শিরোনাম
প্রকাশ : রবিবার, ২৪ জানুয়ারি, ২০২১ ০০:০০ টা
আপলোড : ২৩ জানুয়ারি, ২০২১ ২৩:১৩

জমি ও ঘর প্রদান অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী

সবার জন্য নিরাপদ বাসস্থান করাই মুজিববর্ষের লক্ষ্য

প্রতিদিন ডেস্ক

সবার জন্য নিরাপদ বাসস্থান করাই মুজিববর্ষের লক্ষ্য
প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা গতকাল ভূমিহীন-গৃহহীনদের ঘর হস্তান্তর উদ্বোধন করেন -বাসস

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, সবার জন্য নিরাপদ বাসস্থানের ব্যবস্থা করাই হবে মুজিববর্ষের লক্ষ্য। দেশের ভূমিহীন-গৃহহীন মানুষকে ঘর দিতে পারার চেয়ে বড় কোনো উৎসব আর হতে পারে না। গতকাল সকালে মুজিববর্ষ উপলক্ষে ভূমিহীন ও গৃহহীন পরিবারকে জমি ও ঘর প্রদান উদ্বোধন অনুষ্ঠানে তিনি এ কথা বলেন। প্রধানমন্ত্রী তাঁর সরকারি বাসভবন থেকে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে মূল অনুষ্ঠানে সংযুক্ত হয়ে এর উদ্বোধন করেন। খবর বাসস।

গণভবনের সঙ্গে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় (পিএমও) এবং সারা দেশের ৪৯২টি উপজেলা প্রান্ত ভিডিও কনফারেন্সে যুক্ত ছিল এবং বাংলাদেশ টেলিভিশন, বাংলাদেশ বেতারসহ বিভিন্ন বেসরকারি টিভি চ্যানেল অনুষ্ঠানটি সরাসরি সম্প্রচার করে।

অনুষ্ঠানে সরকারের আশ্রয়ণ প্রকল্পের ওপর একটি ভিডিও ডকুমেন্টারি পরিবেশিত হয়। প্রধানমন্ত্রী ভিডিও কনফারেন্সে খুলনার ডুমুরিয়া উপজেলার কাঁঠালতলা, নীলফামারীর সৈয়দপুর উপজেলার কামারপুর, হবিগঞ্জের চুনারুঘাট ও চাঁপাইনবাবগঞ্জ সদর উপজেলার উপকারভোগীদের সঙ্গে মতবিনিময় করেন।

প্রধানমন্ত্রীর পক্ষে দেশের বিভিন্ন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা উপকারভোগীদের মাঝে বাড়ির চাবি ও দলিল হস্তান্তর করেন। প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের সচিব তোফাজ্জল হোসেন মিয়া ভিডিও কনফারেন্সটি সঞ্চালনা করেন।

ভিক্ষুক, ছিন্নমূল, বিধবাসহ ৬৬ হাজার ১৮৯টি ভূমিহীন-গৃহহীন পরিবারকে জমি ও ঘর প্রদান করা হয়। সরকার মুজিববর্ষ উপলক্ষে গৃহহীনদের জন্য ১ হাজার ১৬৮ কোটি টাকা ব্যয়ে ৬৬ হাজার ১৮৯টি বাড়ি নির্মাণ করেছে। একই সঙ্গে ৩ হাজার ৭১৫টি পরিবারকে ব্যারাকে পুনর্বাসন করা হয়। প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের অধীন আশ্রয়ণ প্রকল্প মুজিববর্ষ উদযাপনকালে ২১ জেলার ৩৬ উপজেলায় ৪৪টি প্রকল্পের অধীনে ৭৪৩টি ব্যারাক নির্মাণ করে ৩ হাজার ৭১৫টি পরিবারকে পুনর্বাসিত করছে। ইতিমধ্যে সারা দেশের ৮ লাখ ৮৫ হাজার ৬২২টি ভূমিহীন-গৃহহীন পরিবারের তালিকা প্রস্তুত করা হয়েছে। এ তালিকা অনুযায়ী ঘর নির্মাণ ও পরিবার পুনর্বাসনের কার্যক্রম চলবে।

উপকারভোগী প্রতিটি পরিবারকে ২ শতক জমির রেজিস্টার্ড মালিকানা দলিলসহ নতুন খতিয়ান ও সনদ হস্তান্তর করা হয়। প্রতিটি জমি ও বাড়ির মালিকানা স্বামী-স্ত্রীর যৌথ নামে দেওয়া হয়েছে।

