Bangladesh Pratidin

ঢাকা, সোমবার, ৫ ডিসেম্বর, ২০১৬

প্রকাশ : বৃহস্পতিবার, ২০ অক্টোবর, ২০১৬ ০০:০০ টা আপলোড : ১৯ অক্টোবর, ২০১৬ ২১:৪২
চিঠি দিও প্রতিদিন
আবদুল কাদের ও তানিয়া তুষ্টি
চিঠি দিও প্রতিদিন

চিঠির আদ্যোপান্ত

প্রাচীন ইতিহাস ঘাঁটলেই মেলে চিঠির আদ্যোপান্ত। আগের দিনে রাজা-বাদশাহরা দূত মারফতে রাজ্যের বিভিন্ন তথ্য আদান-প্রদান করতেন। সে সময় যোগাযোগের একমাত্র মাধ্যম ছিল চিঠি বা ডাক সার্ভিস। যদিও এর আনুষ্ঠানিকতা ঘটে বহু বছর পর। প্রথম লিখিত চিঠির ইতিহাস মেলে ফারাও সাম্রাজ্যের প্রাচীন মিসরে। যিশুর জন্মের ২৪০০ বছর আগে ফারাও রাজারা দূত মাধ্যমে তথ্য আদান-প্রদান করতেন। প্রাচীন মিসরীয় অনেক নথি তার প্রমাণ-দলিল।

অনেক ঐতিহাসিক মনে করেন, পারস্য সাম্রাজ্যে ডাকব্যবস্থার প্রচলন শুরু হয়েছিল। বিষয়টি প্রশ্নবিদ্ধ হলেও খ্রিস্টপূর্ব ৫৫০-এর ফারসি রাজা কোরসের সময়কার নথি বা দলিল একেবারেই ফেলনা নয়। তারা বাধ্যতামূলক রাজ্যের প্রতিটি নাগরিকের অভ্যর্থনাপত্র ও চিঠি বিতরণ করতেন।

উপমহাদেশের ইতিহাস কম-বেশি সবারই জানা। যিশু খ্রিস্টের জন্মের ৩২২ বছর আগে প্রাচীন ভারতীয় মৌর্য রাজবংশীয়রা ডাকব্যবস্থায় কাজ করতেন। এরপর উপমহাদেশের ডাক বিভাগের আনুষ্ঠানিকতা হয় ১৭৭৪ সালে। ব্রিটিশ ভারতে এ ব্যবস্থা পুরোপুরি চালু হয়।

চীনের জিয়াং বা সাং বংশের দাবি, প্রাচীন চিঠি বা ডাকব্যবস্থা তাদের হাত ধরেই এসেছিল। ইতিহাস বলে, ২২০ খিস্টপূর্বাব্দে হ্যান রাজবংশীয় লি পুনরায় ডাকব্যবস্থা চালু করেন। তাং রাজবংশীয় ইতিহাসে ১৬৩৯টি পোস্ট অফিস এবং ২০ হাজারেরও বেশি ডাকপিয়নের নজির মেলে। আবার রোমেও ডাক বিভাগের ইতিহাস পাওয়া যায়। খ্রিস্টপূর্ব ৬২ সালে রাজা অগাস্টাস কেসারের সময় ডাক সার্ভিসকে ‘কারসাস পাবলিকাস’ নামে ডাকা হতো এবং প্রথম ঘোড়ায় চড়ে চিঠি বিতরণের দলিল তাদের ইতিহাসে মেলে। মোগল সাম্রাজ্যের সময় অধিপতি চেঙ্গিস খান ‘ওরতো’ নামের সার্ভিস চালু করেছিলেন। কুবলাই খানের অধীনে ইউয়ান রাজবংশের সময় এই ব্যবস্থার চীন রাজ্যে ছড়িয়ে পড়ে। এই সার্ভিসটি শুধু রাজ্যের কাজেই ব্যবহৃত হতো না, ব্যক্তিগত তথ্য আদান-প্রদানেও ব্যবহার হতো। কুবলাই খানের সময় ১৪০০ পোস্ট অফিস ছিল। আর বিতরণের জন্য ৫০ হাজার ঘোড়া, ১৪০০ ষাঁড়, ৬৭০০ খচ্চর, ৬০০০ নৌকা, ২০০-এর বেশি কুকুর এবং ১১৫০ মেষ ব্যবহার হতো। ইসলামী বিশ্বের খলিফা মুয়াবিয়া (রা.)-এর সময়ও চিঠি এবং ডাকব্যবস্থা চালু করেছিলেন। এর নাম ছিল ‘বারিদ’ এবং তার সময় চিঠি বিতরণে নতুন রাস্তাও তৈরি করা হয়। মধ্যযুগে চিঠি আদান-প্রদানে পায়রা ব্যবহার করা হতো। পায়রার পায়ে বেঁধে চিঠি পাঠানো হতো। পায়রা ছিল সে সময়কার ভালো ডাকপিয়ন।

