Bangladesh Pratidin

ঢাকা, রবিবার, ১১ ডিসেম্বর, ২০১৬

প্রকাশ : শনিবার, ৪ জুন, ২০১৬ ০০:০০ টা আপলোড : ৩ জুন, ২০১৬ ২২:৩১
পেনশনের টাকায় নাসির স্যারের শিশুপার্ক
পেনশনের টাকায় নাসির স্যারের শিশুপার্ক
শিশুদের কাছে বেশ জনপ্রিয় নাসির স্যার। তার শিশুপার্কে রোজ ভিড় করে গ্রামের শিশুরা

যারা আপন আলোয় সমাজ এবং সমাজের মানুষকে উদ্ভাসিত করেন তারাই আলোকিত মানুষ। এমনই একজন মানুষ কুষ্টিয়ার কুমারখালী উপজেলার নাসির উদ্দিন।

এলাকার শিশু-কিশোরের কাছে তো বটেই গোটা এলাকাবাসীর কাছে নিজেকে বিলিয়ে দিয়েই তিনি যেন আনন্দ পান। নাসির উদ্দিন নিজের অবসর ভাতার টাকায় নিজ বাড়ির আঙিনায় গড়ে তুলেছেন শিশুপার্ক। সেখানে বিনা পয়সায় নির্মল আনন্দ পায় অজো পল্লীর শিশুরা। বাড়ির চারপাশে আছে তিনশো প্রজাতির ফলদ ও ওষুধি বৃক্ষ। এর উপকারভোগীও গ্রামের সাধারণ মানুষ। এ ছাড়া তার বাড়িতে একটি পাঠাগারও আছে, যেখানে সব বয়সী মানুষ বিনামূল্যে বই পড়তে পারেন। কুষ্টিয়া থেকে লিখেছেন— জহুরুল ইসলাম

 

গড়াই বিধৌত কুমারখালীর কয়া গ্রামের মানুষ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের অবসরপ্রাপ্ত শিক্ষক নাসির উদ্দিন। এলাকার সবার কাছে তিনি নাসির স্যার নামেই বেশি পরিচিত। নাসির স্যারের ভাষায়, ১৯৫৮ সালে ছাত্রাবস্থায় বাম রাজনীতিতে জড়িয়ে পড়ি। সে সময়ই সমাজের পিছিয়েপড়া মানুষদের ভাগ্য উন্নয়নের চিন্তা মনে বাসা বাঁধে। এর পর ১৯৭২-৭৩ সালে সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষক হিসেবে প্রশিক্ষণ নেওয়ার সময় শিশুদের প্রতি অনুরক্ত হই। কিন্তু সরকারি চাকরিতে থেকে আমার সব ইচ্ছা ও চিন্তা-চেতনার বাস্তবায়ন সম্ভব হয়নি। অবশেষে ২০০৭ সালে চাকরি থেকে অবসর নেওয়ার পর আমি পুরোদমে কাজে নেমে পড়ি। আমার দুই ছেলে ও এক মেয়ে। তাদের বিয়ে হয়ে গেছে। সংসারের সব ভার এখন ছেলেদের কাঁধে। এখন আর কোনো পিছুটান নেই। এখন তাই আমার অবসর জীবনের পুরোটা সময় ব্যয় করার চেষ্টা করছি আমার লালিত স্বপ্ন বাস্তবায়নে। নাসির উদ্দিনের নিজ গ্রাম কয়া বা আশপাশের কোনো গ্রামেই শিশুদের চিত্ত-বিনোদন বা খেলাধুলার তেমন সুযোগ নেই। এই চিন্তা থেকেই তিনি অবসর ভাতার টাকায় নিজের বাড়ির আঙিনায় গড়ে তুলেছেন মিনি শিশুপার্ক। তার পার্কে খেলাধুলার জন্য আহামরি ব্যবস্থা না থাকলেও নাগরদোলা বা দোলনার মতো যে উপকরণ আছে তাই-ই এখানকার শিশুদের কাছে অনেক কিছু। শুক্রবার সকাল হলেই ওই পার্ক কচিকাঁচা শিশুদের কলকাকলিতে মুখরিত হয়ে ওঠে। কয়াসহ আশপাশের গ্রামগুলো থেকে অভিভাকদের হাত ধরে সেখানে এসে জড়ো হয় শত শত ছেলেমেয়ে। সকাল থেকে দুপুর পর্যন্ত তারা মেতে থাকে খেলাধুলা আর হৈ-হুল্লোড়ে। আমরা জানি শহরের সরকারি-বেসরকারি শিশু পার্কে ঢুকতে টিকিট লাগে। আবার সেখানে খেলাধুলার সামগ্রী ব্যবহার করতে হলে তার জন্যও আলাদা অর্থ দিতে হয়। কিন্তু নাসির স্যারের শিশুপার্কে এসব ঝামেলা নেই। এখানে বিনা পয়সায় পাওয়া যায় সব বিনোদন।

