শিরোনাম
প্রকাশ : ২৮ মার্চ, ২০২১ ১৪:২৬
প্রিন্ট করুন printer

বদলে যাওয়া এক বাংলাদেশ

জাহাঙ্গীর আলম

বদলে যাওয়া এক বাংলাদেশ
বিজয় থেকে অর্জন

দারিদ্র্য ও ভঙ্গুর অর্থনীতির কারণে স্বাধীনতার পর বাংলাদেশ ছিল বৈশ্বিক আলোচনায়। আর স্বাধীনতার ৫০ বছরে অভূতপূর্ব উন্নয়ন ও ভূরাজনীতি দেশটিকে আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের মনোযোগের কেন্দ্রে নিয়ে এসেছে। বিশ্বব্যাংক ও আইএমএফ তাদের ‘উন্নয়ন পোস্টার চাইল্ড’ হিসেবে বাংলাদেশকে তুলে ধরছে। পশ্চিমা বিশ্বের তথাকথিত ‘বাস্কেট কেস’ তত্ত্ব উড়িয়ে দেশটি এখন উন্নয়নের রোল মডেল। এ যেন বদলে যাওয়া এক বাংলাদেশ, জাতির পিতার স্বপ্নের সোনার বাংলা। 

তিন বছর পর্যবেক্ষণের পর গত ২৬ ফেব্রুয়ারি জাতিসংঘের ‘কমিটি ফর ডেভেলপমেন্ট পলিসি (সিডিপি)’ বাংলাদেশকে স্বল্পোন্নত থেকে উন্নয়নশীল দেশে উত্তরণের জন্য চূড়ান্ত সুপারিশ করেছে। বাংলাদেশের অর্থনৈতিক, সামাজিক ও মানবিক উন্নয়নমূলক সাফল্য পৃথিবীর অনেক অর্থনীতিবিদ ও উন্নয়ন বিশেষজ্ঞকে অবাক করেছে। দেশের উন্নতি ও সামাজিক উন্নয়নকে অনেকে ‘বাংলাদেশ প্যারাডক্স’ বলে আখ্যায়িত করছেন। দুবার পুলিৎজার পুরস্কার বিজয়ী মার্কিন সাংবাদিক নিকোলাস ক্রিস্টফ ১০ মার্চ নিউইয়র্ক টাইমসে এক নিবন্ধে লিখেছেন, ‘৫০ বছর আগে গণহত্যা আর অনাহারের ভিতর বাংলাদেশের জন্ম। হেনরি কিসিঞ্জার (সাবেক মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী) দেশটিকে “তলাবিহীন ঝুড়ি”র সঙ্গে তুলনা করেছিলেন। ...আমি দেশটি নিয়ে হতাশার কথা লিখেছিলাম। কিন্তু আমার হতাশাবাদ ভুল প্রমাণিত হয়েছে। কারণ তিন দশক ধরে দেশটি অবিশ্বাস্য উন্নতিতে এগিয়ে যাচ্ছে।’ কয়েক দশক আগেও আন্তর্জাতিক পর্যায়ে বাংলাদেশকে নিয়ে কেবল হতাশা প্রকাশ ও নেতিবাচক তত্ত্ব লেখা হয়েছে। নরওয়ের অর্থনীতিবিদ জাস্ট ফালান্ড ও মার্কিন অর্থনীতিবিদ জে আর পার্কিনসন ১৯৭৬ সালে লন্ডন থেকে প্রকাশিত ‘দ্য টেস্ট কেস ফর ডেভেলপমেন্ট’ বইয়ে লিখেন, ‘বাংলাদেশ হচ্ছে উন্নয়নের একটি পরীক্ষা ক্ষেত্র। বাংলাদেশ যদি তার উন্নয়ন সমস্যার সমাধান করতে পারে তাহলে বুঝতে হবে যে কোনো দেশই উন্নতি করতে পারবে।’ অথচ বর্তমানে গবেষকদের মতে প্রাকৃতিক সম্পদের অপ্রতুলতা, অবকাঠামোর অভাব আর জনসংখ্যার ঘনত্ব বেশি হওয়া সত্ত্বেও বাংলাদেশের জনগণের টিকে থাকার সক্ষমতা দেশটির সাফল্য এনে দিয়েছে। এ বাংলাদেশ একসময় আন্তর্জাতিক অঙ্গনে ছিল প্রায় অচেনা। সে দেশ এখন জাতিসংঘের ‘শান্তি রক্ষায়’ সবচেয়ে বেশি অবদান রাখছে। আন্তর্জাতিক পর্যায়ের চিন্তকদের মতে বাংলাদেশের এ অভাবনীয় সাফল্যের মূলে রয়েছে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার অনুকরণীয় নেতৃত্ব। তাঁর দেশ পরিচালনার নীতি ও দূরদর্শী নেতৃত্ব সত্যিকার অর্থেই বাংলাদেশের দিন বদল করেছে। বিশ্বে বিভিন্ন রাষ্ট্র ও সংস্থা শেখ হাসিনা প্রণীত দারিদ্র্য বিমোচন নীতি অনুসরণ করে যাচ্ছে। দেশের বিশিষ্ট অর্থনীতিবিদ অধ্যাপক ওয়াহিদ উদ্দিন মাহমুদ স্বল্পোন্নত দেশের শ্রেণি থেকে উন্নয়নশীল দেশে বাংলাদেশের উত্তরণের বিষয়টি বিরাট সাফল্য অভিহিত করে ভবিষ্যৎ করণীয় সম্পর্কে বাংলাদেশ প্রতিদিনকে বলেন, ‘আমাদের বিশেষভাবে দরকার ব্যক্তি খাতের রপ্তানিমুখী শিল্পে বৈদেশিক সরাসরি বিনিয়োগ আকর্ষণের মতো পরিবেশ তৈরি করা। এ ধরনের বিনিয়োগ প্রযুক্তি হস্তান্তরের ফলে রপ্তানি বহুমুখী করা যেমন সম্ভব হয় তেমনি রপ্তানি বাড়ার ফলে বৈদেশিক ঋণ পরিশোধের দায় ভবিষ্যতে সমস্যা তৈরি করে না। ভিয়েতনামের বড় সাফল্য এখানেই।’

