শিরোনাম
প্রকাশ : বুধবার, ২৬ ফেব্রুয়ারি, ২০২০ ০০:০০ টা
আপলোড : ২৫ ফেব্রুয়ারি, ২০২০ ২৩:১৪

করোনাভাইরাস

আতঙ্কে যাত্রী কমেছে সব ফ্লাইটে ফেরত বেড়েছে সিঙ্গাপুর থেকে

বিশ্বে আক্রান্ত ৭৯ হাজার ৩৩১, মৃত্যু ২ হাজার ৫৯৫ ইরানের উপ-স্বাস্থ্যমন্ত্রীও আক্রান্ত

নিজস্ব প্রতিবেদক

আতঙ্কে যাত্রী কমেছে সব ফ্লাইটে ফেরত বেড়েছে সিঙ্গাপুর থেকে

চীনের উহান থেকে করোনাভাইরাসে সৃষ্ট রোগ কভিড-১৯ ছড়িয়ে পড়ায় বিদেশ ভ্রমণে আগ্রহ কমেছে সব দেশের নাগরিকের। বিশ্বের ২৯টি দেশে ছড়িয়েছে প্রাণঘাতী এ ভাইরাস। এতে সারা বিশ্বের বিমান পরিবহন ব্যবসায় প্রায় তিন হাজার কোটি মার্কিন ডলার ক্ষতি হয়েছে বলে জানিয়েছে আন্তর্জাতিক বিমান পরিবহন সংস্থা (আইএটিএ)। আইএটিএ সূত্রে জানা যায়, সব খাতের মতো বিমান পরিবহন খাতও পড়েছে বড় ধরনের ক্ষতির মধ্যে। এতে যাত্রী সংকট আর বিভিন্ন দেশে বিমান যোগাযোগ বন্ধের কারণে ক্ষতির মুখে পড়ছে বিমান

 পরিবহন সংস্থাগুলো। এরই মধ্যে করোনাভাইরাসের কারণে অস্ট্রেলিয়ান এয়ারলাইনস ফেব্রুয়ারি ও মার্চে ৯ কোটি মার্কিন ডলার ক্ষতির আশঙ্কা করছে। কমতে শুরু করেছে অনেক বিমান কোম্পানির শেয়ারের দাম। এটিকে গত এক দশকে ভয়াবহ বিপর্যয় হিসেবে উল্লেখ করা হয়েছে।

করোনাভাইরাসের কারণে আগামী তিন মাসের জন্য সব ধরনের ফ্লাইট সাময়িক বন্ধ ঘোষণা করেছে সিঙ্গাপুর এয়ারলাইনস। এতে কাক্সিক্ষত যাত্রী না পাওয়া এবং করোনা ঝুঁকির বিষয়টি উল্লেখ করা হয়। বিশেষ করে এশিয়ার দেশগুলো এবং ফ্রাঙ্কফুর্ট, জাকার্তা, লন্ডন, লস অ্যাঞ্জেলেস, মুম্বাই, প্যারিস, সিউল, সিডনি ও টোকিওকে সবচেয়ে বেশি ঝুঁকিপূর্ণ বলা হয়।

সরকারের রোগতত্ত্ব, রোগ নিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা প্রতিষ্ঠানের (আইইডিসিআর) পক্ষ থেকে অনাবশ্যক ভ্রমণ এড়ানোর পরামর্শ দেওয়া হয়েছে। এতে যাত্রী কমে যাওয়ায় লোকসানের মুখে পড়ছে এয়ারলাইনসগুলো। সিঙ্গাপুরে আক্রান্ত বাড়ায় প্রবাসী বাংলাদেশিরা সিঙ্গাপুর ছাড়তে শুরু করেছে। দেশে করোনাভাইরাস পরিস্থিতি সিঙ্গাপুরের চেয়ে ভালো হওয়ায় অনেকেই ফিরে আসতে শুরু করেছেন। সিঙ্গাপুর প্রবাসী সেলিম মিয়া বলেন, ‘সিঙ্গাপুরে পাঁচ বাংলাদেশি করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হওয়ায় বাংলাদেশি প্রবাসীদের মধ্যে আতঙ্ক তৈরি হয়েছে। আমাদের বন্ধুদের অনেকেই দেশে ফিরে গেছেন। আমিও পরিকল্পনা করছি দেশে ফেরার। পরিস্থিতি স্বাভাবিক না হওয়া পর্যন্ত সিঙ্গাপুরে আসব না।’ বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা সূত্রে জানা যায়, গতকাল পর্যন্ত বিশ্বে কভিড-১৯ রোগে আক্রান্ত হয়েছেন ৭৯ হাজার ৩৩১ জন। গত ২৪ ঘণ্টায় নতুন আক্রান্ত হয়েছেন ৭১৫ জন। মারা গেছেন ২ হাজার ৫৯৫ জন।

ভাইরাস শনাক্তে ৫০০ কিটস দিল চীন : স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের সভাকক্ষে স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেকের কাছে চীনের রাষ্ট্রদূত লি জিমিং ৫০০ ভাইরাস শনাক্তকরণ টেস্টিং কিট তুলে দেন। বর্তমানে দেশে কিট প্রায় ২ হাজারের মতো রয়েছে জানিয়ে স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, ‘চীন আরও ৫০০ কিট আমাদের দিয়েছে। এখনকার জন্য এই কিটস-ই যথেষ্ট, এ ছাড়া আরও কিট পাইপলাইনে আছে। আমরা এ পর্যন্ত ৭৯ জনের করোনাভাইরাস শনাক্তকরণ পরীক্ষা করেছি।’

ইরানের মন্ত্রী-এমপির করোনাভাইরাস : ইরানের উপ-স্বাস্থ্যমন্ত্রী ও একজন এমপির নভেল করোনাভাইরাস ধরা পড়েছে। মধ্যপ্রাচ্যের দেশটিতে এই রোগে এরই মধ্যে ১৬ জনের মৃত্যু হয়েছে। ইরানের উপ-স্বাস্থ্যমন্ত্রী ইরাজ হারিরচি এক ভিডিও বার্তায় নিজেকে বিচ্ছিন্ন রাখা ও ওষুধ সেবন শুরু করার কথা জানিয়েছেন বলে বিবিসির এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে। সোমবার এক সংবাদ সম্মেলনে বার বার তাকে কপাল মুছতে দেখা যায়। ওই সংবাদ সম্মেলনে কভিড-১৯ নাম পাওয়া এই রোগের প্রকোপ নিয়ে সরকার সঠিক তথ্য দিচ্ছে না বলে অভিযোগ নাকচ করেন তিনি।

 

চীনে ব্যাপকভাবে ছড়িয়ে পড়া নতুন এই ভাইরাসে ইরানে এখন পর্যন্ত ৯৫ জন আক্রান্ত হয়েছেন বলে সরকার ঘোষণা করলেও সংখ্যাটি আরও অনেক বেশি বলে অনেকের ধারণা।


আপনার মন্তব্য

এই বিভাগের আরও খবর