প্রতিটি দুই রুমের সেমিপাকা টিনশেড বাড়িতে রান্নাঘর, টয়লেট, বারান্দাসহ বিদ্যুৎ ও পানির নাগরিক সুবিধা রয়েছে। গ্রোথ সেন্টারের পাশে হওয়ায় প্রকল্প এলাকায় পাকা রাস্তা, স্কুল, মসজিদ-মাদ্রাসা ও বাজার রয়েছে।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, এভাবেই মুজিববর্ষ ও স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তীতে সমগ্র বাংলাদেশের গৃহহীনদের নিরাপদ বাসস্থান তৈরি করে দেওয়া হবে, যাতে দেশের একটি লোকও গৃহহীন না থাকে। যাদের থাকার ঘর নেই, ঠিকানা নেই আমরা তাদের যেভাবেই হোক একটা ঠিকানা করে দেব। তিনি বলেন, মুজিববর্ষের অনেক কর্মসূচি আমাদের ছিল। সেগুলো আমরা করোনার কারণে করতে পারিনি। তবে করোনা একদিকে আশীর্বাদও হয়েছে। কারণ আমরা এই একটি কাজের দিকেই (গৃহহীনদের ঘর করে দেওয়া) নজর দিতে পেরেছি। আজকে এটাই আমাদের সবচেয়ে বড় উৎসব।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, আমাদের সম্পদের সীমাবদ্ধতা রয়েছে। তার পরও সীমিত আকারে আমরা করে দিচ্ছি এবং একটা ঠিকানা আমি সব মানুষের জন্য করে দেব। কারণ আমি বিশ্বাস করি যখন এই মানুষগুলো ঘরে থাকবে তখন আমার বাবা এবং মা যারা সারাটা জীবন এ দেশের জন্য তাগ স্বীকার করে গেছেন তাদের আত্মা শান্তি পাবে। তিনি বলেন, লাখো শহীদ রক্ত দিয়ে এ দেশের স্বাধীনতা এনে দিয়েছেন। তাঁদের আত্মাটা অন্তত শান্তি পাবে। কারণ এ দেশের মানুষের ভাগ্য পরিবর্তন করাটাই ছিল আমার বাবা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবের একমাত্র লক্ষ্য। তিনি বলেন, আজকে আমি সবচেয়ে খুশি যে এত অল্প সময়ে এতগুলো পরিকারকে আমরা একটা ঠিকানা দিতে পেরেছি। এ শীতের মধ্যে তারা থাকতে পারবে। কেননা আমাদের যারা শরণার্থী (রোহিঙ্গা) তাদের জন্যও আমরা ভাসানচরে ঘর করে দিয়েছি।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, এত দ্রত সময়ে পৃথিবীর কোনো দেশে কোনো সময় কোনো সরকার একসঙ্গে ৬৬ হাজার ১৮৯টি ঘর করে দিয়েছে কি না আমার জানা নেই। এ গৃহায়ণ প্রকল্পে কোনো শ্রেণি বাদ যাচ্ছে না, বেদে শ্রেণিকেও আমরা ঘর করে দিয়েছি। হিজড়াদের স্বীকৃতি দিয়েছি এবং তাদেরও পুনর্বাসনের ব্যবস্থা করা হচ্ছে। দলিত বা হরিজন শ্রেণির জন্য উচ্চমানের ফ্ল্যাট তৈরি করে দিচ্ছি। চা শ্রমিকদের জন্য করে দিয়েছি। এভাবে প্রতিটিট শ্রেণির মানুষের পুনর্বাসনে আমরা কাজ করে যাচ্ছি।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, জাতির পিতা তাঁর সাড়ে তিন বছরের দেশ পরিচালনায় যুদ্ধবিধ্বস্ত দেশ পুনর্গঠনকালে যে সংবিধান প্রণয়ন করেন তার ১৫(ক) অনুচ্ছেদে দেশের প্রতিটি নাগরিকের বাসস্থান পাওয়ার অধিকারের বিষয়টি অন্তর্ভুক্ত করে যান। জাতির পিতা গৃহহীন-অসহায় মানুষের পুনর্বাসনে উদ্যোগ গ্রহণ করেছিলেন। তিনি বলেন, জাতির পিতা ১৯৭২ সালের ২০ ফেব্রুয়ারি নোয়াখালীর (বর্তমান লক্ষ্মীপুর জেলা) চরপোড়াগাছা গ্রাম পরিদর্শনে যান এবং ভূমিহীন ও গৃহহীন অসহায় মানুষের পুনর্বাসনের নির্দেশ দেন এবং তাঁর নির্দেশনাতেই ভূমিহীন ও গৃহহীন ছিন্নমূল মানুষের পুনর্বাসন কার্যক্রম শুরু হয়।

