Bangladesh Pratidin

ঢাকা, শনিবার, ১০ ডিসেম্বর, ২০১৬

প্রকাশ : মঙ্গলবার, ২১ জুন, ২০১৬ ০০:০০ টা আপলোড : ২০ জুন, ২০১৬ ২২:৫৯
জেএসসি পরীক্ষার প্রস্তুতি : বাংলা প্রথমপত্র
ফারুক আহম্মদ, সহকারী শিক্ষক আদমজী ক্যান্টনমেন্ট পাবলিক স্কুল
জেএসসি পরীক্ষার প্রস্তুতি : বাংলা প্রথমপত্র

দুই বিঘা জমি

    —রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর

     অনুধাবনমূলক প্রশ্ন ও উত্তর

১।    উপেনের জমি কীভাবে হাতছাড়া হলো?

     উত্তর : মিথ্যা মামলার দায়ে উপেনের জমি হাতছাড়া হয়ে গেল।

     জমিদার বাবু তার বাগানের দৈর্ঘ্য-প্রস্থ সমান করার জন্য উপেনের কাছ থেকে দুই বিঘা জমি কিনতে চায়। কিন্তু উপেনের আর কোনো জমি না থাকায় সে জমি বিক্রি করতে রাজি হলো না। তখন জমিদার এই মর্মে মিথ্যা দলিল তৈরি করে যে, উপেন আমার কাছ থেকে টাকা ধার করেছে। কিন্তু সে টাকা শোধ দিতে পারেনি। এই মামলা নিয়ে জমিদার আদালতের আশ্রয় নিলে আদালত জমিদারের পক্ষে রায় দেয়। ফলে উপেনের জমি জমিদার দখল করে নেয়। এভাবেই উপেনের জমি হাতছাড়া হয়ে গেল।

২।    উপেন তার দুই বিঘা জমি বিক্রি করতে রাজি হয়নি কেন?

     উত্তর : বাস্তুভিটার এই দুই বিঘা জমি ছাড়া উপেনের আর কোনো জমি নেই। তাই সে এই জমি বিক্রি করতে রাজি হয়নি।

     জমিদার বাগান করার জন্য উপেনের শেষ সম্বল দুই বিঘা জমিটুকু কিনে নিতে চায়। কিন্তু উপেন দরিদ্র কৃষক। ঋণের বোঝা শোধ করতে গিয়ে তার সব হারিয়েছে। তাই সে বলে, এই দুই বিঘা জমি ছাড়া আমার আর কিছুই নেই। তাছাড়া এই বাস্তুভিটাকে সে জননীর মতো ভালোবাসে। জননী যেমন সন্তানকে আশ্রয় দেয়, তেমনি এই বাস্তুভিটা আমার সাত পুরুষকে আশ্রয় দিয়েছে। তাই উপেন অভাবী হয়েও এই দুই বিঘা জমিটুকু বেচতে রাজি হয়নি।

৩।   আছে বড়জোর মরিবার মতো ঠাঁই— বলতে কী বোঝায়? 

     উত্তর : জমিদার উপেনের শেষ সম্বল দুই বিঘা জমি বাগান করার জন্য কিনে নিতে চাইলে উপেন জমিদারকে উদ্দেশ্য করে উক্তিটি করে।

     উপেন দরিদ্র কৃষক। ঋণ শোধ করতে গিয়ে তার সব সম্পদ হারিয়ে ফেলেছে। এখন বাস্তুভিটা দুই বিঘা জমি ছাড়া তার আর কোনো জমি নেই। এই দুই বিঘা জমিই তার শেষ আশ্রয়স্থল। এই জমিতেই তার শেষ শয্যা রচিত হবে বলে উপেন মনে মনে চিন্তা করে। কিন্তু জমিদার এই দুই বিঘা জমি কিনে নিতে চাইলে উপেন জমিদারকে বলেন, আপনার তো ভূমির অন্ত নেই। আর আমার তো এইটুকুই জমি। মরিবার পর ঠাঁই গোঁজার এই দুই বিঘা জমিই আমার শেষ সম্বল।