 

রয়েল মেইল

প্রাচীনকাল থেকেই চিঠির আদান-প্রদান ছিল। তবে এ উপায়গুলো ছিল খুব সময়সাপেক্ষ আর ঝামেলাপূর্ণ। যোগাযোগের স্বার্থে ডাক বিভাগের উত্পত্তি। প্রাচীন ডাক বিভাগ বললেই ইংল্যান্ডের বিখ্যাত ‘রয়েল মেইলে’র কথা মনে পড়বে। এটি পৃথিবীর প্রথম ডাক বিভাগ। ১৫১৬ সালে ব্রিটিশ রাজা হেনরি অষ্টম-এর রাজত্বকালে প্রাচীন এই ডাক বিভাগ বা পোস্ট অফিসটি চালু হয়। শুরু থেকেই কোম্পানিটি রয়েল গ্রুপের অধীনস্ত ছিল। ইংল্যান্ডের রাজা সে সময় ভালো সার্ভিসের জন্য ‘মাস্টার অব দ্য পোস্ট’ নিয়োগ দেন। ১৭১০ সালে এর নামকরণ হয় ‘পোস্ট মাস্টার জেনারেল’। রয়েল সার্ভিসের কল্যাণে ধীরে ধীরে ডাক বিভাগের উন্নয়ন শুরু হয়। কোম্পানির সংগৃহীত চিঠি রাজ্যের বাইরেও পৌঁছে দিত। এ জন্য প্রাচীন এই পোস্ট অফিস ঘোড়ার গাড়ি ব্যবহার করত। ১৮৩৯ সালে রয়েল মেইলের পোস্ট মাস্টারদের ইউনিফর্ম চালু হয়। ঠিক তার কয়েক বছর পর ১৮৫২ সালেই চালু হয় পিলার পোস্টবক্স ও পোস্টবক্স। রাস্তার পাশে অলি-গলিতে বসানো হয় এই পিলার পোস্টবক্স এবং দেয়ালবক্স। মানুষের সেবা প্রদানের পাশাপাশি ব্যবসার উদ্দেশ্যে তৈরি কোম্পানিটি হয়ে ওঠে বিশ্বের সেরা পোস্টাল সার্ভিস। গ্রাহকদের উন্নত সেবা প্রদানই ‘রয়েল মেইলে’র মূল উদ্দেশ্য। কিন্তু ২০১৩ সালে লন্ডন স্টক এক্সচেঞ্জে ‘রয়েল মেইল’ ইতিহাসের সবচেয়ে বড় ধাক্কা খায়। যদিও ২০১৫ সালে প্রাচীন কোম্পানির শেয়ার চালু হয়। ৪৯৯ বছর পর প্রাচীন এই ডাক বিভাগটি জনগণের সম্পত্তি হয়।

 

দেশে দেশে জনপ্রিয়

এখন অবশ্য চিঠির প্রয়োজনীয়তা নেই বললেই চলে। চিঠির স্থান এখন দখল করে নিচ্ছে ই-মেইল এবং বিভিন্ন মোবাইল অ্যাপ্লিকেশন। তবুও কিন্তু চিঠির আবেদনই আলাদা। এখনো রোদ-বৃষ্টি এমনকি তুষারপাত উপেক্ষা করে দিন-রাত চিঠি পৌঁছে দেন বিভিন্ন দেশের পোস্ট মাস্টার। এখনো বিশ্বের বিভিন্ন দেশে বাড়ির দেয়ালে সাঁটানো রয়েছে দেয়াল পোস্টবক্স। বিভিন্ন চিঠি কিংবা শুভেচ্ছাপত্রে মাতামাতি করে দেশের কোটি কোটি মানুষ। আমাদের দেশে ডাক বিভাগ জনপ্রিয় না হলেও বিশ্বের বিভিন্ন দেশে ব্যাপক জনপ্রিয়তা রয়েছে।

