শিরোনাম
প্রকাশ : বুধবার, ২৮ এপ্রিল, ২০২১ ০০:০০ টা
আপলোড : ২৭ এপ্রিল, ২০২১ ২৩:২৯

গরমের তীব্রতা থাকবে আরও কয়েক দিন

ঝড়ো হাওয়ার আভাস

নিজস্ব প্রতিবেদক

গরমের তীব্রতা থাকবে আরও কয়েক দিন
গরমে অতিষ্ঠ নগরবাসী। একটু প্রশান্তির জন্য পানিতে নেমেছে শিশুরা। ছবিটি গতকাল রাজধানীর চন্দ্রিমা উদ্যান থেকে তোলা -জয়ীতা রায়

দেশজুড়ে দাবদাহ চলছে গত কয়েক দিন ধরেই। এতে সবচেয়ে বেশি কঠিন সময় পার করছেন শ্রমজীবী মানুষ। বৈশাখের শুরু থেকে তপ্ত হাওয়া বইছে সর্বত্র। চলতি সপ্তাহে দেশজুড়ে তাপপ্রবাহ বয়ে যায়। টানা খরতাপে জনজীবন কাতর হয়ে পড়েছে। এরই মধ্যে রবিবার যশোরে সর্বোচ্চ ৪১.২ ডিগ্রি সেলসিয়াস ও ঢাকায় ৩৯.৫ ডিগ্রি সেলসিয়াস তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয়। যা ২০১৪ সালের পর সবচেয়ে উষ্ণতম দিন। পরদিন সোমবার দেশের সর্বোচ্চ তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয়েছে যশোরে ৩৯.৮ ডিগ্রি সেলসিয়াস। ঢাকায় সর্বোচ্চ তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয়েছে ৩৯.৪ ডিগ্রি সেলসিয়াস। এদিকে গতকাল দেশের সর্বোচ্চ তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয়েছে রাজশাহীতে ৩৮.৩ ডিগ্রি সেলসিয়াস। এ সময় ঢাকায় সর্বোচ্চ তাপমাত্রা ছিল ৩৮ ডিগ্রি সেলসিয়াস। তাপমাত্রা সামান্য কমলেও দেশের বিস্তীর্ণ অঞ্চলে বিরাজমান তাপপ্রবাহ অব্যাহত রয়েছে। পরবর্তী ২৪ ঘণ্টায় রাজধানীসহ দেশের বিভিন্ন এলাকায় ঝড়ো হাওয়ার আভাস রয়েছে। তাতে তাপপ্রবাহের বিস্তারও কমে আসবে। গতকাল (১৪ বৈশাখ) দেশের সর্বোচ্চ তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয়েছে রাজশাহীতে ৩৮.৩ ডিগ্রি সেলসিয়াস। এ সময় ঢাকায় সর্বোচ্চ তাপমাত্রা ছিল ৩৮ ডিগ্রি সেলসিয়াস। আবহাওয়া অধিদফতর জানায়, সীতাকুন্ডু, হাতিয়া, রাঙামাটি, কুমিল্লা, মাইজদীকোর্ট, ফেনী, রাজশাহী ও পাবনা অঞ্চলসহ ঢাকা, রংপুর, খুলনা, বরিশাল ও সিলেট বিভাগের ওপর দিয়ে মৃদু থেকে মাঝারি ধরনের তাপপ্রবাহ বয়ে যাচ্ছে।সিনিয়র আবহাওয়াবিদ আবদুর রহমান বলেন, বিরাজমান এ তাপপ্রবাহ কিছু কিছু জায়গায় প্রশমিত হতে পারে।

কুমিল্লা, কুষ্টিয়া অঞ্চলসহ রংপুর, রাজশাহী, ময়মনসিংহ, সিলেট ও ঢাকা বিভাগের দুয়েক জায়গায় অস্থায়ীভাবে দমকাসহ বজ্র বৃষ্টি হতে পারে। দিনের তাপমাত্রা সামান্য কমতে পারে, রাতের তাপমাত্রা সামান্য বাড়তে পারে। তিনি জানান, আগামী পাঁচ দিনের মধ্যে বৃষ্টি ও বজ্রবৃষ্টির আভাস রয়েছে। দিনের তাপমাত্রাও ধীরে ধীরে কমে আসবে।

