শিরোনাম
প্রকাশ : রবিবার, ২৯ মার্চ, ২০২০ ০০:০০ টা
আপলোড : ২৮ মার্চ, ২০২০ ২৩:৩৩

খুলনায় সুবিধাভোগী সেই নেতারা লাপাত্তা

খাদ্য সংকটে কর্মহীন দুই লাখ মানুষ

সামছুজ্জামান শাহীন, খুলনা

খুলনায় সুবিধাভোগী সেই নেতারা লাপাত্তা

করোনাভাইরাস প্রতিরোধে অঘোষিত লকডাউনের শুরুতেই খুলনায় খাদ্য সংকটে পড়েছেন কয়েক হাজার হতদরিদ্র মানুষ। খুলনার সরকারি-বেসরকারি পাটকল ও রূপসার মাছ প্রক্রিয়াকরণ কোম্পানিগুলো বন্ধ থাকায় কর্মহীন দিনমজুররা পরিবার-পরিজন নিয়ে খাদ্য সংকটে পড়েছেন। এ ছাড়া রিকশাচালক, রাজমিস্ত্রি, সবজি বিক্রেতা, দিনমজুরসহ অসংখ্য মানুষ সীমাহীন কষ্টে দিন পার করছেন। এদিকে মানুষের এ দুঃসময়ে পাশে নেই খুলনার রাজনীতিতে সুবিধাভোগী নেতারা। উৎসব-পার্বণে ব্যয়বহুল ব্যানার-ফেস্টুনে নিজেদের ছবি টানিয়ে যারা সারা নগর ছেয়ে ফেলেন তাদের বেশিরভাগই লাপাত্তা। এ নিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে সমালোচনার তীব্র ঝড় বইছে। জানা যায়, খুলনার ছোট-বড় ৭২৬টি বস্তিতে বসবাস করেন নিম্নআয়ের প্রায় দুই লাখ মানুষ। এদের বেশিরভাগই দিনমজুর, রিকশা-ভ্যান ও ইজিবাইকচালক। আয় না থাকায় এসব হতদরিদ্র মানুষ এক প্রকার না খেয়েই দিন পার করছেন। সুশাসনের জন্য নাগরিক (সুজন) জেলা সম্পাদক অ্যাডভোকেট কুদরত-ই-খুদা বলেন, যারা দিন আনে দিন খায় এমন মানুষদের দ্রুত সামাজিক নিরাপত্তা কর্মসূচির আওতায় খাদ্য সহায়তা দিতে হবে। অন্যথায় আইন-শৃঙ্খলা পরিস্থিতির অবনতি হতে পারে। তিনি বলেন, রাজনীতির নামে যারা এতদিন সুবিধা নিয়েছেন এ দুঃসময়ে তাদের বেশিরভাগই লাপাত্তা। এ নিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমেও সমালোচনা হচ্ছে। ফেসবুকে একজন সংবাদকর্মী লিখেছেন, ‘একযুগ আগেও যেসব নেতার রিকশাভাড়া জুটত না। বর্তমানে তাদের নামি-দামি ব্র্যান্ডের গাড়ি হয়েছে। তাদের কতজন খেটে খাওয়া মানুষের পাশে দাঁড়িয়েছেন। এ প্রশ্ন এখন নগরবাসীর।’ এদিকে করোনাভাইরাসকে পুঁজি করে আওয়ামী লীগ বা সহযোগী সংগঠনের নামে কোনো অনুদান সংগ্রহ করলে সাংগঠনিক ব্যবস্থা নেওয়ার হুঁশিয়ারি দেওয়া হয়েছে। নগর আওয়ামী লীগ সভাপতি ও সিটি মেয়র তালুকদার আবদুল খালেক এক বিবৃতিতে এ দুঃসময়ে অনুদান সংগ্রহ নয়, আতঙ্কিত মানুষের পাশে থাকার জন্য নেতা-কর্মীদের আহ্বান জানিয়েছেন।


আপনার মন্তব্য