আমেরিকায় এখনো পোস্ট অফিস বেশ জনপ্রিয়। দেশটির প্রতিটি পোস্ট অফিসের পোস্ট মাস্টারদের রয়েছে দীর্ঘ সময়ের অভিজ্ঞতা। ডাক বিভাগের হিসাব অনুযায়ী প্রতিবছর ২,৬৮,৮৯৪টি চিঠি এবং ২,৬৩৩টি আদান-প্রদান হয়। বিভিন্ন দেশের ১৫১ লাখ ঠিকানা রয়েছে আমেরিকান পোস্টাল সার্ভিসের। জাপান পোস্ট অফিস বিশ্বস্তের অন্যতম নাম। অফিসটির গ্রাহক সেবা বিশ্ব অর্থনীতি সংস্থার সঙ্গে চুক্তিবদ্ধ। অফিসটির অনেকগুলো শাখা রয়েছে। জাপানে এই পোস্টাল সার্ভিসটি ব্যাপক জনপ্রিয় এবং বিভিন্ন সরকারি কাজও করে থাকে জাপান পোস্ট অফিস।

কোরিয়ান পোস্ট সার্ভিস প্রতিবছরই সেরা পাঁচ-এর মধ্যে থাকে। কোরিয়া পোস্ট সার্ভিস গ্রাহকদের বিভিন্ন সেবা স্বচ্ছতার সঙ্গে দিয়ে থাকে। কোম্পানিটির গ্রাহক বিভিন্ন অভিযোগ অনলাইনে নেয় যা সবাই দেখতে পারে। এই সার্ভিসের কর্মীরা সেবা প্রদান করে লাভবান হয়। এ জন্য এই পোস্টাল সার্ভিস গোটা কোরিয়ায় জনপ্রিয় একটি সংস্থা। অস্ট্রেলিয়ার নির্জন এলাকায়ও অস্ট্রেলিয়ান পোস্ট অফিস সেবা প্রদান করে থাকে। অস্ট্রেলিয়া জাতীয় ডাক বিভাগ দেশটির অর্থনীতিতে ব্যাপক ভূমিকা পালন করছে। এর জনপ্রিয়তাও তুঙ্গে। পোস্টাল সার্ভিসটি গ্রাহকদের বিভিন্ন সেবা যেমন- বই কেনা, অনলাইনে কেনাকাটা, অফিস পেপারস সার্ভিস, কফি পার্সেল ইত্যাদি। কোম্পনিটির বার্ষিক আয় ২৯০ লাখ ডলার।

কানাডা পোস্ট অফিসও এই তালিকায় পিছিয়ে নেই। গোটা পোস্ট অফিসে মাত্র ১,৫১৬ জন নাগরিক। তা সত্ত্বেও সেবা আর জনপ্রিয়তায় রয়েছে সেরা। ডিউচি পোস্ট অফিস। জার্মানির বিখ্যাত এই পোস্ট অফিসটি জার্মানির পাশাপাশি গোটা বিশ্বেই সমাদৃত এবং বিশ্বস্ততার প্রতীক। ডিউচি গ্রাহকদের ব্যাংকিং সেবা, পার্সেল, চিঠি ও জরুরি কাগজ আদান-প্রদান, শপিং থেকে শুরু করে নানা ব্যক্তিগত সেবাও প্রদান করে থাকে। এখানেই শেষ নয়, প্রাচীন এই সভ্যতা চায়না, ইন্দোনেশিয়া, ইতালি, লন্ডন, ইউক্রেন, রাশিয়াসহ বিশ্বের বিভিন্ন দেশে আজও জনপ্রিয়। বিভিন্ন উৎসবের শুভেচ্ছাকার্ড থেকে ব্যক্তিগত সব ধরনের চিঠি-নথিসহ প্রয়োজনীয় পার্সেল আদান-প্রদান করে থাকে। এটি শুধু একটি ডাক বিভাগ নয়, সুপ্রাচীন ঐতিহ্যও বটে।

 