প্রধানমন্ত্রী ভোট দিয়ে আওয়ামী লীগকে জয়যুক্ত করায় পুনরায় জনগণের প্রতি কৃতজ্ঞতা ব্যক্ত করে বলেন, নৌকা মার্কায় ভোট পেয়েছিলাম বলেই জয়ী হয়ে ২০০৯ সালে সরকার গঠন করতে পারলাম এবং পুনরায় আমাদের প্রকল্পগুলোর বাস্তবায়ন শুরু করলাম। তিনি বলেন, ইচ্ছা ছিল নিজ হাতে আপনাদের কাছে বাড়ির দলিলগুলো তুলে দেব। কিন্তু করোনাভাইরাসের কারণে তা করতে পারলাম না। তবে প্রতিশ্রুতি অনুযায়ী ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়ে তুলেছিলাম বলেই আপনাদের সামনে এভাবে হাজির হতে পেরেছি। তিনি প্রশ্ন তোলেন, একজন মিলিটারি ডিক্টেটর রাষ্ট্রক্ষমতা দখল করে একদিন ঘোষণা দিল আজকে রাষ্ট্রপতি হলাম, আর সেটাই গণতন্ত্র হয়ে গেল? হ্যাঁ, অনেক রাজনৈতিক দল করার সুযোগ করে দিল (যুদ্ধাপরাধী এবং কারাগারে আটক খুনি অপরাধীদের)। কিন্তু মানুষকে দুর্নীতি করার, মানি লন্ডারিং করার, ঋণখেলাপি হওয়ার, টাকা ছাপিয়ে নিয়ে সেগুলো ছড়িয়ে দিয়ে ‘মানি ইজ নো প্রবলেম’ বা ‘আই উইল মেইক পলিটিক্স ডিফিকাল্ট’- তাদের কাজই ছিল এ দেশের মানুষের ভাগ্য নিয়ে খেলার। আর দরিদ্রকে দরিদ্র করে রাখা এবং মুষ্টিমেয় লোককে অর্থবিত্ত করে দিয়ে ক্ষমতাকে চিরস্থায়ী করা।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, বিশ্বের দরবারে সম্মানের সঙ্গে মাথা উঁচু করে যেন চলতে পারি সেটাই আমাদের প্রত্যাশা। এ সময় বাংলাদেশকে জাতির পিতার স্বপ্নের উন্নত-সমৃদ্ধ সোনার বাংলাদেশ হিসেবে গড়ে তোলায় সবার দোয়া ও সহযোগিতার প্রত্যাশাও পুনর্ব্যক্ত করেন শেখ হাসিনা।

আমাদের নিজস্ব প্রতিবেদক ও প্রতিনিধিদের পাঠানো আরও খবর-

খুলনা : খুলনায় মুজিববর্ষ উপলক্ষে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার উপহার জমি ও ঘর পেয়ে আনন্দে কাঁদলেন উপকারভোগীরা। এ সময় প্রধানমন্ত্রী নিজেও ভাবাবেগে আপ্লুত হন ও তাদের কাঁদতে নিষেধ করেন। গতকাল সকালে খুলনার প্রত্যন্ত ডুমুরিয়া উপজেলার আটলিয়া কাঁঠালপাড়া গ্রাম থেকে বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইটের মাধ্যমে প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে সরাসরি কথা বলেন উপকারভোগীরা।

বরিশাল : বরিশাল জেলার ১০ উপজেলায় ভূমি ও গৃহহীন ১ হাজার ৯ পরিবারকে দুই শতাংশ খাস জমিসহ সরকারের দেওয়া নতুন নির্মিত সেমিপাকা ঘরের কাগজপত্র হস্তান্তর করা হয়েছে। উপজেলার ১৫৭টি জমি ও গৃহহীন পরিবারের মধ্যে এ ঘরসহ জমির কাগজপত্র তুলে দেওয়া হয়।

