শিরোনাম
প্রকাশ : রবিবার, ২১ মার্চ, ২০২১ ০০:০০ টা
আপলোড : ২০ মার্চ, ২০২১ ২২:০১

বিদেশের মাটিতে শহীদ মিনার

রণক ইকরাম

বিদেশের মাটিতে শহীদ মিনার
জাপানের রাজধানী টোকিওতে শহীদ মিনার

পৃথিবীর ইতিহাসে মাতৃভাষার অধিকারের জন্য বুকের তাজা রক্ত ঢেলে দেওয়ার নজির কেবল বাংলাদেশরই আছে। এই ইতিহাস কারও অজানা নয়। গল্পটা অবিভক্ত পাকিস্তানের। ১৯৫২ সালের একুশে ফেব্রুয়ারি ভাষার দাবিতে পূর্ব পাকিস্তানের আন্দোলন চূড়ান্ত রূপ নেয়। উদ্দেশ্য একটাই উর্দু নয়, বাংলাই যেন রাষ্ট্রভাষা হয়। কিন্তু পাক হানাদাররা সে দাবি সহ্য করতে পারছিল না। ফলে বায়ান্নর একুশে ফেব্রুয়ারি মিছিলে শহীদ হন সালাম, রফিক, জব্বার, শফিউরসহ নাম না জানা আরও অনেকে। এই শহীদদের আত্মত্যাগের ফলেই বাংলা রাষ্ট্রভাষার স্বীকৃতি লাভ করে। এটি কেবল ভাষার দাবিতে সংগ্রাম ছিল না। এই সংগ্রামে আসলে বাংলাদেশ নামের একটি স্বাধীন রাষ্ট্রের অভ্যুদয়ের বীজ বপিত হয়েছিল। আর সেই বীজ থেকেই ১৯৭১-এ নয় মাসের রক্তক্ষয়ী সংগ্রামের পর বিশ্ব মানচিত্রে স্বাধীন দেশ হিসেবে জন্মগ্রহণ করে বাংলাদেশ। বায়ান্নর একুশের রক্তঝরা ঘটনার এক দিন পরই মহান শহীদদের স্মরণে গড়ে উঠেছিল শহীদ মিনার। একুশের সব স্মৃতি নিশ্চিহ্ন করে দেওয়ার লক্ষ্যে নির্মাণের পরদিনই গুঁড়িয়ে দেওয়া হয়েছিল তা। মুক্তিযুদ্ধের শুরুতে দ্বিতীয়বারের মতো শহীদ মিনার গুঁড়িয়ে দেওয়া হয় কামানের গোলায়। কিন্তু সেই অপচেষ্টা সফল হয়নি। নিশ্চিহ্ন করা যায়নি বাঙালির স্মৃতির মিনার। আধুনিক বাংলাদেশের কেন্দ্রবিন্দু থেকে শুরু করে আনাচে-কানাচে শহীদের রক্ত বুকে নিয়ে সগর্বে মাথা উঁচু করে দাঁড়িয়ে আছে শহীদ মিনার। আর একুশ যখন দেশের গন্ডি পেরিয়ে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসের স্বীকৃতি পেল, তখন এই স্মৃতির মিনার ছড়িয়ে পড়ছে সারা বিশ্বে। দেশের সীমা ছাড়িয়ে শহীদ মিনার মাথা তুলছে বিশ্বের দেশে দেশে। একুশের স্মৃতিবাহী শহীদ মিনারই সম্ভবত বিশ্বের একমাত্র স্মৃতিস্মারক, যার অনুরূপ মিনার গড়ে উঠেছে দেশব্যাপী। দেশের এমন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান পাওয়া যাবে না, যেখানে একুশে ফেব্র“য়ারি পালিত হয় না, যেখানে শহীদ মিনার নির্মিত হয়নি। শুধু দেশেই নয়, বিশ্বের যেখানেই গড়ে উঠেছে বাঙালি জনবসতি, সেখানেই পরম মমতায় গড়ে উঠছে শহীদ মিনার। বাংলাদেশ ও ভারতের বাইরে বাকি বিশ্বেও সগৌরবে মাথা উঁচু করছে বাংলা ভাষার শহীদ মিনার। ইতিমধ্যে যুক্তরাজ্যের লন্ডন, ফ্রান্সের প্যারিস, ইতালির রোম, জাপানের টোকিও, কানাডার টরন্টো, অস্ট্রেলিয়ার সিডনিতে তৈরি হয়েছে শহীদ মিনার। আর এই ধারা অব্যাহত রয়েছে এখনো।

 

