শিরোনাম
প্রকাশ : সোমবার, ২০ জানুয়ারি, ২০২০ ০০:০০ টা
আপলোড : ১৯ জানুয়ারি, ২০২০ ২২:৫৭

গলফ নিউজকে শেখ হাসিনা

নাগরিকত্ব আইন ভারতের অভ্যন্তরীণ বিষয়, তবে প্রয়োজন ছিল না

প্রতিদিন ডেস্ক

নাগরিকত্ব আইন ভারতের অভ্যন্তরীণ বিষয়, তবে প্রয়োজন ছিল না

নাগরিকত্ব আইন সংশোধন ভারতের অভ্যন্তরীণ বিষয় হলেও এর কোনো প্রয়োজন ছিল না বলে মন্তব্য করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। সম্প্রতি আমিরাত সফর করে আসা শেখ হাসিনা গালফ নিউজকে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে এ মন্তব্য করেন। মধ্যপ্রাচ্যের এ সংবাদপত্রটির অনলাইন সংস্করণে শনিবার সাক্ষাৎকারটি প্রকাশিত হয়েছে। প্রধানমন্ত্রী এতে রোহিঙ্গা সংকটসহ নানা বিষয়ে কথা বলেন।

ভারতের বিতর্কিত আইনটি নিয়ে শেখ হাসিনা বলেন, ‘আমি বুঝতে পারছি না, কেন এটা করা হলো। এর কোনো প্রয়োজন ছিল না।’ ভারত সরকার সম্প্রতি নাগরিকত্ব আইন (সিএএ) সংশোধন করে বাংলাদেশ, পাকিস্তান ও আফগানিস্তানের হিন্দুসহ কয়েকটি ধর্মাবলম্বীদের তাদের দেশের নাগরিকত্ব পাওয়ার সুযোগ করে দিয়েছে। এই সংশোধনের কারণ ব্যাখ্যা করে ভারত সরকারের পক্ষ থেকে বলা হচ্ছে, হিন্দুসহ এসব ধর্মীয় গোষ্ঠীর সদস্যরা বাংলাদেশ, পাকিস্তান ও আফগানিস্তানে বিভিন্ন সময়ে নিপীড়নের শিকার হয়েছে। তার আগে আসামে নাগরিকপঞ্জি প্রণয়ন করা হয়, যাতে ভারতের বাংলাদেশ লাগোয়া রাজ্যটিতে নাগরিকের তালিকা থেকে বাদ পড়েন বহু মানুষ। আসামের অনেকের অভিযোগ, বাংলাদেশ থেকে গিয়ে অনেকে ওই রাজ্যে আবাস গড়েছেন। নাগরিকত্ব আইন সংশোধন ও নাগরিকপঞ্জি নিয়ে ভারতে ব্যাপক ক্ষোভ-বিক্ষোভ চলছে। বিভিন্ন রাজ্য সরকারের বিরোধিতায় বেকায়কায় রয়েছে নরেন্দ্র মোদির নেতৃত্বাধীন কেন্দ্রীয় সরকার। বাংলাদেশে ১ কোটি ৬০ লাখ হিন্দু (মোট জনসংখ্যার ১০.৭ শতাংশ) থাকার তথ্য তুলে ধরে শেখ হাসিনা ধর্মীয় নিপীড়নের শিকার হয়ে বাংলাদেশিদের ভারতে পাড়ি দেওয়ার বিষয়টি নাকচ করেন। নাগরিকপঞ্জি প্রকাশের পর ভারত থেকেও বাংলাদেশে কেউ আসছে না জানালেও তিনি বলেন, ‘তবে ভারতের মধ্যেই মানুষকে অনেক সমস্যা পোহাতে হচ্ছে।’ এ নিয়ে বাংলাদেশের অবস্থান ব্যাখ্যা করে শেখ হাসিনা বলেন, ‘বাংলাদেশ এটাই বলে আসছে যে, নাগরিকত্ব সংশোধন আইন কিংবা নাগরিকপঞ্জি ভারতের অভ্যন্তরীণ বিষয়। ভারত সরকারও বলে আসছে। গত বছরের অক্টোবরে আমার নয়াদিল্লি সফরের সময়ও নরেন্দ্র মোদি আমাকে আশ্বস্ত করেছেন যে, এটা তাদের অভ্যন্তরীণ বিষয়।’ বাংলাদেশ-ভারত দ্বিপক্ষীয় সম্পর্ক এখন সর্বোচ্চ মাত্রায় আছে জানিয়ে শেখ হাসিনা বলেন, এটা নানা ক্ষেত্রে আরও প্রসারিত হচ্ছে। সাক্ষাৎকারে রোহিঙ্গা সংকট নিয়ে উদ্বেগ জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, এই সমস্যার শুরুটা যেহেতু মিয়ানমারে, সেহেতু তাদেরই সমাধান করতে হবে। মিয়ানমারে নিপীড়নের শিকার হয়ে ১১ লাখের বেশি রোহিঙ্গা মুসলমান বাংলাদেশে আশ্রয় নিয়ে আছে। তাদের ফেরতের উদ্যোগ নেওয়া হলেও নিরাপত্তা নিয়ে আশঙ্কা থেকে তারা ফিরতে চাইছে না। প্রত্যাবাসনের উপযোগী পরিবেশ তৈরিতে মিয়ানমারের ভূমিকা নিয়ে প্রশ্ন তোলেন শেখ হাসিনা। তিনি বলেন, রোহিঙ্গা সংকটের অবসান না হলে তা আঞ্চলিক নিরাপত্তা ও স্থিতিশীলতাকে হুমকির মুখে ঠেলে দেবে। বাংলাদেশ কয়লা বিদ্যুতের দিকে মনোযোগ বাড়ালেও এক্ষেত্রে পরিবেশের সুরক্ষার বিষয়টি গুরুত্বের সঙ্গে দেখা হচ্ছে বলে জানান শেখ হাসিনা। তিনি বলেন, বিদ্যুৎ উৎপাদনে বাংলাদেশ এতদিন গ্যাসের ওপর নির্ভর করত। কিন্তু গ্যাস ফুরিয়ে আসায় উন্নয়নের জন্য বিদ্যুৎ উৎপাদন বাড়াতে এখন কয়লাসহ অন্য উৎসের দিকে নজর দিতে হচ্ছে। বিশাল জনসংখ্যার দেশে প্রাকৃতিক সম্পদের ওপর চাপ বাড়ার বিষয়টি তুলে ধরেই সেই চ্যালেঞ্জ মোকাবিলা করে কীভাবে উন্নয়ন করে যাচ্ছেন, তা-ও গালফ নিউজকে তুলে ধরেন বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী।