চুয়াডাঙ্গা : চুয়াডাঙ্গায় গৃহহীন ১৩৪টি পরিবারকে জমিসহ ঘর প্রদান করা হয়েছে। সকাল ১০টায় চুয়াডাঙ্গা জেলা প্রশাসকের সম্মেলন কক্ষে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এ কার্যক্রমের শুভ উদ্বোধন করেন।

আদমদীঘি (বগুড়া) : গতকাল উপজেলার ছাতিয়ানগ্রাম ইউনিয়নের ১০টি ভূমিহীন ও গৃহহীন পরিবারকে জমির দলিল ও স্বপ্নের বাড়ি হস্তান্তর করা হয়।

চাঁপাইনবাবগঞ্জ : সকালে চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলা প্রশাসন সদর উপজেলার বালিয়াডাঙ্গা ইউনিয়নের সল্লায় ভূমিহীন ও গৃহহীন পরিবারকে জমি ও গৃহের কাগজপত্র তুলে দেয়।

ব্রাহ্মণবাড়িয়া : আখাউড়ায় প্রথম দফায়  ৪৫ ভূমি ও গৃহহীন পরিবার পেয়েছেন মাথাগোজার ঠাঁই হিসেবে বসতবাড়ি। গতকাল ভিডিও কনফারেন্সিংয়ের মাধ্যমে প্রধানমন্ত্রীর আনুষ্ঠানিক বক্তব্য দেওয়ার পর উপজেলার ৪৫ জন উপকারভোগীকে বাড়ির দলিল বুঝিয়ে দেওয়া হয়।

ভাঙ্গা (ফরিদপুর) : ভাঙ্গা উপজেলা পরিষদ চত্বরে আনুষ্ঠানিকভাবে জমি ও  ঘরের দলিলসহ আনুষঙ্গিক কাগজপত্র ২৫০ ব্যক্তির হাতে তুলে দেওয়া হয়েছে।

বড়াইগ্রাম (নাটোর) : বড়াইগ্রামে ভূমি ও গৃহহীন ১৬০টি পরিবারের জন্য প্রধানমন্ত্রীর উপহারের আশ্রয়ন-২ প্রকল্পের আওতায় জমি ও ঘর নির্মাণ শেষে ঘরের চাবি ও দলিল হস্তান্তর করা হয়েছে।

মেহেরপুর : মেহেরপুর জেলায় প্রথম দফায় ২৭ জন বাড়ি পেয়েছেন। এর মধ্যে মেহেরপুর সদরে ১৬, গাংনী উপজেলায় সাত ও মুজিবনগর উপজেলায় চার গৃহহীন পরিবার পেয়েছে নতুন বাড়ি।

লক্ষ্মীপুর : লক্ষ্মীপুরে জমিসহ ঘর পেল ভূমিহীন ও গৃহহীন ২০০ পরিবার। জেলার পাঁচটি উপজেলার নিজস্ব কার্যালয়ে এদিন প্রধানমন্ত্রীর উদ্বোধনী বক্তব্য উপভোগ করেন সুবিধাভোগী, জনপ্রতিনিধি, মুক্তিযোদ্ধা, সামাজিক ও রাজনৈতিক সংগঠনের নেতারা।

যশোর : যশোরে ৬৬৬ ভূমি ও গৃহহীন পরিবারকে জমি ও ঘর প্রদান করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। সকালে সংশ্লিষ্টদের মধ্যে জমি ও ঘরের কাগজপত্র দেওয়া হয়।

হবিগঞ্জ :  হবিগঞ্জের চুনারুঘাট উপজেলার ৭৪টিসহ জেলার ৩২৫টি ভূমিহীন ও গৃহহীন পরিবারকে জমি ও ঘর এবং দলিল হস্তান্তর করা হয়েছে।

দিনাজপুর : দিনাজপুর সদর উপজেলায় ৩৪০ ভূমিহীন ও গৃহহীন পরিবার পাচ্ছে প্রধানমন্ত্রীর উপহার পাকা বাড়ি। এর মধ্যে গতকাল প্রথম দফায় ১৫৮ ভূমিহীন ও গৃহহীন পরিবারের মধ্যে দলিল ও বাড়ির চাবি হস্তান্তর করা হয়েছে।

গলাচিপা (পটুয়াখালী) : পটুয়াখালীর গলাচিপায় ৬ কোটি ৮৭ লাখ ৭৫ হাজার টাকা ব্যয়ে ৩৯৩ পরিবারকে জমিসহ ঘর দেওয়া হয়েছে।