যেভাবে উন্নয়নশীল দেশ : অর্থনৈতিক কাঠামো পরিবর্তন দেশের অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধির পেছনে বড় ভূামিকা রেখেছে। স্বাধীনতার পর দেশের অর্থনীতি ছিল মূলত কৃষিনির্ভর। বর্তমানে শিল্প ও সেবা খাত অর্থনীতির মূল চালিকাশক্তি। রেমিট্যান্স ও তৈরি পোশাকশিল্প অর্থনীতিতে প্রধানত অবদান রেখেছে। বাংলাদেশ এখন বিশ্বে দ্বিতীয় সর্বোচ্চ পোশাক রপ্তানিকারক দেশ। এ খাতে সবচেয়ে বেশি মানুষ চাকরি করে। পোশাক খাতে ৪০ লাখ কর্মীর ৩২ লাখই নারী। তৈরি পোশাকশিল্পে ১৯৭৯ সালে আয় ছিল মাত্র ৪০ হাজার মার্কিন ডলার। ২০১৯ সালে তাঁ দাড়িয়েছে ৩৪ দশমিক ১৩ বিলিয়ন ডলারে। ১৯৭৬ সালে বৈদেশিক রেমিট্যান্সে দেশে আসত ২৩ দশমিক ৭১ মিলিয়ন মার্কিন ডলার। আর ২০১৯ সালে তা দাঁড়িয়েছে ১৬ দশমিক ৩৭ বিলিয়ন মার্কিন ডলারে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বেই প্রতিবেশী সব দেশকে ছাপিয়ে ২০১৫ সালে মিলেনিয়াম ডেভেলপমেন্ট গোল (এমডিজি) সফলভাবে সম্পন্ন করে বাংলাদেশ। এরপর জাতিসংঘ-ঘোষিত টেকসই উন্নয়ন পরিকল্পনা বাস্তায়নেও এ দেশ সঠিক পথে হাঁটছে। ২০০৮-০৯ সালের ১০৩ দশমিক ৫ বিলিয়ন জিডিপি বর্তমানে বাংলাদেশ ৩৩০ দশমিক ২ বিলিয়ন মার্কিন ডলারে উন্নীত করেছে। বাংলাদেশের রপ্তানি আয় ১৫ দশমিক ৫৭ থেকে বেড়ে বর্তমানে দাঁড়িয়েছে ৪০ দশমিক ৫৪ বিলিয়ন মার্কিন ডলারে। ২০০৮-০৯ সালে ৭ দশমিক ৪৭ বিলিয়ন মার্কিন ডলার বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ থেকে বেড়ে বর্তমানে ৪৪ দশমিক ০৩ বিলিয়ন মার্কিন ডলার হয়েছে। করোনা চলাকালে যখন উন্নত বিশ্বের অর্থনীতি ধুঁকছিল তখনো সচল ছিল বাংলাদেশের অর্থনীতির চাকা। জাতিসংঘের কমিটি ফর ডেভেলপমেন্ট পলিসি (সিডিপি)-এর প্রতিবেদন অনুসারে স্বল্পোন্নত থেকে উন্নয়নশীল দেশে উত্তরণের পথে ২০১৯ সালে বাংলাদেশে দারিদ্র্যের হার শতকরা ২০ দশমিক ৫ শতাংশ এবং হতদারিদ্র্যের হার ১০ দশমিক ৫ শতাংশ। ২০০১ সালে যথাক্রমে তা ছিল ৪৮ দশমিক ৩ ও ৩৪ দশমিক ৩ শতাংশ। দেশে ২০১৯-২০ অর্থবছরে দানাদার খাদ্যশস্য উৎপাদনের পরিমাণ ছিল ৪ কোটি ৫৩ লাখ ৪৪ হাজার মেট্রিক টন। এ ছাড়া বর্তমানে ইলিশ উৎপাদনে প্রথম স্থানে রয়েছে বাংলাদেশ। অভ্যন্তরীণ মুক্ত জলাশয়ে মাছ উৎপাদনে দ্বিতীয় এবং ধান উৎপাদনে তৃতীয় অবস্থানে। বর্তমানে অভ্যন্তরীণ খাদ্য চাহিদা মেটাতে বাংলাদেশ স্বয়ংসম্পূর্ণ। মধ্যম আয়ের দেশে উত্তরণের ক্ষেত্রে অভ্যন্তরীণ জ্বালানি শক্তির যথোপযুক্ত ব্যবহার জরুরি। আর সে কারণেই ক্ষমতা গ্রহণের পরপর দেশে বিদ্যুৎ উৎপাদন সক্ষমতা বাড়াতে মনোযোগ দেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। বর্তমানে ২৪ হাজার ৪২১ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ উৎপাদনে সক্ষম বাংলাদেশ। ২০০৯-১০ সালে সক্ষমতা ছিল মাত্র ৫ হাজার ২৭১ মেগাওয়াট। বর্তমানে দেশে বিদ্যুৎ সুবিধা ভোগ করে মোট জনসংখ্যার ৯৯ শতাংশ।

