শিরোনাম
প্রকাশ : সোমবার, ১৯ এপ্রিল, ২০২১ ০০:০০ টা
আপলোড : ১৮ এপ্রিল, ২০২১ ২৩:০৮

বিশেষ ফ্লাইটে যাত্রা শুরু প্রবাসী কর্মীদের

টিকিটের জন্য ভিড়-বিক্ষোভ

নিজস্ব প্রতিবেদক

বিশেষ ফ্লাইটে যাত্রা শুরু প্রবাসী কর্মীদের
টিকিটের জন্য গতকাল রাজধানীর কারওয়ানবাজারে বিক্ষোভ করেন প্রবাসীরা -বাংলাদেশ প্রতিদিন
Google News

লকডাউনে আটকে পড়া প্রবাসী কর্মীদের নিয়ে বিশেষ ফ্লাইটের যাত্রা ধীরে ধীরে স্বাভাবিক হচ্ছে। গতকাল বিশেষ ফ্লাইট চালুর দ্বিতীয় দিন বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইনস, ওমান এয়ার ও এমিরেটস তাদের ফ্লাইট পরিচালনা করেছে। সৌদি আরবে ফ্লাইট ল্যান্ডিংয়ের অনুমতি মিলেছে। পাশাপাশি ওমানের মাস্কাটে ও দুবাইয়ে রওনা হয়েছে বিশেষ ফ্লাইট। সব মিলিয়ে গতকাল মধ্যরাত পর্যন্ত ১২টি বিশেষ ফ্লাইট পরিচালিত হওয়ার শিডিউল ছিল। গত শনিবার সৌদি আরবের রিয়াদ ও দাম্মামে বিশেষ ফ্লাইট ল্যান্ডিংয়ের অনুমতি না পাওয়ায় শিডিউল বিপর্যয় ঘটে। অর্ধেক ফ্লাইট বাতিলও হয়। এতে বিপাকে পড়েন প্রবাসীরা।

