বৃহস্পতিবার, ২৯ জুলাই, ২০২১ ০০:০০ টা

জীবন বাঁচানো ওষুধ আবিষ্কারের গল্প

সাইফ ইমন

জীবন বাঁচানো ওষুধ আবিষ্কারের গল্প

জীবন বাঁচানোর জন্য ওষুধ আবিষ্কার। আজ পর্যন্ত চিকিৎসাবিজ্ঞানের কল্যাণে অনেক সফল ওষুধ মানুষ আবিষ্কার করতে পেরেছে। যার ফলে বেঁচে যাচ্ছে কোটি কোটি জীবন। মজার ব্যাপার, এমন অনেক আবিষ্কার রয়েছে যা একটি বিষয়ের ক্ষেত্রে গবেষণা করতে গিয়ে সম্পূর্ণ অন্য বিষয় আবিষ্কার হয়েছে। একে বলা হলো সেরেন্ডিপিটি। ঘটনাক্রমে কোনো কিছু আবিষ্কার করাকে সেরেন্ডিপিটি বলা হয়।  এমন ঘটনাক্রমে কিছু চিকিৎসাব্যবস্থা ও অষুধ আবিষ্কারের গল্প নিয়ে আজকের রকমারি...

 

ফ্লেমিং অনিচ্ছাকৃতভাবে আবিষ্কার করেন পেনিসিলিন

অ্যান্টিবায়োটিক আবিষ্কার পৃথিবীর অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ আবিষ্কারের একটি। পেনিসিলিন আবিষ্কার ছিল চিকিৎসা জগতের জন্য এক নতুন দিগন্তের সন্ধান। আলেকজান্ডার ফ্লেমিং পেনিসিলিন আবিষ্কার করেছিলেন আকস্মিক এক ঘটনাক্রমে। স্ট্যাফাইলোকক্কাস নামক জীবাণু নিয়ে কাজ করতে গিয়েই তিনি এমন এক ধরনের ছত্রাকের সন্ধান পান, যার জীবাণুনাশক ক্ষমতা রয়েছে। ছত্রাকটির নাম ‘পেনিসিলিয়াম নোটেটাম’। ফ্লেমিং ছিলেন স্কটল্যান্ড নিবাসী চিকিৎসক ও জীবাণুতত্ত্ববিদ। তিনিই সর্বপ্রথম জীবাণুনাশক পেনিসিলিন আবিষ্কার করে খ্যাতিমান হয়ে আছেন। ১৯২৮ সালে তিনি আবিষ্কার করেন বিশেষ এক ধরনের ছত্রাকে জীবনরক্ষাকারী পেনিসিলিনের অস্তিত্ব। মজার বিষয়, আলেকজান্ডার ফ্লেমিং পেনিসিলিন আবিষ্কার করেছিলেন আকস্মিক এক ঘটনাক্রমে। স্ট্যাফাইলোকক্কাস নামক জীবাণু নিয়ে কাজ করতে গিয়েই তিনি এমন এক ধরনের ছত্রাকের সন্ধান পান, যার জীবাণুনাশক ক্ষমতা রয়েছে। ছত্রাকটির নাম পেনিসিলিয়াম নোটেটাম সেন্ট ম্যারিস হাসপাতালের পরীক্ষাগারে ফ্লেমিং পেট্রি ডিশে থাকা স্ট্যাফাইলোকক্কাস জীবাণু নিয়ে গবেষণা করছিলেন। কাজ শেষে অনিচ্ছাকৃতভাবে জানালার ধারে পেট্রি ডিশ রেখে যান। এক মাস ছুটি শেষে যখন কাজে ফিরলেন তখন ফ্লেমিং দেখলেন, স্ট্যাফাইলোকক্কাস ব্যাকটেরিয়ার পেট্রি ডিশে মোল্ড জন্মেছে। যেসব জায়গায় মোল্ড জন্মেছে সেসব জায়গায় স্ট্যাফাইলোকক্কাস ব্যাকটেরিয়া জন্মায়নি। তিনি বুঝতে পারলেন, মোল্ডে এমন একটি পদার্থ রয়েছে যা ব্যাকটেরিয়ার বৃদ্ধিকে রোধ করতে পারে। এই মোল্ডটি ছিল পেনিসিলিয়াম নোটেটাম। আলেকজান্ডার ফ্লেমিং সর্বপ্রথম পেনিসিলিন আবিষ্কার করলেও একে মানবদেহে ব্যবহারের উপযোগী অবস্থায় নিয়ে আসেন দুজন বিজ্ঞানী হাওয়ার্ড ফ্লোরি ও আর্নস্ট চেইন।