মানবসম্পদ সূচকে নজরকাড়া অগ্রগতি : গত ৫০ বছরে মানবসম্পদ সূচকেও বাংলাদেশের উন্নয়ন নজরকাড়ার মতো। জাতিসংঘের সূচকে এ ক্ষেত্রে বাংলাদেশের স্কোর ৭৩ দশমিক ২ শতাংশ। এ সূচকের পেছনে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রেখেছে মূলত শিশু ও মাতৃ স্বাস্থ্যের উন্নতি। জাতিসংঘ উন্নয়ন কর্মসূচির (ইউএনডিপি) ২০২০ সালের দ্য হিউম্যান ডেভেলপমেন্ট প্রতিবেদন অনুসারে মানব উন্নয়ন সূচকে গত বছরের তুলনায় ২ ধাপ এগিয়েছে বাংলাদেশ। সূচকে বাংলাদেশের বর্তমান অবস্থান ১৩৩। ২০১৩ সালেও বাংলাদেশের অবস্থান ছিল ১৪৩তম। জেন্ডার গ্যাপ ইনডেক্সে ১৫৩ দেশের মধ্যে বাংলাদেশের অবস্থান ৫০তম এবং নারীর রাজনৈতিক ক্ষমতায়নে সপ্তম অবস্থানে রয়েছে বাংলাদেশ। স্বাস্থ্য ও জীবনযাপন ব্যবস্থার উন্নয়নের মাধ্যমে দেশে গড় আয়ু বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৭২ দশমিক ৬ যা ২০০৯-১০ সালে ছিল ৬৯ দশমিক ৬১। শুধু তাই নয়, ২০০৯-১০ সালের তুলনায় মাতৃমৃত্যু হার লাখে কমে দাঁড়িয়েছে ১৬৫ জনে, যা আগে ছিল ২৮০ জন। পাঁচ বছরের কম বয়সী শিশুমৃত্যুর হার অর্ধেক কমে দাঁড়িয়েছে ২৮ জনে। বাংলাদেশ পরিসংখ্যান ব্যুরো (বিবিএস)-এর তথ্যমতে বাংলাদেশে ১৯৭৪ সালে প্রতি হাজারে শিশুমৃত্যুর সংখ্যা ছিল ১৫৩। ২০১৮ সালে এসে তা প্রতি হাজারে মাত্র ২২-এ নেমে আসে। এ ছাড়া বিবিএস ১৯৮১ সালে পাঁচ বছরের কম বয়সী শিশুমৃত্যুর সংখ্যা দিয়েছে প্রতি হাজারে ২১২। ২০১৮ সালে তা হয়েছে প্রতি হাজারে ২৯। ১৯৯১ সালে মাতৃমৃত্যুর হার ছিল ৪ দশমিক ৭৮ শতাংশ। এখন তা ১ দশমিক ৬৯ শতাংশে নেমে এসেছে।