৪।    তাই লিখি দিল বিশ্বনিখিল দু-বিঘার পরিবর্তে- ব্যাখ্যা কর।

     উত্তর : উপেন তার দুই বিঘা জমি হারিয়ে সন্ন্যাসীবেশ ধারণ করে দেশে দেশে ঘুরে বেড়ানোর সময় সমগ্র জমির মালিক আজ থেকে উপেন। এই চিন্তা করে আলোচ্য উক্তিটি করে।

     দরিদ্র কৃষক উপেন। তার শেষ সম্বল বাস্তুভিটা দুই বিঘা জমি। সেটাও জমিদার মিথ্যা মামলা দিয়ে কেড়ে নেয়। ফলে উপেনের এখন আর মাথা গোঁজার মতো কোনো ঠাঁই নেই। তাই উপেন বাধ্য হয়ে নিরুদ্দেশের পথে পা বাড়ায়। এসময় উপেন মনের দুঃখ হালকা করার জন্য ভাবে, ভগবান হয়তো চেয়েছেন সে যেন দুই বিঘা জমির মধ্যে বন্দী হয়ে না থাকে। সে জন্য ভগবান উপেনকে পুরো পৃথিবীর মালিক করে ছেড়ে দিল।

৫।    রাজার হস্ত করে সমস্ত কাঙালের ধন চুরি- বলতে কী বোঝানো হয়েছে?

     উত্তর : উক্ত চরণের মাধ্যমে সম্পদশালীরা আরও সম্পদের মালিক হওয়ার জন্য গরিবের সর্বস্ব হরণ করাকে বোঝানো হয়েছে।

     পৃথিবীর প্রত্যেক মানুষের সম্পদের প্রতি লালসা আছে। তবে ধনীদের সম্পদের প্রতি লালসা আরও বেশি। তাদের অনেক সম্পদ থাকলেও তারা আরও বেশি সম্পদের মালিক হতে চায়। এজন্য তারা যে কোনো অনৈতিক কাজ করতেও দ্বিধা করে না। কবিতায় জমিদারের অনেক জমি থাকলেও সে প্রতারণার মাধ্যমে উপেনের শেষ সম্বল দুই বিঘা জমিও দখল করে নেয়। উক্ত চরণের মাধ্যমে জমিদারের লোভ-লালসার দিকটি ফুটে উঠেছে।    

৬।    উপেন কেন তার জমিকে নিলাজ-কুলটা বলেছিল?

     উত্তর : পনেরো-ষোলো বছর পর নিজের হারানো বাস্তুভিটায় ফিরে এসে তার পরিবর্তিত রূপ দেখে উপেন নিজ ভূমিকে নিলাজ-কুলটা বলে অভিহিত করেছিল।

     দুই বিঘা জমি এক সময় উপেনের ছিল। তখন এই জমি উপেনকে অন্নের জোগান দিত। এই জন্য উপেনের কাছে এই জমি জননীর মতো ছিল। বহুদিন পরে আবার ফিরে এসে দেখল সেই জমি জমিদারের ইচ্ছামতো সেজেছে। হরেক রকমের ফুল আর পাতাবাহার গাছে ভরে গেছে সেই জমি। আজ উপেনের জন্য সেই জমির বিন্দুমাত্র মমতা নেই। এ সব কারণে ক্ষোভের বশবর্তী হয়ে উপেন নিজের ভিটেমাটিকে নিলাজ-কুলটা বলে ভর্ত্সনা করেছে।    

৭।    রাজা উপেনের দুই বিঘা জমি কিনে নিতে চেয়েছিল কেন?

