শিরোনাম
মঙ্গলবার, ৬ ফেব্রুয়ারি, ২০২৪ ০০:০০ টা

উপজেলা নির্বাচন : রংপুরে সম্ভাব্য প্রার্থীরা প্রচারে

নজরুল মৃধা, রংপুর

চলতি বছর এপ্রিলের শেষ দিকে চার ধাপে উপজেলা পরিষদ নির্বাচনের প্রস্তুতি নিয়েছে নির্বাচন কমিশন। এরই মধ্যে রংপুরের আট উপজেলায় সম্ভাব্য প্রার্থীরা প্রচার চালানো শুরু করেছেন। বিগত উপজেলা নির্বাচনে রংপুরের পীরগাছা উপজেলা শুধু জাতীয় পার্টির দখলে ছিল। এ ছাড়া বাকি সাত উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আওয়ামী লীগ থেকে নির্বাচিত হন। দ্বাদশ সংসদ নির্বাচনে জাতীয় পার্টির ঘাঁটি বলে পরিচিত রংপুরে দলটির ভরাডুবি হয়। ছয় সংসদীয় আসনের মধ্যে একটিতে জিতেছে তারা। একাধিক আসনে জামানত হারিয়েছে। তবে এখন উপজেলা নির্বাচন নিয়ে জাপা নেতাদের মধ্যে আগ্রহ চোখে পড়ার মতো। তাঁরা আগাম প্রচার চালাচ্ছেন। অন্যদিকে প্রতিটি উপজেলায় আওয়ামী লীগের একাধিক প্রার্থী চেয়ারম্যান ভোট করার জন্য প্রস্তুতি নিচ্ছেন। বিএনপি উপজেলা নির্বাচনে অংশগ্রহণ করবে কি না নিশ্চিত না হলেও দলটির নেতারা মাঠ পর্যবেক্ষণ করছেন। তাঁরা অবস্থা বুঝে ব্যবস্থা নেবেন। জানা গেছে, গঙ্গাচড়া উপজেলায় রুহুল আমীন, কাউনিয়ায় আনোয়ারুল ইসলাম মায়া, বদরগঞ্জে ফজলে রাব্বি, তারাগঞ্জে আনিসুর রহমান লিটন, পীরগঞ্জে নুর মোহাম্মদ মন্ডল, সদরে নাসিমা জামান ববি, মিঠাপুকুরে জাকির হোসেন সরকার আওয়ামী লীগের এবং পীরগাছায় জাতীয় পার্টির মাহবুবার রহমান চেয়ারম্যান। এর মধ্যে মিঠাপুকুরের জাকির হোসেন সরকার উপজেলা পরিষদ থেকে পদত্যাগ করে দ্বাদশ সংসদ নির্বাচনে স্বতন্ত্র অংশগ্রহণ করে বিজয়ী হন। আওয়ামী লীগের দলীয় সূত্রে জানা গেছে, বর্তমানে যাঁরা দলের উপজেলা চেয়ারম্যান রয়েছেন এবার তাঁদের থাকার সম্ভাবনা বেশি। তবে দু-একটিতে পরিবর্তন আসতে পারে। মাঠ পর্যায়ে খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, প্রতিটি উপজেলায় আওয়ামী লীগের বেশ কয়েকজন করে প্রার্থী প্রচারে মাঠে রয়েছেন। সদর উপজেলায় চেয়ারম্যান প্রার্থী হতে ইচ্ছুক যাঁদের নাম আলোচনায় এসেছে তার মধ্যে রয়েছেন বর্তমান চেয়ারম্যান ও জেলা আওয়ামী লীগের সদস্য নাছিমা জামান ববি, জেলা আওয়ামী লীগের সাবেক উপদেষ্টা ও প্রবীণ আওয়ামী লীগ নেতা মফিজার রহমান রাজু, জেলা আওয়ামী লীগের সদস্য ও চন্দনপাট ইউনিয়ন চেয়ারম্যান আমিনুর রহমান, মহানগর আওয়ামী লীগের সদস্য অ্যাডভোকেট ফিরোজ কবির চৌধুরী গুঞ্জন। রংপুরের আট উপজেলায় আওয়ামী লীগের কমপক্ষে ২৫ প্রার্থী আগাম প্রচার চালাচ্ছেন।

এদিকে জাতীয় পার্টির সূত্রে জানা গেছে, তারা প্রাথমিকভাবে প্রার্থী বাছাই করেছেন। জাপার তালিকায় থাকাদের মধ্যে উল্লেখযোগ্য হলেন পঙ্গাচড়ায় সামছুল আলম, তারাগঞ্জে শাহিনুর রহমান মার্শাল, পীরগঞ্জে নুর আলম যাদু, কাউনিয়ায় শাহিনুজ্জামান শাহিন, বদরগঞ্জে মোফাজ্জল হোসেন মাস্টার ও মাসুদ রানা, পীরগাছায় মাহবুবার রহমান, মিঠাপুকুরে আনিছুল ইসলাম ও সদরে মাসুদ নবী মুন্না। জেলা জাপার সদস্যসচিব হাজি আবদুুর রাজ্জাক বলেন, ‘আমরা প্রাথমিকভাবে আট উপজেলার প্রার্থী নির্ধারণ করেছি। তবে খুব দ্রুত দলীয় সভা করে প্রার্থী চূড়ান্ত করা হবে। তিনি বলেন, দ্বাদশ নির্বাচনে রংপুরে জাতীয় পার্টি ভালো করতে না পারলেও উপজেলা নির্বাচনে ঘুরে দাঁড়াবে এটা আমার বিশ্বাস।’

অন্যদিকে মহানগর আওয়ামী লীগের আহ্বায়ক কমিটির সদস্য তুষারকান্তি মন্ডল বলেন, দলীয় প্রতীকে নির্বাচন না হলেও রংপুরে আওয়ামী লীগের প্রার্থীরাই বিজয়ী হবেন। উন্নয়নের স্বার্থে উপজেলার ভোটাররা আওয়ামী লীগের প্রার্থীকে বেছে নেবেন। জাতীয় পার্টি এখানে ভোট পাবে না।

 

 

এই বিভাগের আরও খবর

সর্বশেষ খবর