বৈরী পরিবেশে আন্দোলন করে গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠা করেছি : জাতীয় সংসদে শোক প্রস্তাবের ওপর আলোচনায় অংশ নিয়ে সংসদ নেতা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, বৈরী পরিবেশে আন্দোলন-সংগ্রামের মধ্য দিয়ে আমরা গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠা করেছি এবং ধারাবাহিকভাবে সরকার পরিচালনা করে দেশকে এগিয়ে নিয়ে যাচ্ছি। তিনি বলেন, বাংলাদেশ আজ এগিয়ে যাচ্ছে আওয়ামী লীগ সরকার ক্ষমতায় আছে বলেই। কিন্তু আওয়ামী লীগের দুঃসময়ে বিশেষ করে পঁচাত্তরের পর যেসব ছাত্রনেতা বিরাট অবদান রেখে গেছেন, তারা চলে (মারা) যাচ্ছেন। আমার হাতে গড়া ছাত্রনেতারা এভাবে চলে যাচ্ছেন, এটা সত্যি দুঃখজনক। স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরীর সভাপতিত্বে সংসদ অধিবেশনে গতকালের বৈঠকে চলতি সংসদের এমপি বীর মুক্তিযোদ্ধা আবদুল মান্নানের মৃত্যুতে আনীত শোক প্রস্তাবের ওপর আলোচনায় অংশ নিয়ে তিনি এসব কথা বলেন। আলোচনায় আরও অংশ নেন সরকারি দলের শেখ ফজলুল করিম সেলিম, তোফায়েল আহমেদ, মোহাম্মদ নাসিম, বেগম মতিয়া চৌধুরী, কৃষিমন্ত্রী আবদুর রাজ্জাক, শাজাহান খান, গৃহায়ণ ও গণপূর্ত মন্ত্রী শ ম রেজাউল করিম, নৌপরিবহন প্রতিমন্ত্রী খালিদ মাহমুদ চৌধুরী, তথ্যপ্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনায়েদ আহমদ পলক, ঐক্যফ্রন্টের সুলতান মোহাম্মদ মনসুর আহমদ, জাতীয় পাটির মসিউর রহমান রাঙ্গা, পীর ফজলুর রহমান মিসবাহ, সরকারি দলের মহীউদ্দীন খান আলমগীর, উপাধ্যক্ষ আবদুস শহীদ, মৃণালকান্তি দাস, মোসলেম উদ্দিন, নজরুল ইসলাম বাবু, আনোয়ার আবেদীন খান, তাজুল ইসলাম প্রমুখ। আলোচনার পর সর্বসম্মতভাবে শোক প্রস্তাবটি গৃহীত হয়। এরপর দাঁড়িয়ে এক মিনিট নীরবতার পর মরহুমের রুহের মাগফিরাত কামনা করে দোয়া ও মোনাজাত করা হয়। এরপর অধিবেশন মুলতবি করা হয়। আওয়ামী লীগের সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক আবদুল মান্নানের স্মৃতিচারণা করতে গিয়ে প্রধানমন্ত্রী আবেগাপ্লুত হয়ে বলেন, ছাত্রজীবন থেকেই বিরোধী আন্দোলন, এরশাদবিরোধী আন্দোলন, খালেদাবিরোধী আন্দোলনে তিনি বলিষ্ঠ ভূমিকা রেখেছেন। তিনি