চিঠিতেও আধুনিকতা

ফ্যাক্স 

স্কটিশ এক মেকানিক ১৮৪৩ সালে ফ্যাক্স মেশিন আবিষ্কার করেন। এটি এমন একটি ইলেকট্রনিক যন্ত্র যা কোনো কাগজ বা দলিলের ছবি ডিজিটাল পদ্ধতির টেলিফোন তারের সাহায্যে দূরমুদ্রণে সক্ষম। বিংশ শতাব্দীর শেষভাগে টেলেক্স ও টেলিগ্রাম ব্যবহার প্রায় বন্ধ হয়ে যাওয়ার পর ফ্যাক্সের ব্যবহার বাড়ে। বর্তমানে বিশ্বের ৭০টি দেশ এ সুবিধা নিচ্ছে।

 

ই-মেইল

ই-মেইল তথা ইলেকট্রনিক মেইল তথ্য-প্রযুক্তির অন্যতম আশ্চর্য। ১৯৭২ সালে আমেরিকায় চালু হওয়া ইলেকট্রিক মেইল আজকের জনপ্রিয় যোগাযোগের মাধ্যম। গুরুত্বপূর্ণ তথ্য আদান-প্রদানে আমরা ই-মেইলের সুবিধা ভোগ করছি। ২০১৫ সালের শেষ নাগাদ এর ব্যবহারকারী প্রায় ২.৬ বিলিয়ন যা ২০১৯ সালে ২.৯ বিলিয়ন।

 

ফেসবুক

ছেলে-বুড়ো সবাই ফেসবুকের পাগল। বর্তমান সময় ফেসবুক সবার জন্য জনপ্রিয় সোশ্যাল মাধ্যম। পরিচিতদের কাছে তাত্ক্ষণিক তথ্য, ছবি, ভিডিও পৌঁছে দিতে ফেসবুকের তুলনা হয় না। ওয়ার্ড ডকুমেন্ট পাঠানো, টেক্স চ্যাট, অডিও বা ভিডিও কলেরও সুযোগ রয়েছে ফেসবুকে। সম্প্রতি ফেসবুকের ব্যবহারকারীর সংখ্যা ৫০০ মিলিয়ন ছাড়িয়েছে। ফেসবুককে বিশ্বের সবচেয়ে বড় সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম হিসেবে ধরা হয়।

 

মুঠোফোন

প্রয়োজনীয় বার্তা অপরের কাছে পাঠানোর ধারণাকে পুঁজি করে আধুনিকতায় যোগ করেছে বৈপ্লবিক পরিবর্তন। ফোনে চিঠির অপশন তো আছেই সঙ্গে আপনার মুখের কথাকে পাঠিয়ে দিচ্ছে কাঙ্ক্ষিতজনের কাছে। ফোনের অপর পাশে থাকা লোকের কাছে ছবি বা অডিও-ভিডিও রেকর্ড পাঠানো এমনকি ভিডিও কলে কথা বলার সুযোগ এনে দিচ্ছে স্বল্পমূল্যে পাওয়া হরেক রকমের স্মার্টফোন। মূলত ফোনে থাকা নানা রকম অ্যাপস আপনাকে এসব সুবিধা পেতে সাহায্য করছে। অ্যাপসগুলোর মধ্যে স্কাইপি, উইচ্যাট, লাইন, নিমবাজ, ইমো, ভাইবার, হোয়াটসঅ্যাপ, ট্যাংগো অন্যতম। বিশ্বে বর্তমানে ৪.৭৭ বিলিয়ন মোবাইল ব্যবহারকারী আছে।

 

কুরিয়ার সার্ভিস

দেশের ভিতরে বা বাইরে প্রয়োজনীয় নথিপত্র বা কোনো জিনিস পাঠাতে কুরিয়ার সার্ভিস চলে এসেছে সবার পছন্দের তালিকায়। অন্যান্য মাধ্যমগুলোতে লিখিত ডকুমেন্ট পাঠানোর ব্যবস্থা থাকলেও কুরিয়ার সার্ভিসের মতো মালপত্র আদান-প্রদান করা যায় না। এক বা দুই দিনের ব্যবধানে এক জায়গা থেকে অন্য জায়গায় প্রয়োজনের জিনিস পাঠাতে কুরিয়ারই ভরসা। চালু থাকা দেশীয় কুরিয়ার সার্ভিসগুলোর মধ্যে রয়েছে সুন্দরবন কুরিয়ার সার্ভিস, এসএ পরিবহন, কপোতাক্ষ কুরিয়ার, জননী কুরিয়ার সার্ভিস, কন্টিনেন্টাল কুরিয়ার সার্ভিস ইত্যাদি।