 

ইমিপ্রামিনে সুফল পেলেন মনোবিজ্ঞানী রোনাল্ড কুন

ওষুধের সব সাপ্লাই ফিরিয়ে দেওয়ার আগে মনোবিজ্ঞানী কুন সিদ্ধান্ত নেন হাসপাতালে ভীষণ ডিপ্রেশনে থাকা অন্তঃসত্ত্বা একজন নারী রোগীর শরীরে ইমিপ্রামিন প্রয়োগ করবেন।  সফল হলেন এবার সত্যি সত্যি...

ক্লোরপ্রোমাজিনের সঙ্গে গঠনগত মিল রয়েছে ইমিপ্রামিনের। আর এ কারণে এই ওষুধও মনোরোগ-সংক্রান্ত কোনো চিকিৎসায় ব্যবহার করা যায় কি না তা নিয়ে গবেষণা করছিল সুইস ফার্মাসিউটিক্যাল কোম্পানি। মনোবিজ্ঞানী রোনাল্ড কুন মনে করেছিলেন, তিনি সফল হবেন। কিন্তু সফলতা আর ধরা দেয়নি। তিনি কাজ করতেন মুনস্টারলিনজেনের ক্যান্টোনাল মেন্টাল হাসপাতালে। এই বিজ্ঞানী চেয়েছিলেন  ইমিপ্রামিনকে সিজোফ্রেনিয়ার চিকিৎসায় ব্যবহার করতে। এই বিষয়ে গবেষণার প্রধান দায়িত্বে থাকা রবার্ট ডোমেনজোয অনেক চেষ্টার পর দেখলেন, এটি আসলে কাজ করছে না। কুন তখন খুবই মন খারাপ করেন। তবু কুনের মনে একটা আশা জেগে রইল ঠিকই। তিনি মনে মনে ভাবলেন, একই রকম রাসায়নিক গঠন যেহেতু তাই এটি কোনো না কোনো কাজে অবশ্যই আসবে। তাই ওষুধের সব সাপ্লাই ফিরিয়ে দেওয়ার আগে কুন সিদ্ধান্ত নেন হাসপাতালে ভীষণ ডিপ্রেশনে থাকা অন্তঃসত্ত্বা একজন নারী রোগীর শরীরে ইমিপ্রামিন প্রয়োগ করবেন। প্রয়োগ শেষে হাতে হাতে সুফল পেলেন কুন। সেই রোগীর ডিপ্রেশন সত্যি কমে এলো। এই সফলতায় কুন আশান্বিত হলেন। আরও দুজন ডিপ্রেশনে থাকা অন্তঃসত্ত্বা রোগীর শরীরে প্রয়োগ শেষে একই ফল পাওয়া গেল। এরপর চলল ক্লিনিক্যাল ট্রায়াল। সফল হলেন কুন। ওই তিনজনের পর আরও ৪০ জন ডিপ্রেশনে থাকা রোগীর ওপর ইমিপ্রামিন প্রয়োগ করা হয়। ১৯৫৭ সালে ইমিপ্রামিন নিয়ে কুন তার প্রথম গবেষণাপত্র প্রকাশ করেন সুইস মেডিকেল জার্নালে।

 