থার্মোমিটারের পারদ চড়তে চড়তে যদি ৩৬ থেকে ৩৮ ডিগ্রি সেলসিয়াসে ওঠে, আবহাওয়াবিদরা তাকে মৃদু তাপপ্রবাহ বলেন। উষ্ণতা বেড়ে ৩৮ থেকে ৪০ ডিগ্রি সেলসিয়াস হলে তাকে বলা হয় মাঝারি তাপপ্রবাহ। আর তাপমাত্রা ৪০ ডিগ্রি ছাড়িয়ে গেলে তাকে তীব্র তাপপ্রবাহ হিসেবে বিবেচনা করা হয়।

আবহাওয়াবিদরা জানান, দেশজুড়ে বিরাজমান তাপপ্রবাহ অনেক এলাকায় আরও দুয়েকদিন অব্যাহত থাকতে পারে। দিন-রাতের তাপমাত্রা অপরিবর্তিত থাকতে পারে। ২৯ এপ্রিলের দিকে ঝড়ো হাওয়াসহ বৃষ্টির আভাস রয়েছে। এর ফলে ৩০ এপ্রিল, ১ মে দেশের বিভিন্ন এলাকায় বজ্রসহ বৃষ্টি হতে পারে; এ সময় তাপপ্রবাহ প্রশমিত হয়ে আসবে।

প্রাণীরা পাচ্ছে তরল খাবার

প্রচন্ড দাবদাহে অতিষ্ঠ চিড়িয়াখানার প্রাণীরাও। টানা কয়েকদিনের ভ্যাপসা গরমে প্রাণীদের স্বস্তি দিতে বিকল্প ব্যবস্থা নিতে হচ্ছে জাতীয় চিড়িয়াখানার কর্তৃপক্ষকে। পানিশূন্যতায় ভুগতে থাকা প্রাণীদের দেওয়া হচ্ছে তরল খাবার। বদলে দেওয়া হয়েছে খাবারের তালিকাও। মহামারীর দ্বিতীয় ঢেউয়ে সংক্রমণ বাড়তে থাকায় গত ২ এপ্রিল থেকে বন্ধ রয়েছে মিরপুরের চিড়িয়াখানা। কর্তৃপক্ষ বলছে, দর্শনার্থী না থাকায় সেখানকার বাসিন্দারা ফুরফুরে মেজাজে থাকলেও তাদের আরামে বাগড়া দিচ্ছে গরমের তীব্রতা। দিনভর চড়তে থাকা গরম থেকে বাঁচতে গাছের ছায়ায় সময় কাটাচ্ছে প্রাণীরা, বাঘ-জলহস্তী-কুমির স্বস্তি নিচ্ছে পানিতে গা ডুবিয়ে।

দেশে বেশ কয়েকদিন ধরেই চলছে দাবদাহ। সাম্প্রতিককালের সবচেয়ে উষ্ণ এই সময়ে অসহনীয় পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়েছে দেশজুড়ে। মৃদু থেকে মাঝারি এই তাপপ্রবাহ থেকে পরিত্রাণ পেতে আরও কয়েকদিন অপেক্ষা করার কথা বলছেন আবহাওয়াবিদরা। আবহাওয়ার পূর্বাভাস অনুযায়ী, ২৯ এপ্রিলের দিকে ঝড়ো হাওয়াসহ বৃষ্টি হতে পারে। বাড়তে থাকা খরতাপে অতিষ্ঠ প্রাণীদের মধ্যে পানিশূন্যতা তৈরি হয়েছে। সেজন্য তাদের খাবার তালিকায় পরিবর্তন আনা হয়েছে।

এই বিভাগের আরও খবর