আমাদের বিভিন্ন সংগঠনের সঙ্গে জড়িত ছিলেন। অত্যন্ত দক্ষ, মেধাবী ছিলেন। আমাদের প্রচার সম্পাদক থাকার সময় প্রতিদিন লিফলেট বিবৃতি লেখাতাম তাকে দিয়ে। তিনি চমৎকারভাবে সেগুলো লিখতেন। যখন যে কাজ দিয়েছি খুবই দক্ষতার সঙ্গে সেগুলো করতে পেরেছেন। তিনি বলেন, পরপর তিনজন সংসদ সদস্য চলে গেলেন। এরা যদি চোখের সামনে চলে যান সত্যিই দুঃখজনক। এভাবে বিভিন্ন নেতার মৃত্যুবরণ হলে দেশের জন্য ক্ষতিকারক, যদিও মৃত্যু অবধারিত। জন্মিলে মরিতে হবে। তিনি এভাবে চলে যাবেন সত্যিই খুব কষ্টকর। আজ তার শোকসন্তপ্ত পরিবারের প্রতি গভীর সমবেদনা জানাচ্ছি। আল্লাহর কাছে দোয়া করি তাকে যেন বেহেশত নসিব করেন। প্রধানমন্ত্রী বলেন, আবদুল মান্নান পরপর তিনবার সংসদ সদস্য ছিলেন। ঠিক মৃত্যুর দুই দিন আগেই তার সঙ্গে আমার অনেক কথা হয়েছে। কেন্দ্রীয় কমিটিতে আসতে না পারায় তার মনে একটু দুঃখ ছিল। আমি বলেছিলাম তুমি আমাদের দলে আছো এবং থাকবে। তোমাকে তো আমি মনোনয়ন দিয়েছি। তুমি সংসদ সদস্য হয়েছো। আমি বললাম, তোমার শরীরটা মনে হয় খারাপ। তুমি চিকিৎসা নাও। হাসপাতালে ভর্তি হও। ঠিক তার পরপরই তিনি হাসপাতালে ভর্তি হলেন। আমি হাসপাতালে ডাক্তারের সঙ্গে কথা বলতাম। যেদিন তিনি মারা গেলেন সেদিন রাত ৯টার সময় আমি ডাক্তারের সঙ্গে কথা বললাম। সেদিনই ডাক্তার আমাকে বললেন, আপা তার অবস্থা কিন্তু ভালো না। আমরা কিছু করতে পারব না। অবস্থা এমন হয়ে গেছে তাকে যদি বাইরে পাঠাতে পারি, কিন্তু বাইরে পাঠানোর মতো অবস্থাও তার নেই। পরদিন সকালবেলায় তার মৃত্যুর খবর পেলাম। তিনি বলেন, তিনি বগুড়ায় একটা বৈরী পরিবেশে রাজনীতি করেছেন। বিশেষ করে বগুড়ায় নির্বাচনে জেতা কঠিন ছিল। যে কারণে আমি বারবার ওই এলাকায় গিয়েছি। নদী ভাঙন থেকে শুরু করে রাস্তাঘাটসহ অনেক উন্নয়নকাজ এলাকায় করা হয়েছে। আমরা যখন উন্নয়ন করি তখন সব জায়গায় সমানভাবেই করি। জায়গার সঙ্গে আমাদের কোনো বৈরিতা নেই। সারা বাংলাদেশে আমরা উন্নয়ন করি। তিনি যখনই যে কাজ নিয়ে এসেছেন সে কাজ করে দিয়েছি। প্রধানমন্ত্রী বলেন, আমাদের হাতে গড়া ছাত্রনেতারা ভবিষ্যতে নেতৃত্ব দেবে। আমরা যখন থাকব না তখন দেশ ও দলকে এগিয়ে নিয়ে যাবে।


আপনার মন্তব্য

এই বিভাগের আরও খবর