ক্লোরপ্রোমাজিন

ক্লোরপ্রোমাজিন দিয়ে মানুষকে অজ্ঞান করানো যায় এমন ধারণা থেকেই এই আবিষ্কার। ১৯৫০ সালের ১১ ডিসেম্বর পল চারপেন্টিয়ের ক্লোরপ্রোমাজিন সংশ্লেষণ করেন। ১৯৫১ সালের মে মাসে তৎকালীন ফ্রান্সের একটি স্বনামধন্য ফার্মাসিউটিক্যাল কোম্পানি ক্লোরপ্রোমাজিনকে একটি সম্ভাব্য জেনারেল অ্যানেস্থেটিক হিসেবে  ক্লিনিক্যাল ইনভেস্টিগেশনের উদ্দেশ্যে উন্মোচন করে। কিন্তু গবেষণা শেষে দেখা যায়,  তাদের ধারণা  ভুল ছিল।  ক্লিনিক্যাল ইনভেস্টিগেশন শেষে ঘোষণা করা হয় ক্লোরপ্রোমাজিন মানুষকে অজ্ঞান করতে পারে না। তবে এটি ঘুমের মতো অনুভূতি সৃষ্টি করে এবং আশপাশের বিষয়ের প্রতি অনাগ্রহের সৃষ্টি করে। এর ফলে মনোরোগবিদ্যায় ক্লোরপ্রোমাজিনের ব্যবহার শুরু হয়।

 

হৃদরোগীদের চিকিৎসায় পেসমেকার

প্রযুক্তি যত ছোট, দ্রুত ও স্মার্ট হয়েছে, হৃদরোগীদের জন্য তত উপকার বয়ে এনেছে। সাধারণত অনিয়মিত হৃদস্পন্দন পরিচালনা থেকে পেসমেকার বা ইমপ্লানটেবল ডিভাইস ব্যবহারের ধারণা এসেছিল। আধুনিক চিকিৎসা বিজ্ঞানে এটি ইমপ্লানটেবল কার্ডিয়োভার্টার ডেফিব্রিলেটর নামেই পরিচিত। এটি এমন একটি বৈদ্যুতিব যন্ত্র, যা মানবদেহে এক বিশেষ ধরনের পেসমেকার হিসেবে ব্যবহার করা হয়। মূলত হৃদস্পন্দনের মাত্রা হঠাৎ কমে গেলে যাতে কেউ হৃদরোগে আক্রান্ত না হন, এর জন্য এই পেসমেকার ব্যবহার করা হয়। আমেরিকান চিকিৎক ও প্রকৌশলী উইলসন গ্রেটব্যাচ এই চিকিৎসা পদ্ধতির আবিষ্কারক। তবে তিনি এর সঠিক অর্থ বোঝাতে ব্যর্থ হয়েছিলেন। আমেরিকান এই চিকিৎসাবিজ্ঞানী এমন একটি ডিভাইস আবিষ্কার করতে চেয়েছিলেন, যা হৃদয়ের স্পন্দন রেকর্ড করতে সক্ষম। তবে তিনি এই বিসদৃশ পদ্ধতিটি ভুলভাবে জড়ো করার পর লক্ষ্য করলেন, এটি হৃদস্পন্দনের মতো নড়াচড়া করছে। গ্রেটব্যাচ বুঝতে পেরেছিলেন যে, এটিকে একটি আধুনিক পেসমেকার হিসেবে ব্যবহার করা যেতে পারে, আর তা হবে পূর্ববর্তী মডেলের তুলনায় অনেক ছোট। এরপর আরও দুই বছর পরীক্ষা-নিরীক্ষার পর ১৯৬০ সালে তার তৈরি ইমপ্লানটেবল পেসমেকার চিকিৎসাবিজ্ঞানের অনুমোদন পায় এবং ওই বছরই দ্রুত ডিভাইসটি উৎপাদনে যায়। চিকিৎসাবিজ্ঞানের ইতিহাসে প্রথম পেসমেকার বসানো হয়েছিল ১৯৫৮ সালে; যা প্রায় তিন ঘণ্টা চলেছিল। আধুনিক চিকিৎসা ব্যবস্থায় একটি পেসমেকার মানবদেহে বসালে প্রায় ৮ থেকে ১০ বছর পর্যন্ত স্থায়ী হয়।

 

রং আবিষ্কার করতে গিয়ে সিডেটিভ ডায়াজিপাম আবিষ্কার

লিও স্টার্নবাচ আবিষ্কার করেন ডায়াজিপাম। তিনি আসলে নতুন রং আবিষ্কারের চেষ্টা করছিলেন।  কিন্তু ব্যর্থ হন। এর থেকে তিনি ২০ বছর পর সিডেটিভ ওষুধ ডায়াজিপাম আবিষ্কার করেন...