 

চিঠিতে প্রযুক্তির ইতিহাস

প্রাচীন ডাক বিভাগ আজকের মতো উন্নত ছিল না। সেকালে চিঠির আদান-প্রদান ছিল বেশ সময়ের ব্যাপার। সহজ এবং দ্রুত করার জন্যই ডাক বিভাগের উত্পত্তি।

ডাক বিভাগ চালু হলেও তখন প্রযুক্তি ছিল অধরা। মার্কিনিদের হাত ধরেই ডাক বিভাগ এবং আধুনিক প্রযুক্তির উত্থান। ১৬ শতকের সময় চিঠি পাঠানো হতো বন্ধু বা প্রতিবেশীর মাধ্যমে। ১৬৭৩ সালে গভর্নর ফ্রান্সিস লাভলেস প্রথম নিউইয়র্ক ও বোস্টনে পোস্ট অফিস চালু করেন। কিন্তু তাতেও অনেক সময় লেগে যেত চিঠি পৌঁছাতে। পরবর্তীতে ডাক বিভাগ সময়ের দিকে গুরুত্ব দেয়। সে সময় পশ্চিমা দেশে পোস্ট অফিস সীমিত থাকায় যোগাযোগের এ মাধ্যমটি গুরুত্বপূর্ণ ইস্যু হয়ে ওঠে। তখন যোগ্য জনবল চেয়ে ১৮৬০ সালে মার্চে ‘পিয়নার ট্রান্সপোর্টশন’ কোম্পানি পত্রিকায় বিজ্ঞাপন দেয়। কোম্পানিটি ট্রেনে, বাষ্পীয় জাহাজে এবং নৌজাহাজে করে বিভিন্ন দেশে চিঠি আনা-নেওয়া করত। প্রেরিত চিঠিগুলো নির্দিষ্ট স্থানে পৌঁছানোর জন্য ঘোড়ার গাড়ি, ইঞ্জিনচালিত গাড়ি ব্যবহার করত। ১৮৩৫ সালে তৈরি আমেরিকান ‘পোস্ট অফিস রিফর্ম’ আধুনিক পোস্ট অফিসের আইকন। সেই থেকে প্রযুক্তির যাত্রা শুরু। ১৯৯৬ সালে ডাক বিভাগ আরও উন্নতি লাভ করে। ‘পেনি এক্সপ্রেস’ অল্প সময়ে ৩৪,৭৫০টি চিঠি পৌঁছাতে পারত। সে সময় চিঠি আদান-প্রদানে ঘোড়ার গাড়ি, ইঞ্জিনচালিত গাড়ি, ট্রেন, বাষ্প জাহাজ, নৌজাহাজ, প্যারাসুট এবং সব শেষে বিমানের ব্যবহার পুরোপুরি চালু হয়। পরবর্তীতে আমেরিকান ডাক বিভাগে আরও উন্নত প্রযুক্তির ছোঁয়া লাগে। টেলিফোন, টেলিগ্রাফ এবং ফ্যাক্সের মাধ্যমে প্রয়োজনীয় নথি আদান-প্রদান শুরু হয়। ডাক বিভাগের ওপর নির্ভরতার দিক থেকে কুরিয়ায় ব্যবসা শুরু হয়।

সময়ের সঙ্গে সঙ্গে তথ্য-প্রযুক্তির কল্যাণে ই- মেইল প্রযুক্তি চলে আসে। এতে প্রয়োজনীয় তথ্য আরও স্বল্পসময়ে প্রেরকের কাছে পৌঁছাতে সক্ষম হয়।

সত্যি বলতে, ই-মেইল-এর বাস্তবায়নে ডাক বিভাগের চেহারা পাল্টে যায়।

 