নরসিংদী : আশ্রয়ন-২ প্রকল্পের অধীনে গতকাল নরসিংদী সদর উপজেলায় চারটি, শিবপুর উপজেলায় ৪২টি, পলাশ উপজেলায় ২৫টি, মনোহরদীতে ৪৫টি, রায়পুরায় ৩৫টি এবং বেলাব উপজেলায় ৭০টি গৃহহীন পরিবারকে ঘর দেওয়া হয়।

টাঙ্গাইল : টাঙ্গাইলে ১২ উপজেলার ৬১৩ দরিদ্র গৃহহীন পরিবার পেয়েছে প্রধানমন্ত্রীর উপহার। গতকাল দরিদ্র-আশ্রয়হীন পরিবারের মধ্যে আনুষ্ঠানিকভাবে ঘরের চাবি ও দলিল তুলে দেওয়া হয়।

ফুলপুর (ময়মনসিংহ) : ফুলপুর উপজেলা অডিটরিয়ামে ফুলপুরের ৯৭টি ভূমিহীন ও গৃহহীন পরিবারের সদস্যদের হাতে গতকাল সকাল সোয়া ১১টায় চাবি তুলে দেওয়া হয়েছে।

পঞ্চগড় : পঞ্চগড়ের পাঁচ উপজেলায় নতুন পাকা বাড়ি পেল ১ হাজার ৫৭ ভূমিহীন ও গৃহহীন পরিবার। সদর উপজেলায় ২০৮টি, দেবীগঞ্জ উপজেলায় ৫৮২টি, বোদা উপজেলায় ৫৫টি, তেঁতুলিয়া উপজেলায় ১৪২টি ও আটোয়ারী উপজেলায় ৭০টি পরিবারকে এসব বাড়ি বরাদ্দ দেওয়া হয়।

নোয়াখালী : নোয়াখালীতে প্রথম ধাপে ১৫০টি পরিবারকে নতুন ঘর প্রদান করা হয়েছে।

শরীয়তপুর : শরীয়তপুরে ৬৯৯ ভূমিহীন ও গৃহহীন পরিবার পেয়েছে নির্মিত স্থায়ী বাসভবন। বাকি ১৯৯ পরিবারকে আগামী ৩০ জানুয়ারির মধ্যে বাসভবন দেওয়া হবে।

নেত্রকোনা : জেলার ১০ উপজেলার ১ হাজার ৩০টি পরিবারকে জমি ও গৃহ হস্তান্তরের উদ্বোধন করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

বগুড়া : বগুড়া সদর উপজেলা পরিষদের হলরুমে সদরের শেখেরকোলা ইউনিয়নের ১৮ জন ভূমিহীনকে গৃহ হস্তান্তর করা হয়েছে।

লালমাই (কুমিল্লা) : লালমাই উপজেলার গৃহহীন থেকে পাকা ঘর পেয়েছে ৩০ পরিবার।

কুষ্টিয়া : মাথাগোঁজার স্থায়ী ঠিকানা পেয়েছে কুষ্টিয়ার ১৫৭টি ভূমিহীন ও গৃহহীন পরিবার।

ময়মনসিংহ : ময়মনসিংহে গতকাল প্রধানমন্ত্রীর উপহার হিসেবে ১ হাজার ৩০৫ ভূমি ও গৃহহীন পরিবারকে জমিসহ পাকাঘর প্রদান করা হয়েছে।

মুন্সীগঞ্জ : মুন্সীগঞ্জের ভূমিহীন ও গৃহহীনদের জমিসহ ৫০৮ পরিবারকে গৃহ প্রদান করা হয়েছে।

খাগড়াছড়ি :  খাগড়াছড়িতে ঘর পেয়েছে ২৬৮টি ভূমিহীন ও গৃহহীন পরিবার। 

কমলনগর (লক্ষ্মীপুর) : কমলনগরে ২০ পরিবারকে ঘরের চাবি হস্তান্তর করেছে কমলনগর প্রশাসন।

ঝালকাঠি : ঝালকাঠিতে ভূমিহীন ও গৃহহীন ২৩০টি পরিবার ঘর পেয়েছে।

এ ছাড়া কলাপাড়া (পটুয়াখালী), বিশ্বনাথ (সিলেট), সাতক্ষীরা, মাদারীপুর, কুড়িগ্রাম, মৌলভীবাজারের শ্রীমঙ্গল থেকে ঘর প্রদানের খবর পাওয়া গেছে।


আপনার মন্তব্য

এই বিভাগের আরও খবর