শিরোনাম
প্রকাশ : সোমবার, ২৮ জুন, ২০২১ ০০:০০ টা
আপলোড : ২৭ জুন, ২০২১ ২৩:৫৫

তিস্তার ভাঙন রোধে বাঁধ নির্মাণ

লালমনিরহাট প্রতিনিধি

Google News

লালমনিরহাটের কাকিনা ইউনিয়নের মইশামুরী চারমাথা থেকে মুক্তিযোদ্ধা বিদ্যালয় পর্যন্ত প্রায় এক কিলোমিটার এলাকাজুড়ে তিস্তার ভাঙনরোধে গ্রামবাসী নিজ অর্থায়নে বাঁধ নির্মাণ করছেন। স্থানীয় জনপ্রতিনিধির সাড়া না পেয়ে স্থানীয়রা তাদের অর্থ দিয়ে এ বাঁধ নির্মাণ করে তিস্তার ভাঙনের হাত থেকে কয়েক শ’ পরিবারকে রক্ষা করার চেষ্টা করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন স্থানীয়রা। এলাকাবাসী জানান, প্রতি বছর তিস্তার ভাঙনে বসতবাড়িসহ ফসলের ব্যাপক ক্ষতি হয়। স্থানীয় জনপ্রতিনিধিদের দ্বারে দ্বারে ঘুরেও ভাঙনরোধ কোনো ব্যবস্থা না নেওয়ায় এলাকাবাসী এ উদ্যোগ নিয়েছে। মইশামুরী গ্রামের সেজাব আলী বলেছিলেন, তিস্তার ভাঙনে আমরা নিঃস্ব। সরকার রোহিঙ্গাদের থাকার ব্যবস্থা করেছে। কিন্তু আমাদের তা নেই।’

আমাদের সব শেষ। চলতি বর্ষায় আবারও ভাঙন শুরু হলে বাঁধে আশ্রয় নেওয়া কয়েক শ’ পরিবারের যাওয়ার কোনো জায়গা থাকবে না। তাই বাধ্য হয়ে এক কিলোমিটার এলাকাজুড়ে বাঁধটি নির্মাণ করলাম। মইশামুরী গ্রামের হবিবর রহমান (হবি) জানান, ‘প্রাথমিকভাবে বাসিন্দাদের কাছ থেকে অর্থ নিয়ে বাঁধ নির্মাণ করা হয়েছে।

পানি উন্নয়ন বোর্ডকে ভাঙনরোধে বাঁধ নির্মাণের জন্য বার বার বলা হলেও তারা কর্ণপাত করেনি। কাকিনা ৯ নং ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য শফিকুল ইসলাম সফি বলেন, প্রতি বছরই বন্যায় ওই এলাকার মানুষ বসতবাড়ি ও আবাদি জমি হারিয়ে নিঃস্ব হচ্ছে। স্থানীয় এমপি ও পানি উন্নয়ন বোর্ডের কর্মকর্তাদের কাছে আবেদন করেও কোনো লাভ হয়নি। আসন্ন বন্যায় বড় ক্ষতির আশঙ্কা থাকায় এলাকাবাসী বাধ্য হয়েই নিজ অর্থায়নে এক কিলোমিটার এলাকায় বাঁধ নির্মাণ করেছে। কালীগঞ্জ উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা ফেরদৌস আহমেদ বলেছেন, খবর পেয়ে আমরা ওই বাঁধটি পরিদর্শন করেছি। বরাদ্দ পেলে বাঁধটি ভালোভাবে মেরামত করা হবে।

এই বিভাগের আরও খবর