নাসির স্যার মিনি শিশুপার্কের পাশাপাশি বাড়িতে একটি লাইব্রেরিও গড়ে তুলেছেন। এই লাইব্রেরিতে সব বয়সী মানুষের পড়ার জন্য রয়েছে কয়েকশ’ বই। শুক্রবার সকালে কয়েকশ’ শিশু আসলেও সবাই একযোগে খেলার সুযোগ পায় না ছোট্ট এই পার্কে। সিরিয়াল করে তাদের খেলার সুযোগ করে দেওয়া হয়। তবে এর জন্য শিশুদের মন খারাপের কিছু নেই। কারণ যতক্ষণ তারা খেলার সুযোগ না পাচ্ছে ততক্ষণ তারা লাইব্রেবির সম্ভার থেকে কবিতা, ছড়া ও ছবির শিশুতোষ বই পড়ে সময় কাটায়। শুধু শিশুরা নয়, নাসির স্যারের লাইব্রেরি থেকে উপকৃত হচ্ছেন বড়রাও। প্রতিদিন বিকালে কাজ শেষে গ্রামের স্বল্প শিক্ষিত মানুষ ভিড় করেন এই লাইব্রেরিতে। তারা বিনামূল্যে এখানে বিভিন্ন ধরনের বই ও পত্রপত্রিকা পড়েন। আবার অনেক অশিক্ষিত মানুষকেও পড়ালেখা শিখিয়েছেন নাসির উদ্দিন। লাইব্রেরিতে কথা হয় আবদুল মণ্ডল নামের একজনের সঙ্গে। তিনি বলেন, আগে গণ্ড মূর্খ ছিলাম, নাসির স্যারের কাছে এসে লেখাপড়া শিখেছি। এখন বই, পত্রপত্রিকা সব পড়তে পারি। পাশাপাশি বয়স্কদের অক্ষরজ্ঞান দিতেও কাজ করে চলেছেন নাসির স্যার। এর জন্য তাদের স্যারের বাড়ি আসতে হয় না। স্যার ঝুলিতে করে বই নিয়ে হাজির হন তাদের বাড়িতে বাড়িতে।

শিশুপার্ক ও লাইব্রেরির পাশাপাশি তার নিজের বাড়ির চারপাশে নানা জাতের গাছ লাগিয়ে ভরে তুলেছেন। এই বাগানে একদিকে যেমন আছে আম, জাম, কাঁঠাল, আমড়ার মতো ফলদ গাছ, তেমনি আছে যষ্ঠীমধু, ভীমরাজ, কুলেখড়া, রসীকমালি, চন্দ্রা, অর্জুনসহ নানা জাতের ওষুধি গাছ। বৃক্ষপ্রেমী নাসির উদ্দিন জানান, তার এই বনবীথিতে ৩০০ প্রজাতির ফল ও ওষুধি গাছ রয়েছে। এসব গাছের সুফলভোগীও গ্রামের সব শ্রেণির মানুষ। বাগানের কোনো ফল বিক্রি করে না। পার্কে আসা শিশুরা খেলার পাশাপাশি বাগানের ফল খেতে পায় বিনা পয়সায়। এ ছাড়া পাড়া-প্রতিবেশীর মধ্যেও ফল বিলিয়ে দেন তিনি। এখন এলাকার মানুষের কাছে একটি আদর্শের নাম নাসির স্যার। পুরো গ্রাম আজ তার আলোতেই আলোকিত। দিনভর এসব কাজে মগ্ন থেকেই যেন নাসির উদ্দিনের সুখ। বিনিময়ে কোনো কিছুই চাওয়া-পাওয়ার নেই এই সদালাপী মানুষটির।

দেশের প্রতিটি গ্রামে যদি একজন করে নাসির স্যারের জন্ম হতো তাহলে হয়তো গ্রামের চেহারায় বদলে যেত। আর তা হলে সমাজের পিছিয়ে পড়া মানুষদের আলোকিত জীবনের পথ দেখানো সম্ভব হবে।

সর্বশেষ খবর
সর্বাধিক পঠিত
এই পাতার আরো খবর
up-arrow