Bangladesh Pratidin || Highest Circulated Newspaper
শিরোনাম
প্রকাশ : ১৮ মে, ২০১৯ ২০:৫৩

দাবি মেনে নেয়ার আশ্বাসে আন্দোলন স্থগিত মমেক শিক্ষার্থীদের

ময়মনসিংহ প্রতিনিধি

দাবি মেনে নেয়ার আশ্বাসে আন্দোলন স্থগিত মমেক শিক্ষার্থীদের

ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজের (মমেক) ম-৫৫ ব্যাচের এক শিক্ষার্থীকে শ্লীলতাহানির ঘটনায় দ্বিতীয় দিনের মত কলেজ ফটকে তালা ঝুলিয়ে বিক্ষোভ করেছেন শিক্ষার্থীরা। সাধারণ শিক্ষার্থীদের সাথে দ্বিতীয় দিনে ইন্টার্ন চিকিৎসকরাও যোগ দেন। এসময় কলেজ প্রশাসনের কাছে ১১ দফা দাবি তুলে ধরেন তারা। 

শনিবার বেলা ১১টা থেকে টানা পাঁচ ঘণ্টাচলে এ বিক্ষোভ। পরে বিকাল চারটার দিকে ১১ দফা দাবি মেনে নেবার আশ্বাস দিলে আন্দোলন স্থগিত করেন শিক্ষার্থীরা।

বিক্ষোভ চলাকালে কলেজের কনফারেন্স কক্ষে অধ্যক্ষ ডা. আনোয়ার হোসেনের সভাপতিত্বে বৈঠকে হাসপাতালের উপ-পরিচালক ডা. লক্ষী নারায়ণ মজুমদার, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (ডিএসবি) জয়িতা শিল্পী, সদর সার্কেলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার আল আমিন, কলেজের উপাধ্যক্ষ প্রফেসর আবুল হোসেন, ছাত্র প্রতিনিধি ও ইন্টার্ণ প্রতিনিধি এবং কর্মচারী নেতৃবৃন্দকে নিয়ে বৈঠক হয়। 

শিক্ষার্থীদের ১১দফা দাবিগুলোর মধ্যে রয়েছে- বহিরাগত ওই যুবককে দ্রুত গ্রেফতার করে আইনের আওতায় আনা, ছাত্রী হোস্টেলের গেইট সংস্কার এবং গার্ডদের রুম গেইটের বাহিরে করতে হবে, সার্বক্ষণিক ইউনিফর্ম পরিহিত নিরাপত্তাকর্মী নিয়োজিত থাকতে হবে, ছাত্র ও ছাত্রী হোস্টেলে বর্তমান দায়িত্বপ্রাপ্ত হোস্টেল সুপাররা শতভাগ ব্যর্থ হওয়ায় তাদের প্রত্যাহার করা, ছাত্রী হোস্টেল গেইট থেকে কলেজের প্রধান ফটক এবং ছাত্র হোস্টেলে সিসি ক্যামেরা স্থাপন, ছাত্র এবং ছাত্রী হোস্টেলের সীমানা প্রাচীর কমপক্ষে দশ ফুট উঁচু করা, সকল হোস্টেলে পর্যাপ্ত আলোর ব্যবস্থা এবং ছাত্রী হোস্টেলের ভেতর থেকে নির্মাণ কর্মীদের আবাসন স্থানান্তর, বঙ্গবন্ধু উদ্যানে বহিরাগত অনুপ্রবেশ বন্ধ করা, নিরাপত্তার জন্য শিক্ষক-ছাত্র-কর্মচারীদের নিয়ে মনিটরিং কমিটি থাকা, হোস্টেলের গেট এবং ইনমান সংলগ্ন গেটে ২৪ ঘণ্টা নিরাপত্তাকর্মী উপস্থিত নিশ্চিত করা। সেই সাথে অফিস সময়ের পর গেট দিয়ে ঢুকতে হলে আইডি কার্ড প্রদর্শন করা এবং আত্মীয় অথবা অন্য কাউকে হোস্টেলের ভিতরে নিয়ে গেলে নিরাপত্তা কর্মীদের খাতায় লিপিবদ্ধ কর, ডেন্টাল ইউনিটের সামনে ও পেছনের দুটি ডাস্টবিন অপসারণ এবং ডেন্টাল ইউনিটের সামনে ভবন নির্মাণের কাজ খুব দ্রুত শেষ করা।

অতিরিক্ত পুলিশ সুপার আল-আমিন জানান, ৩০ জুনের মধ্যে মেয়েদের হলের সীমানা প্রাচীরের উপর কাটাতারের দেয়া হবে, ইতিমধ্যে আনছার সদস্য মোতায়েন করা হয়েছে। এছাড়াও পুলিশি টহল জোরদার করা হয়েছে।

বর্তমানে পরিস্থিতি শান্ত রয়েছে জানিয়ে কলেজ অধ্যক্ষ ডা. আনোয়ার হোসেন বলেন, গত বৃহস্পতিবারই আমরা শিক্ষার্থীদের অনেক দাবি মেনে নিয়েছি। বাকীগুলোও খুব দ্রুত সময়ের মধ্যে কার্যকর করা হবে। শিক্ষার্থীরা সবাই রুমে ফিরে গেছে। 

বিডি-প্রতিদিন/১৮ মে, ২০১৯/মাহবুব


আপনার মন্তব্য