শহীদ মিনার এখন বাঙালির আত্মপরিচয়ের প্রতীক হয়ে উঠেছে। বিশ্বের যেখানেই বাংলা ভাষাভাষীরা আছেন সেখানেই মাথা তুলে দাঁড়াচ্ছে গৌরবের শহীদ মিনার। লন্ডনের টাওয়ার হ্যামলেটে আর ওল্ডহ্যাম থেকে শুরু করে নানা স্থানে তৈরি হচ্ছে শহীদ মিনার। ইতালির রোমের ইৎজাক রাবিন পার্কে প্রতিষ্ঠিত হয়েছে জাতীয় শহীদ মিনারের আদলে একটি শহীদ মিনার। ২০০৫ সালে জাপানের রাজধানী টোকিওতে শহীদ মিনার স্থাপিত হয়। অস্ট্রেলিয়ার সিডনির অ্যাশফিল্ড পার্কেও দাঁড়িয়ে আছে একটি শহীদ মিনার। আমেরিকাতেও প্রতিষ্ঠিত হয়েছে একাধিক শহীদ মিনার। বিশ্বের আর কোনো সাংস্কৃতিক প্রতীকের এত ব্যাপ্তি আর মর্যাদা রয়েছে বলে মনে হয় না। ভারতের পশ্চিমবঙ্গ, ত্রিপুরা, আসাম, মেঘালয়, ঝাড়খণ্ড ও ছত্তিশগড়ের বিভিন্ন জনপদে সগৌরবে মাথা তুলে রয়েছে শহীদ মিনার। ১৯৯৩ সালের ২১ ফেব্র“য়ারি কলকাতার ধর্মতলার কার্জন পার্কে শহীদ মিনারের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করা হয়। ১৯৯৮ সালের ২৬ মে স্মারক স্তম্ভটি উদ্বোধন করেন কথাসাহিত্যিক অন্নদাশঙ্কর রায়। বাংলা ভাষার শহীদদের স্মরণে ওপার বাংলায় দ্বিতীয় শহীদ মিনার স্থাপিত হয় ২০১১ সালে দক্ষিণ কলকাতার দেশপ্রিয় পার্কে।

২৫০ বর্গফুট জায়গাজুড়ে ১১ ফুট উচ্চতায় গড়া হয়েছে এই শহীদ মিনার। এ ছাড়া পশ্চিমবঙ্গে আরও দুটি ভাষা শহীদ মিনার রয়েছে। এর একটি হলদিয়ায়, অন্যটি চন্দননগরে। আসামের শিলচরে আরেকটি শহীদ মিনার নির্মিত হয়েছে ১৯৬১ সালে, সেখানে বাংলা ভাষার মর্যাদা রক্ষার আন্দোলনে শহীদদের স্মরণে। ১৯৯৯ সালে বাংলা ভাষার শহীদ দিবস আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসের মর্যাদা পাওয়ার পর থেকে আগরতলা, আসাম, মেঘালয়, ঝাড়খণ্ড, ছত্তিশগড় রাজ্যের বিভিন্ন জনপদেও নির্মিত হচ্ছে অস্থায়ী শহীদ মিনার। ভারতের বাইরে বাকি বিশ্বেও সগৌরবে মাথা উঁচু করছে বাংলা ভাষার শহীদ মিনার। এ সংখ্যা ইতিমধ্যে ১০০ ছাড়িয়ে গেছে বলে বিভিন্ন সূত্রে জানা যাচ্ছে।

বাংলাদেশের বাইরে প্রথম শহীদ মিনার গড়ে ওঠে ব্রিটেনের ওল্ডহ্যাম শহরে। এটি ১৯৯৭ সালের কথা। স্থানীয় বাঙালি কাউন্সিলরদের দাবির মুখে ওল্ডহ্যাম কাউন্সিলের জমি এবং নগদ অর্থ বরাদ্দের সুবাদে স্থানীয় বাঙালিদের কয়েকটি সংগঠনের প্রত্যক্ষ সহায়তায় ওই শহীদ মিনারটি গড়ে ওঠে। এটি নির্মিত হয় ঢাকা কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারের আদলে। এটি নির্মাণের ঠিক তিন বছর পর আরেকটি শহীদ মিনার প্রতিষ্ঠিত হয় ইংল্যান্ডের সর্ববৃহৎ বাঙালি অধ্যুষিত এলাকা পূর্ব লন্ডনে। বাঙালিদের উদ্যোগেই তা প্রতিষ্ঠিত হয়েছে ঐতিহাসিক আলতাব আলী পার্কে। এর পর শহীদ মিনার নির্মিত হয়েছে লুটন শহরে। জাপানের রাজধানী টোকিওর প্রাণকেন্দ্র তোসিমা সিটিতে ন্যাশনাল থিয়েটার হলের পাশে কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারের আদলেই ২০০৫ সালে নির্মিত হয়েছে একটি মিনার। জাপান সরকারের বরাদ্দ দেওয়া জমিতে এই মিনারটি নির্মিত হয়েছে বাংলাদেশ সরকারের অর্থায়নে।

