয়াক্কা করেন না। কেউ কেউ অতি উৎসাহ নিয়ে যোগ দেন রাজনৈতিক কর্মসূচিতে। অনেক কর্মকর্তাই নিজের অতীত রাজনৈতিক অবস্থান তুলে ধরতে ব্যস্ত। তারা আচরণে, কার্যক্রমে চলেন রাজনৈতিক কর্মীর মতো করে। আমলাদের সীমাহীন ক্ষমতা প্রদর্শন করার কারণে মন্ত্রী, এমপি, সিটি মেয়র, উপজেলা চেয়ারম্যান ও পৌর মেয়ররা অনেক সময় নিজের কর্মীদের কাছে অসহায়ত্ব প্রকাশ করেন।

তবে এই দায় রাজনীতিবিদরাও এড়াতে পারেন না। কয়েকজন মন্ত্রী এমপির ব্যর্থতা আর জনসম্পৃক্ততার অভাবে আমলাদের মাথায় তোলা হলো। এদেরকে ঘাড় থেকে নামানো খুউব কঠিন হবে। এটা কারো জন্যই শুভ কিছু বয়ে আনবে না! গত কয়েক বছর ধরে লোকাল রাজনীতির কার্যক্রম হচ্ছে -থানায় কোন ইউএনও আর ওসি এলো; তাকে কে কার আগে ফুলেল শুভেচ্ছা জানাবে তার প্রতিযোগিতা। রাজনীতির এই দেউলিয়াপনা দীর্ঘমেয়াদে ভোগাবে। মন্ত্রী পরিষদের দিকে তাকান। কয়জন মন্ত্রী সচিবের চোখে চোখ রেখে কথা বলতে পারেন? জনশ্রুতি আছে অনেক মন্ত্রী সচিবকে দেখলে উঠে দাঁড়ান। পাড়ার/ মহল্লার নেতাদের ধরে এনে মন্ত্রী বানানোর ফল এটা।

দিনশেষে একজন রাজনীতিবিদের দায়বদ্ধতা থাকে তার কর্মীর কাছে আর জনপ্রতিনিধির জবাবদিহিতা থাকে তার ভোটার বা জনগণের কাছে। কিন্তু আমলারা সব জবাবদিহিতার ঊর্ধ্বে। তাদের প্রতিশ্রুতির জায়গাটাও বড্ড নড়বড়ে। ক্ষমতা যার; তখন তার। এখন সরকারকেই সিদ্ধান্ত নিতে হবে সুবিধাবাদী সুযোগসন্ধানী আমলাতন্ত্র নাকি দলের পরীক্ষিত নেতা/জনপ্রতিনিধি?

 

লেখক: সম্পাদক, বিবার্তা২৪ডটনেট

 

বিডি-প্রতিদিন/সালাহ উদ্দীন

এই বিভাগের আরও খবর