বিমানের উপ-মহাব্যবস্থাপক (জনসংযোগ)            তাহেরা খন্দকার জানিয়েছেন, রিয়াদগামী ফ্লাইটটির শনিবার সকাল সাড়ে ৬টার দিকে রওনা হওয়ার কথা ছিল। তবে সৌদি আরবে ল্যান্ডিং পারমিশন না থাকায় ফ্লাইটটি বাতিল করা হয়। সেই ফ্লাইটে ২০১ জন যাত্রী ছিলেন। সেই যাত্রীদের সঙ্গে আরও কিছু যাত্রী নিয়ে রবিবার ভোররাত ৩টায় ফ্লাইটটি রিয়াদের উদ্দেশে ছেড়ে গেছে। তিনি জানান, পরিস্থিতি ধীরে ধীরে স্বাভাবিক হচ্ছে। বিমানের আরও তিনটি বিশেষ ফ্লাইট রবিবার জেদ্দা, দাম্মাম ও দুবাইয়ের উদ্দেশে রওনা হওয়ার শিডিউল রয়েছে। তাহেরা খন্দকার বলেন, সৌদি আরবের জেদ্দায় আগে থেকে অনুমোদন ছিল, কিন্তু রিয়াদ ও দাম্মামে পৃথকভাবে অনুমোদন দরকার হয়। যা পরে মিলেছে। সব মিলিয়ে দ্বিতীয় দিনে কোনো সমস্যা নেই। বরং দাম্মামে বাড়তি একটি ফ্লাইটও যুক্ত হয়েছে। কোনো সমস্যা ছাড়াই ফ্লাইটগুলো পরিচালনা করা সম্ভব হবে এমন আশা প্রকাশ করে তিনি বলেন, ২০ এপ্রিল থেকে সিঙ্গাপুরে বিশেষ ফ্লাইট চলাচলের শিডিউল রয়েছে। তার কোনো পরিবর্তন না হলে ওই দিনই যাত্রীরা যেতে পারবেন। হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের পরিচালক তৌহিদ উল আহসান বলেন, সারা দিনে পাঁচটি দেশে ১২টি বিশেষ ফ্লাইটের স্লট নির্ধারিত আছে। কোনো সমস্যা নেই। সব কার্যক্রম স্বাভাবিকভাবে চলছে। কোনো ফ্লাইট বাতিল হওয়ার আশঙ্কা নেই।  ইউএস-বাংলা এয়ারলাইনসের জনসংযোগ শাখার মহাব্যবস্থাপক মো. কামরুল ইসলাম জানিয়েছেন, রবিবার সন্ধ্যায় দোহা ও দুবাই এবং রাতে মাস্কাটে তাদের তিনটি বিশেষ ফ্লাইট আছে। শনিবার মাস্কাটগামী একটি ফ্লাইট যাত্রী স্বল্পতাসহ নানা কারণে বাতিল করা হয়েছে জানিয়ে তিনি বলেন, ওই ফ্লাইটের যাত্রীরা রবিবার রাতে তাদের গন্তব্যে ফিরতে পারবেন। লকডাউনের প্রথম তিন দিন বিমান চলাচল বন্ধ রাখায় ২৫ থেকে ৩০ হাজার বিদেশগামী কর্মী ভোগান্তিতে পড়েছেন। তাদের দাবির মুখে শনিবার থেকে বিশেষ ফ্লাইট চালু হলেও প্রথম দিনেই বিপর্যয় ঘটে। ১৪টি ফ্লাইটের সাতটিই বাতিল হয়। এতে ভিসার মেয়াদ নিয়ে উৎকণ্ঠায় থাকা বিদেশগামীরা গত বছরের মতোই ভোগান্তিতে পড়ে। এদিকে, বিভিন্ন দেশে ফিরতি টিকিট রি-ইস্যু করতে রাজধানীর মতিঝিলে বিমানের অফিসে এবং হোটেল সোনারগাঁওয়ে সৌদি এরাবিয়ান এয়ারলাইনসের অফিসে গতকাল দ্বিতীয় দিনের মতো ভিড় করেছেন প্রবাসী কর্মীরা। মতিঝিলে বিমানের অফিসের সামনে ভিড়ের চাপে পড়ে গিয়ে এক প্রবাসী কর্মী আহত হওয়ার ঘটনা ঘটেছে। পরে তাকে চিকিৎসার জন্য ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়। এমন পরিস্থিতিতে সেখানে বিক্ষোভের ঘটনাও ঘটে। সেখানে থাকা অনেকেই জানিয়েছেন, লকডাউন পরিস্থিতির মধ্যে নানা ঝামেলা সয়ে তারা বিভিন্ন জেলা থেকে অনেক খরচ করে ঢাকায় এসেছেন। কিন্তু এখানে এসে আমরা বিমানের কর্মকর্তাদের কাছে জানতে পারছি না কবে আমাদের ফিরতি টিকিট রি-ইস্যু করা হবে। সাউদিয়ার সামনে অপেক্ষমাণ শ্রমিকরা জানান, সৌদি আরব ফিরতে না পারলে আগামী তিন চার দিনের মধ্যে তাদের ভিসার মেয়াদ শেষ হয়ে যাবে। সৌদি আরবের টিকিট পেতে আগ্রহী আমিনউদ্দিন বলেন, গত ১৬ এপ্রিল তার কর্মস্থলে ফেরার তারিখ ছিল। লকডাউন এবং উড়োজাহাজ চলাচল বন্ধ হয়ে যাওয়ায় যেতে পারিনি। আগামী ২১ এপ্রিল ভিসার মেয়াদ শেষ হয়ে যাবে। যদি তার আগে পৌঁছতে না পারি তাহলে বড় ঝামেলায় পড়ে যাব।

এই বিভাগের আরও খবর