বাংলাদেশের ডাকঘর

একসময়ের জনপ্রিয় চিঠি আর ডাকঘর এখন ইতিহাস হওয়ার অপেক্ষায়। বিভিন্ন কারণে মুখ থুবড়ে পড়ছে আমাদের ডাক বিভাগ। সঙ্গে গুনছে লোকসানও। যদিও এই বিভাগটির অতীতের স্বর্ণযুগ ফিরিয়ে আনার চেষ্টাও চলছে ব্যাপক। কিন্তু আধুনিক প্রযুক্তির ছোঁয়া গোটা দেশ থেকে হারিয়ে যাচ্ছে এই ডাক বিভাগ। ১০-১৫ বছর আগেও ডাক বিভাগ ছিল সাজানো-গোছানো ছিমছাম। কিন্তু এখন সেসব কেবলই অতীত। জানা গেছে, বর্তমানে সারা দেশে ৯ হাজার ৮৮৬টি ডাকঘর রয়েছে। যার মধ্যে বিভাগীয় ডাকঘরের সংখ্যা ১ হাজার ৪২৬টি এবং অবিভাগীয় ডাকঘরের সংখ্যা ৮,৪৬০। যেখানে কর্মরত আছেন ৩৯ হাজার ৯০৭ জন কর্মকর্তা-কর্মচারী। বর্তমানে ডাক বিভাগের লোকসান আর জনপ্রিয়তা কমায় মানবেতর জীবনযাপন করছেন অসংখ্য কর্মকর্তা ও কর্মচারী। মাস শেষে সামান্য মাইনে পেলেও ঈদ বা পূজায় মেলে না কোনো বোনাস বাজেট। একসময় ডাকপিয়নের বেশ কদর ছিল। কিন্তু সেসব এখন আর নেই। বর্তমানের আধুনিক প্রযুক্তি মেসেজ, ই-মেইল আর ফেসবুকসহ মোবাইলের কাছে হার মানতে বসেছে ডাক বিভাগ।

 

প্রেমপত্র এখন হোয়াটসঅ্যাপে

দুজন দুটি সত্তার অধিকারী কিন্তু মনের দেয়াল গুঁড়িয়ে এক উঠোন হয়েছে সেই কবে। বাইরের কেউ জানে না তাদের হৃদ্যতায় গড়া ভালোবাসার কথা। বাবা-মা, বড় ভাই বা পড়শি জানাজানি হলে হয়ে যাবে বড় ধরনের অনাজারি। কিন্তু মনের কথা প্রিয়জনকে জানানো চাই-ই। এদিকে লোকচক্ষুর সম্মুখে সে কথা বলা বারণ। তাই উপায় একটায়, বার্তা পাঠিয়ে দেওয়া। মোগল আমলের ইতিহাস আমরা অনেকেই জানি। সে সময় পায়রার পায়ে চিঠি বেঁধে উড়িয়ে দেওয়া হতো। আর পোষ্য পায়রা ঠিক জায়গা মতো চিঠি পৌঁছে দিত। চিঠিতে লেখা গোটা অক্ষরের কথামালায় প্রিয়জনের হাতের ছোঁয়া- সেও এক পরম পাওয়া ছিল সে সময়ের ভালোলাগা ভালোবাসা। সময়ের বিবর্তনে এই প্রেম নিবেদনের মাধ্যমটি চলে আসে মানুষের হাতের মুঠোয়। মোবাইল ফোনের মেসেজে মনের কথাগুলো প্রিয়জনের কাছে প্রকাশ করা হয়। যা চিঠিরই অন্য রূপ। খামে আটকানো চিঠির রীতি বদলে যায় মোবাইলের স্ক্রিনে। এ যুগের প্রেমিকারাও অনুভূতি প্রকাশে কম যায় না। প্রযুক্তির ছোঁয়ায় তা পেয়েছে তাত্ক্ষণিক সমাধান। মনে পড়লেই নিজের মনের কথা পাঠিয়ে দিচ্ছে কাঙ্ক্ষিতজনের কাছে। বিভিন্ন মেসেঞ্জার যেমন- হোয়াটসআপ, ইমো, ফেসবুক মেসেঞ্জার, মিগ ৩৩, স্কাইপি ইত্যাদির মাধ্যমে চলে প্রেমের বাক্য বিনিময়। বর্তমান তরুণ সমাজ হোয়াটসঅ্যাপে মজেছে প্রেমের খেলায়। মেসেজের পাশাপাশি ছবি, ভিডিও কলের মাধ্যমেও প্রিয়জনকে অনেক কাছে টেনে নিচ্ছে। কেউবা অডিও কলে আবার কেউবা ভিডিও কলে। মনের কথা ছড়িয়ে দিচ্ছে সোশ্যাল মাধ্যমগুলোতে।