উত্তর : রাজা তার বাগান বাড়ি দৈর্ঘ্যে-প্রস্থে সমান করার জন্য উপেনের দুই বিঘা জমি কিনে নিতে চেয়েছিল।

     দরিদ্র কৃষক উপেন অভাব-অনটনে বন্ধক দিয়ে সব জমি হারিয়েছে। বাকি ছিল মাত্র দুই বিঘা জমি। কিন্তু সে জমিও উপেনের থাকেনি। কারণ রাজার বাগানটি দৈর্ঘ্যে-প্রস্থে সমান করার জন্য উপেনের এই জমিটুকু দরকার। তাই রাজা উপেনের শেষ সম্বল দুই বিঘা জমিও কিনে নিতে চায়।  

৮।    ছিলে দেবী, হলে দাসী- বলতে উপেন কী বুঝিয়েছে? অথবা : উপেন কেন জন্মভূমিকে দাসী বলেছেন? 

     উত্তর : উপেনের জমি জমিদারের দখলে আসার পর বেশ পরিবর্তন করায় উপেন নিজ জন্মভূমিকে দেবী থেকে দাসী হওয়ার কথা বলেছেন। দরিদ্র উপেনের দুই বিঘা জমি তার দখলে থাকা অবস্থায় যে রূপ ছিল তা ছিল কল্যাণময়ী। এই জমি থেকে ফল-মূল, শাক-সবজি উৎপাদন করে উপেন ক্ষুধা মেটাত। এই কারণে তিনি এই জমিকে দেবী বলে মানত। কিন্তু সেই জমি জমিদারের দখলে আসার পর অন্যরূপ ধারণ করেছে। যেখানে আগের কোনো চিহ্নই নেই। সম্পূর্ণ অন্য বেশ ধারণ করেছে। তাই উপেন জন্মভূমিকে দাসী বলে আখ্যায়িত করেছে।      

৯।    চোখে আসে জল ভরে- কেন চোখে জল ভরে আসে?

     উত্তর : নিজ গ্রামে পুনরায় ফিরে আসার পর চিরচেনা রূপ দেখে উপেনের চোখে জল চলে আসে।

     জমিদারের কাছে শেষ সম্বল জমিটুকু হারিয়ে উপেন সন্ন্যাসীবেশ ধারণ করে ঘুরে বেড়ায় দেশ-দেশান্তরে। পনেরো-ষোলো বছর পর উপেনের নিজ গ্রামে ফিরে আসার ইচ্ছা হয়। তাই নিজ গ্রামে ফিরে এসে উপেন যেন আবার প্রাণ ফিরে পায়। এখানকার চিরচেনা অবারিত মাঠ, নদীর তীর, স্নিগ্ধ বাতাস, গাছগাছালি, রাখালের খেলাঘর, গ্রাম্য বধূর জল নিয়ে আসা— এসব দৃশ্য দেখে আবেগে তার চোখে জল চলে আসে।

১০।   তুমি মহারাজ সাধু হলে আজ, আমি আজ চোর বটে- ব্যাখ্যা কর?

     উত্তর : পনেরো-ষোলো বছর পর নিজ ভিটেতে ফিরে কুড়িয়ে পাওয়া আমের কারণে চোর হিসেবে চিহ্নিত হলে উপেন আলোচ্য উক্তিটি করে।

     উপেন সর্বস্ব হারিয়ে সন্ন্যাসীবেশ ধারণ করে দেশান্তরী হয়। একদিন সে নিজ গ্রামে ফিরে আসে। নিজ ভিটেতে গিয়ে আম গাছটি দেখতেই তার ছোটবেলার কথা মনে পড়ল। হঠাৎ বাতাসে দুটি পাকা আম পড়লে উপেন মায়ের দান মনে করে কুড়িয়ে নেয়। এমন সময় মালি এসে উপেনকে জমিদারের কাছে ধরে নিয়ে যায়। জমিদার সন্ন্যাসীবেশ ধারণকারী উপেনকে চোর হিসেবে আখ্যায়িত করলে উপেন মনের দুঃখে উক্তিটি করে।

এই পাতার আরো খবর
up-arrow