একই সময়ে মধ্যপ্রাচ্যের মুসলিম দেশগুলোর মধ্যে ওমানে গড়ে উঠেছে শহীদ মিনার। কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারের আদলে নির্মিত এ মিনারটি প্রতিষ্ঠিত হয়েছে সেখানকার তৎকালীন রাষ্ট্রদূত গোলাম আকবর খন্দকারের উদ্যোগে। অস্ট্রেলিয়ার সিডনির বিখ্যাত অ্যাশফিল্ড হেরিটেজ পার্কে একুশে একাডেমি অস্ট্রেলিয়ার উদ্যোগে ২০০৬ সালে নির্মিত হয়েছে একটি শহীদ মিনার। এটিকে অবশ্য বলা হচ্ছে মাতৃভাষা স্মৃতিসৌধ। দাবি করা হচ্ছে, এটাই প্রথম আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা স্মৃতিসৌধ।

ইউরোপে যুক্তরাজ্যের লন্ডনের পর ইতালির আদরিয়াটিকো সাগরের কূলঘেঁষা বন্দর শহর বারিতে নির্মিত হয় শহীদ মিনার। ইতালির দ্বিতীয় শহীদ মিনার স্থাপিত হয় রাজধানী রোমে। ভিয়া পানামার ইসহাক রবিন পার্কে এটি নির্মিত হয় ২০১১ সালের ফেব্র“য়ারিতে। ফ্রান্সের বাঙালি কমিউনিটি প্রতি বছর আনুষ্ঠানিকভাবে ভাষা শহীদদের স্মরণ করে থাকে অস্থায়ী শহীদ মিনার তৈরি করে। একুশে ফেব্র“য়ারি আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস ঘোষণা হলে ফ্রান্সের বাঙালি কমিউনিটির চেষ্টায় প্যারিসে স্থায়ী শহীদ মিনার নির্মাণ হয়েছে।

যুক্তরাষ্ট্র, ফ্রান্স, জার্মানি ও কানাডায় শহীদ মিনার নির্মাণের ঘোষণা দেওয়া হয়। ফ্রান্সের প্যারিসে শহীদ মিনার নির্মাণের ঘোষণা দিয়েছেন প্যারিসের মেয়র জ্যাকলিন রুইও।

যুক্তরাষ্ট্রের লস অ্যাঞ্জেলেসের শ্যাডো ক্রিয়েশন সেন্টারের সামনে খেলার মাঠে কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারের আদলে ব্রোঞ্জের ১২ ফুট প্রস্থ এবং ১৮ ফুট উচ্চতার একটি প্লাক স্থাপনের সিদ্ধান্ত নিয়েছে সিটি করপোরেশন। কানাডার দুটি শহর টরন্টো ও মন্ট্রিলে শহীদ মিনার নির্মাণের প্রক্রিয়া চলছে। জার্মান সরকারও শহীদ মিনার নির্মাণের উদ্যোগ নিয়েছে।

প্রতিবছর একুশে ফেব্র“য়ারি আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস পালনের অংশ হিসেবে বিশ্বের দেশে দেশে নির্মিত হবে অগণিত অস্থায়ী শহীদ মিনার। নিউইয়র্কের জাতিসংঘ ভবনের সামনে প্রতিবছর একুশে ফেব্র“য়ারিতে কালো কাপড়ে পরিবেষ্টিত অস্থায়ী শহীদ মিনার নির্মিত হয়।

বহুজাতিক আমেরিকায় জন্মগ্রহণকারী প্রজন্মে বাংলা ভাষা ও সংস্কৃতি জাগ্রত রাখার প্রত্যয়ে প্রবাসী বাঙালিরা মহান শহীদ দিবস তথা আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস উদযাপন করছেন। আমেরিকায় জন্মগ্রহণকারী প্রজন্মকে একুশের মাহাত্ম্য জানানোর সংকল্পও ব্যক্ত করা হচ্ছে বিভিন্ন অনুষ্ঠানে।

হিমাঙ্কের ১৭ ডিগ্রি নিচের তাপমাত্রা অর্থাৎ স্মরণকালের ভয়াবহতম শৈত্যপ্রবাহ উপেক্ষা করে নিউইয়র্কের বাঙালিরা একুশের প্রথম প্রহরে সপরিবারে বিভিন্ন শহীদ মিনারে সমবেত হয়ে ‘আমার ভাইয়ের রক্তে রাঙানো একুশে ফেব্রুয়ারি-আমি কি ভুলিতে পারি’ গানের সঙ্গে শ্রদ্ধাঞ্জলি অর্পণ করেন। জাতিসংঘের সামনে নির্মিত অস্থায়ী শহীদ মিনারে নিউইয়র্ক অঙ্গরাজ্যের গভর্নর কর্তৃক ‘একুশে ফেব্র“য়ারি তথা আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস’কে সর্বস্তরে আনুষ্ঠানিকভাবে উদযাপনের ঘোষণাপত্র হস্তান্তর করা হয়।