পৃথিবীর সবচেয়ে সুখী দেশের তালিকায় বাংলাদেশ ১০১ নম্বরে। আগের জরিপে ছিল ১০৭ নম্বরে। সুখী দেশের তালিকায় এ বছর ৬ ধাপ এগিয়েছে। ২০১৯ সালে এ তালিকায় বাংলাদেশ ছিল ১২৫ নম্বরে। মানুষ ব্যক্তিজীবনে কতটা সুখী এর গড় মূল্যায়নে বাংলাদেশ ৬৮ নম্বরে স্থান পেয়েছে। ২০১৭-১৮ সালের স্কোরের চাইতে ৯ ধাপ এগিয়েছে বাংলাদেশ। সুখের পরিমাপক হিসাবে দেশটির সামাজিক সুযোগ-সুবিধা, সামাজিক উদারতা, ব্যক্তিগত স্বাধীনতা, মোট দেশজ উৎপাদন-জিডিপি, গড় আয়ু এবং দুর্নীতির মাত্রাকে বিবেচনায় নেওয়া হয়।

বাংলাদেশের মানবসম্পদ সূচকে অগ্রগতির সঙ্গে সঙ্গে অর্থনৈতিক সক্ষমতা এমনভাবে বেড়েছে যে বিদেশি ঋণসহায়তানির্ভর উন্নয়নে অভ্যস্ত দেশটি নিজস্ব অর্থায়নে বাস্তবায়ন করছে পদ্মা সেতুর মতো ৩০ হাজার কোটি টাকার বড় প্রকল্প। উন্নয়নশীল দেশ হওয়ার ক্ষেত্রে গত ৫০ বছরে বাংলাদেশের রূপান্তরের এটি সবচেয়ে বড় বিজ্ঞাপন।

 


বিডি প্রতিদিন/ ওয়াসিফ


বিজয় থেকে অর্জন


আপনার মন্তব্য

বিজয় থেকে অর্জন
বিজয় থেকে অর্জন
বিজয় থেকে অর্জন