ডায়াজিপাম সাধারণত ব্যবহার করা হয় দুশ্চিন্তা, নিদ্রাহীনতা, প্রাথমিক অ্যালকোহল ত্যাগ-পরবর্তী জটিলতার চিকিৎসায়। ইন্ট্রাভেনাস ডায়াজিপাম বা লোরাজিপাম স্ট্যাটাস এপিলেপ্টিকাসর প্রথম শ্রেণির চিকিৎসায় ব্যবহৃত হয় ডায়াজিপাম। বিজ্ঞানী লিও স্টার্নবাচ আবিষ্কার করেন ডায়াজিপাম। তিনি আসলে নতুন রং আবিষ্কারের চেষ্টা করছিলেন। কিন্তু ব্যর্থ হন। পরবর্তীতে তিনি এই খারিজ করা রাসায়নিক পদার্থ থেকে ২০ বছর পর সিডেটিভ ওষুধ ডায়াজিপাম আবিষ্কার করেন। মৃগী রোগের চিকিৎসায়ও ব্যবহার করা হয় এই ওষুধ। ডায়াজিপাম মূলত মাতৃত্বকালীন খিঁচুনি বা একলাম্পশিয়ার তাৎক্ষণিক চিকিৎসারূপে ব্যবহার করা হয়। যখন ম্যাগনেশিয়াম সালফেট এবং রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণ করা সম্ভব হয় না। বেঞ্জোডায়াজেপিন জাতকদের মূলত কোনো ব্যথানাশক উপাদান নেই। এদের সাধারণত ব্যথাক্রান্ত কাউকে প্রয়োগ করতে নিষেধ করা হয়। তার পরও বেঞ্জোডায়াজেপিন যেমন ডায়াজেপিনের মাংসপেশির প্রসারণকারী উপাদান থাকায় সেবনের পরামর্শ দেওয়া হয় যাতে ব্যথা দূর হয়। এমনটা সেসব রোগীদের দেওয়া হয় যারা মাংসপেশির সংকোচনজনিত কারণে নড়াচড়ায় অক্ষম মাসল স্পাজম বা ডিসটোনিয়ায় আক্রান্ত। রং আবিষ্কার করতে গিয়ে তৈরি হয় এই ডায়াজিপাম।

 

করোনারি এনজিওগ্রাফি

করোনারি এনজিওগ্রাফি, সহজ করে বলতে গেলে হৃদরোগ নির্ণয় পদ্ধতি। পরীক্ষাটিকে অনেকেই এনজিওগ্রাম নামেই চেনেন। এটি এক ধরনের স্ক্রিনিং পদ্ধতি, যা মানবদেহে ধমনীর রক্তপ্রবাহ পরীক্ষা করে থাকে। এর মাধ্যমে মানবদেহের শিরা বা ধমনী দেখতে এক্সরের মাধ্যমে পরীক্ষা করা হয়। এই পদ্ধতিতে চিকিৎসক শিরা বা ধমনীতে একটি পাতলা, নমনীয় টিউব প্রবেশ করান। সেই টিউবে ক্যামেরার সঙ্গে একটি রঞ্জক ব্যবহার করা হয়। একে মূলত ক্যাথিটার বলা হয়, যা থ্রেডেড করা হয়। বুক, পিঠ, হাত, পায়ের ধমনীর মাধ্যমে প্রবেশ করানো হয়। ক্যাথিটারের মাধ্যমে একটি রঞ্জক অথবা বিসদৃশ উপাদান ইনজেকশন দেওয়া হয় যা এক্সরে চিত্র তৈরি করতে রক্তনালির ভিতরে রক্তকে দৃশ্যমান করে তোলে এবং বাধাপ্রাপ্ত অথবা বৃদ্ধিপ্রাপ্ত হওয়া রক্তনালিগুলোকে দেখায়। প্রক্রিয়াটি সাধারণত ৩০ থেকে ৬০ মিনিট স্থায়ী হয়ে থাকে। কিছু রোগের কারণে যদি হার্টের সমস্যা দেখা দেয় তবে এটি পরীক্ষা করার জন্য এজিওগ্রাফি করা হয়। পৃথিবীর ইতিহাসে প্রথম হার্ট ক্যাথেটারাইজেশন করা হয় ১৯২৯ সালে। চিকিৎসক ভার্নার ফোর্সম্যান নিজেই করেছিলেন। ডায়াগনস্টিক কার্ডিয়াক ক্যাথেটারাইজেশন ১৯৪০ এর দশকের গোড়ার দিকে আন্দ্রে কর্নানড এবং ডিকিনসন রিচার্ডস চালু করেছিলেন। ১৯৬০ দশকের গোড়ার দিকে করোনারি এনজিওগ্রাফি বিজ্ঞানী ম্যাসন সনেসের মাধ্যমে পূর্ণতা পেয়েছিল।