আড্ডা, গল্প, কথা বা অনুভূতির এত সহজ আদান-প্রদানে শুধু উপকৃত হচ্ছে না, মাঝে মাঝে বিপত্তিতে পড়তে হচ্ছে। অতিরিক্ত আবেগী হয়ে এমন কিছু আচরণ হয়ে যাচ্ছে, যা জনসম্মুখে প্রকাশ রীতিমতো মানহানিকর। ভয়েস রেকর্ড বা ভিডিও কলটি ধারণ করে ব্ল্যাকমেইল করা হচ্ছে। বিপদের শিকার হচ্ছে অনেকে। তাই প্রেমের ক্ষেত্রে অনেক দুর্ঘটনাও চলে আসছে জনসম্মুখে। আমাদের তথ্য-প্রযুক্তি যত সুলভ হচ্ছে আমাদের বিপদের মাত্রা ততই বৃদ্ধি পাচ্ছে।

 

১৯ শতকের ডাক বিভাগ

খুব বেশি দূরে নয়, মাত্র ১০০ বছর আগের ইতিহাস ঘাঁটলেই দেখা মিলবে চিঠির ইতিহাসের স্বর্ণযুগের। প্রাচীন ডাক বিভাগের ভোল পাল্টে আধুনিকায়ন ঘটে এই শতাব্দীতেই। আগের দিনে ডাকে চিঠি পাঠানো ছিল অনেক সময়ের ব্যাপার। প্রযুক্তির উন্নয়ন আর ডাক বিভাগের উন্নয়ন সাধিত হয় এই সময়েই। ১৭ শতাব্দীর সময় ঘোড়ার গাড়িতে করে চিঠি আনা-নেওয়া হলেও ১৯ শতকের সময় বদলে যায় ডাক বিভাগের রূপ। ডাক বিভাগে প্রচুর লোকের কর্মসংস্থান ঘটে। এই শতাব্দীর শুরুতেই ইঞ্জিনচালিত গাড়ি, ট্রেন, বাষ্প জাহাজ, নৌজাহাজ, প্যারাসুট ইত্যাদি ব্যবহার করে চিঠি এক স্থান থেকে অন্য স্থানে আনা-নেওয়া হতো। ১৯১৪ সালে নিউইয়র্কের পেনসিলভানিয়ার পোস্ট অফিস থেকেই এর প্রমাণ মেলে। প্রযুক্তি আর আধুনিকতার মিশেলে তৈরি নতুন পোস্ট অফিসগুলো গড়ে ওঠে। প্রচুর কর্মসংস্থান হয় এখানে। সে সময় ডাক অফিসে ক্যাশিয়ার ছিল। তিনি পোস্টকৃত চিঠির অর্থের হিসাব রাখতেন। ১৯২৫ সালে পুরো ডাক বিভাগের পরিবর্তন আসে। তখন যোগ হয় স্ট্যাপ পেপার। এই শতাব্দীতে ট্রেনে করে চিঠি দেশ-বিদেশে আনা-নেওয়া করা হতো। প্রতিটি ট্রেনে আধুনিক প্রযুক্তির ব্যবহার ছিল। প্রচুর চিঠি পড়ত সেখানকার ডাকবক্সগুলোতে। তখন দেশের অভ্যন্তরে ছোট ছোট গাড়িতে করে চিঠি পৌঁছে দেওয়া শুরু হয়। তখনো ঘোড়ার প্রচলন ছিল, তবে কম। ছোট-বড় গাড়িতে করে নির্দিষ্ট পোস্ট অফিসে পৌঁছে দিত প্রিয়জনের চিঠিপত্র। ১৯৪০ সালে ক্যালিফোর্নিয়ার নাভাদা প্রদেশে ডাক বিভাগে যুক্ত করে ছোট-বড় বহু চাকাবিশিষ্ট ট্রাক। প্রযুক্তির উন্নয়নে এই শতাব্দী ছিল ডাক বিভাগের স্বর্ণযুগ।

 

ছবিতে সেকালের ডাক বিভাগ

 

যেসব দেশে পোস্ট অফিসের ছড়াছড়ি

এই পাতার আরো খবর
up-arrow