শিরোনাম
প্রকাশ : শনিবার, ৩০ মে, ২০২০ ০০:০০ টা
আপলোড : ২৯ মে, ২০২০ ২৩:২৯

সুস্থ হয়ে কাজে ফিরছেন আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা

নিজস্ব প্রতিবেদক

করোনায় আক্রান্ত আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা সুস্থ হয়ে কাজে ফিরতে শুরু করেছেন। এরই মধ্যে পুলিশ সদস্যদের এক-তৃতীয়াংশ সুস্থ হয়ে আবার কাজে যোগ দিয়েছেন। এখন পর্যন্ত পুলিশের এক হাজার ৫৬৩ জন সদস্য করোনাকে জয় করে সুস্থ হয়েছেন। বেশিরভাগ পুলিশ সদস্যই সুস্থ হয়ে পুনরায় কাজে যোগ দিয়েছেন। গতকাল পুলিশ সদর দফতরের এআইজি মো. সোহেল রানার গণমাধ্যমে পাঠানো এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এই তথ্য জানানো হয়।

এদিকে বাংলাদেশ আনসার ও গ্রাম প্রতিরক্ষা বাহিনীর আক্রান্তদের মধ্যে সুস্থ হয়েছেন মোট ৯৪ জন। এর               মধ্যে ব্যাটালিয়ন আনসার সুস্থ হয়েছেন ১৯ জন, অঙ্গীভূত সাধারণ আনসার ৭১ জন, নার্সিং সহকারী ১ জন, সিগন্যাল অপারেটর ১ জন, ভিডিপি সদস্য ১ জন এবং মহিলা আনসার সুস্থ হয়েছেন ১ জন। করোনাযুদ্ধে জয়ী বাহিনীর এসব সদস্য সুস্থ হয়ে যার যার কর্মস্থলে যোগদান করে আবার তাদের ওপর অর্পিত দায়িত্ব ও সেবামূলক কাজ করে যাচ্ছেন বলে জানিয়েছেন বাহিনীর উপ-পরিচালক (যোগাযোগ) মেহেনাজ তাবাস্সুম রেবিন। এ ছাড়া ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্সে আক্রান্তদের মধ্যে ১০ জন সুস্থ হয়েছেন।

পুলিশ সদর দফতরের সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, পুলিশের করোনা আক্রান্ত সদস্যের প্রতি তিনজনের একজন ইতোমধ্যেই করোনা থেকে সুস্থ হয়েছেন। জনগণের সেবা ও সুরক্ষা নিশ্চিত করতে গিয়ে এই পর্যন্ত পুলিশের বিভিন্ন পর্যায়ের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাসহ ৪ হাজার ৫৪৪ জন সদস্য করোনা আক্রান্ত হয়েছেন। সুস্থতার হার ৩৪.৩৯ শতাংশ। পুলিশ মহাপরিদর্শক (আইজিপি) ড. বেনজীর আহমেদের নির্দেশনায় করোনা আক্রান্ত পুলিশ সদস্যদের সুচিকিৎসা ও সর্বোত্তম সেবা নিশ্চিত করতে নেওয়া হয়েছে নানা পদক্ষেপ। আক্রান্ত পুলিশ সদস্যদের সেবা নিশ্চিত করতে বেসরকারি হাসপাতাল ভাড়া করা হয়। সব পুলিশ হাসপাতালে চিকিৎসার জন্য পর্যাপ্ত পরিমাণ উন্নত চিকিৎসা সরঞ্জামাদি সংযোজন করা হয়। এরই ফলশ্রুতিতে করোনা আক্রান্ত পুলিশ সদস্যদের সুস্থতার হার একদিকে যেমন দ্রুততার সঙ্গে বাড়ছে, অন্যদিকে কমছে নতুন করে সংক্রমণের সংখ্যা।