তখন থেকে এই পদ্ধতির মাধ্যমে মানবদেহের শিরা ও ধমনীতে ব্লকেজ উপস্থিত রয়েছে কি না তা পরীক্ষার ব্যবস্থা চালু হয়।

 

মানসিক রোগে লিথিয়াম

মানসিক রোগের চিকিৎসায় ব্যবহৃত হয় লিথিয়াম। মনোরোগ বিশেষজ্ঞ জন কেড প্রথম মানসিক রোগের চিকিৎসায় লিথিয়াম ব্যবহার শুরু করেন। দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের পর জন কেড সুস্থ মানুষ এবং মানসিক রোগে আক্রান্ত রোগীদের কাছ থেকে সংগ্রহ করা মূত্র গিনিপিগের তলপেটে প্রবেশ করান। যেসব গিনিপিগের শরীরে সুস্থ মানুষের মূত্র প্রবেশ করানো হয়েছিল তাদের তুলনায় মানসিক রোগে আক্রান্ত রোগীর মূত্র প্রবেশ করানো গিনিপিগগুলো আগে মারা যায়। গিনিপিগগুলো দ্রুত মারা যাওয়ার জন্য অতিরিক্ত ইউরিক অ্যাসিড দায়ী। এর ফলে তিনি সিদ্ধান্তে উপনীত হলেন, মানসিক রোগে আক্রান্ত রোগীদের রক্তে অতিরিক্ত ইউরিক অ্যাসিড রয়েছে। ইউরিক অ্যাসিডের দ্রাব্যতা বৃদ্ধির জন্য লিথিয়াম দ্রবণ যোগ করেন জন কেড। এটি প্রবেশ করানোর পর তিনি দেখলেন, গিনিপিগগুলো উত্তেজিত হওয়ার পরিবর্তে শান্ত ছিল। নিজের শরীরেও লিথিয়াম প্রয়োগ করেছিলেন জন কেড।

 

নাইট্রাস অক্সাইড

অক্সিজেন এবং কার্বন মনোক্সাইড গ্যাস আলাদা করার জন্য বিখ্যাত জোসেফ প্রিস্টলি। তিনি অনেক গুরুত্বপূর্ণ আবিষ্কার করেন। তার মধ্যে ১৭৭২ সালে তিনি আলাদা করেন নাইট্রাস অক্সাইড। চিকিৎসাবিজ্ঞানে এর ব্যবহার অনেক। নিঃশ্বাসের সময় গ্যাসটি প্রিস্টলির শরীরে প্রবেশ করানোর ফলে তাঁর শরীর শান্ত এবং অসাড় হয়ে যায়। অ্যানেস্থেটিক হিসেবে নাইট্রাস অক্সাইডের কার্যকারিতা অনুধাবন করার পর চিকিৎসাশাস্ত্রে এর ব্যাপক ব্যবহার শুরু হয়। আয়রন ফিলিংয়ে অ্যামোনিয়াম নাইট্রেট গরম করে সেটি থেকে নির্গত হওয়া গ্যাস আলাদা করার চেষ্টা করছিলেন বিজ্ঞানী জোসেফ। এই গ্যাসই নাইট্রাস অক্সাইড। তিনি তখনো জানতেন না আবিষ্কার করে ফেলেছেন অ্যানেস্থেসিয়ায় ব্যবহারের জন্য নতুন এক পদ্ধতির।