জানা গেছে, করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে বর্তমানে পুলিশের ৪ হাজার ৭৩৮ জন সদস্য কোয়ারেন্টাইনে রয়েছেন। আইসোলেশনে আছেন ১ হাজার ৯৭ জন। ইতোমধ্যে মৃত্যু হয়েছে ১৫ জন পুলিশ সদস্যের। আনসার ও গ্রাম প্রতিরক্ষা বাহিনী সূত্র জানায়, গতকাল নতুন করে তাদের বাহিনীতে আক্রান্ত হয়েছেন ১২ জন। এ পর্যন্ত করোনাভাইরাসে বাহিনীর ১ জন ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা ও বিভিন্ন পর্যায়ের মোট ৩২৮ জন সদস্য করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন। এর মধ্যে ঢাকায় অক্রান্ত হয়েছেন ২৭৩ জন এবং ঢাকার বাইরে আক্রান্ত হয়েছেন ৫৫ জন। আক্রান্তদের মধ্যে রয়েছেন বাহিনীর উপ-মহাপরিচালক ১ জন, ১০২ জন ব্যাটালিয়ন আনসার, ২১৯ জন অঙ্গীভূত আনসার, ১ জন বিশেষ আনসার, ১ জন সিগন্যাল অপারেটর, ১ জন নার্সিং সহকারী, ২ জন মহিলা আনসার এবং ১ জন ভিডিপি সদস্য। আক্রান্তদের মধ্যে ৮১ জন ব্যাটালিয়ন আনসার জাতীয় সংসদ ভবনে এবং ১৬৫ জন অঙ্গীভূত সাধারণ আনসার ঢাকা মহানগর পুলিশের (ডিএমপি) সঙ্গে কর্মরত রয়েছেন। এ ছাড়া বাকিদের কেউ সদর দফতর এবং কেউ বিভিন্ন জেলায় কর্মরত রয়েছেন। আক্রান্তদের মধ্যে হোম কোয়ারেন্টাইনে আছেন ১৩ জন। প্রাতিষ্ঠানিক ও বিভিন্ন আবাসিক হোটেল কোয়ারেন্টাইনে ৫১২ জন। এদিকে ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্সে মোট ৯৭ জন কর্মকর্তা-কর্মচারী করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন। এদের মধ্যে ১০ জন সুস্থ হয়েছেন। বাকি ৮৭ জনকে কোয়ারেন্টাইনে রাখা হয়েছে। করোনা আক্রান্তদের মধ্যে ১৭ জন সদর দফতর সিদ্দিকবাজার ফায়ার স্টেশনের, ১৯ জন তেজগাঁও ফায়ার স্টেশনের, ৯ জন অধিদফতরের অফিস শাখার, ৯ জন সদরঘাট ফায়ার স্টেশনের, ১১ জন হাজারীবাগ ফায়ার স্টেশনের, ৬ জন ঢাকা কেন্দ্রীয় নিয়ন্ত্রণ কক্ষের, ৬ জন ডিইপিজেড ফায়ার স্টেশনের (সাভার), ৮ জন সাভার ফায়ার স্টেশনের, একজন লালবাগ ফায়ার স্টেশনের, একজন মোহাম্মদপুর ফায়ার স্টেশনের, দুজন মানিকগঞ্জ ফায়ার স্টেশনের, ৪ জন চট্টগ্রাম লামার ফায়ার স্টেশনের, একজন ডেমরা ফায়ার স্টেশনের, একজন খিলগাঁও ফায়ার স্টেশনের এবং দুজন পোস্তগোলা ফায়ার স্টেশনের কর্মী। আক্রান্তদের পূর্বাচল মাল্টিপারপাস ফায়ার সার্ভিস সেন্টার, নারায়ণগঞ্জ, রূপগঞ্জের ইউসুফগঞ্জ স্কুল, বায়েজিদ ফায়ার স্টেশন, চট্টগ্রাম এবং সদরঘাট ফায়ার স্টেশনসহ বিভিন্ন স্থানে প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টাইনে এবং একজনকে হোম কোয়ারেন্টাইনে রাখা হয়েছে।


আপনার মন্তব্য

এই বিভাগের আরও খবর