Bangladesh Pratidin || Highest Circulated Newspaper
শিরোনাম
প্রকাশ : শনিবার, ৯ নভেম্বর, ২০১৯ ০০:০০ টা
আপলোড : ৮ নভেম্বর, ২০১৯ ২৩:১৭

নৈরাজ্যে বিশৃঙ্খল রাজধানীর সড়ক

বিশেষজ্ঞরা বলেছেন জরিমানা ও শাস্তির বিধান রেখে নতুন আইন বাস্তবায়ন করা গেলে চলাচলে স্বাচ্ছন্দ্য ফিরে আসবে

শিমুল মাহমুদ

নৈরাজ্যে বিশৃঙ্খল রাজধানীর সড়ক

সীমাহীন নৈরাজ্যে বিশৃঙ্খল রাজধানীর সড়ক পথে এখন শৃঙ্খলা ফেরানোই বড় চ্যালেঞ্জ হয়ে দাঁড়িয়েছে। নতুন সড়ক পরিবহন আইন কার্যকর করার আগে এসব চ্যালেঞ্জ মোকাবিলা করতে হবে সরকারকে। বিশেষজ্ঞরা বলেছেন, একদিকে সড়ক ব্যবহারকারী লাখ লাখ যাত্রী-পথচারীকে আইন মানানো অন্যদিকে পরিবহন মালিক-শ্রমিকদের নতুন আইনের প্রতি শ্রদ্ধাশীল করার কঠিন কাজটি করতে হবে ট্রাফিক পুলিশকে। এর পাশাপাশি প্রায় সাড়ে চার লাখ ফিটনেসহীন যানবাহনকে ফিটনেসের আওতায় আনা এবং সড়ক ব্যবস্থাপনায় কিছু অপরিহার্য সংস্কার আনতে হবে। আগের চেয়ে অনেকগুণ বেশি জরিমানা ও শাস্তির বিধান রেখে প্রবর্তিত নতুন সড়ক পরিবহন আইনটি বাস্তবায়ন করা গেলে চলাচলে স্বাচ্ছন্দ্য ফিরে আসবে। মানুষের ভোগান্তি এবং সড়ক দুর্ঘটনার পরিমাণও অনেক কমে আসবে।  বিশেষজ্ঞদের মতে, যানজট কবলিত রাজধানী ঢাকায় দিল্লির মতো একদিন জোড় অন্যদিন বিজোড় সংখ্যার গাড়ি চলাচলের বিধি আরোপ করলে শহরে প্রাইভেট কারের আধিক্য কমে যানজট পরিস্থিতির উন্নতি হবে। শিক্ষাঙ্গন অধ্যুষিত এলাকাগুলোতে স্কুলের শুরু ও ছুটির সময়ে প্রাইভেট কার নিয়ন্ত্রণ করলে সুফল পাওয়া যাবে। পুরো শহরজুড়ে হাজার হাজার আন্তজেলা বাস কাউন্টার বন্ধ করে দিতে হবে। এসব বাস কাউন্টারে দিনভর দূরপাল্লার বাসগুলো থেমে থেমে যাত্রী ওঠানামা করায়। এক সময় দূরপাল্লার বাস দিনের বেলায় রাজধানীতে ঢুকতে পারত না। তারা মিনিবাসে করে যাত্রী নিয়ে টার্মিনালে দূরপাল্লার বাসে পৌঁছে দিত। এখন পুরো রাজধানী জুড়েই বাসের স্টপেজ গড়ে উঠেছে যা কঠোরভাবে নিয়ন্ত্রণ করতে হবে। সাধারণ যাত্রী ও পথচারীকে মোটিভেশনের আওতায় নিয়ে আসতে হবে। প্রভাবশালীরাও যেন কোনো ক্ষেত্রেই রাস্তায় নেমে আইন ভাঙতে না পারে সে বিষয়টি নিশ্চিত করতে হবে। আইন লঙ্ঘনে শক্তিমানদের শাস্তি হলে অন্যদের আইনের প্রতি ভয় ও শ্রদ্ধা বেড়ে যাবে। এক্ষেত্রে ট্রাফিক বিভাগকে কঠোর অবস্থান নিতে হবে। রাজধানীতে মেট্রোরেল, এলিভেটেড এক্সপ্রেসওয়ে, বাস র‌্যাপিড ট্রানজিটসহ (বিআরটি) বিভিন্ন উন্নয়ন কর্মকান্ডে  সাধারণ মানুষের চলাচলের ফুটপাথ বিভিন্ন জায়গায় বিনষ্ট হয়ে গেছে। মানুষ হাঁটছে মূল সড়ক দিয়ে। অনেকে ফুটওভারব্রিজ রেখে রাস্তা দিয়ে হাঁটছেন। অনেকে মোবাইল ফোনে কথা বলতে বলতে চলন্ত গাড়ির সামনে দিয়ে রাস্তা পার হচ্ছেন। এই অরাজকতা কঠোরভাবে বন্ধ করতে হবে। দেড় কোটি মানুষের এই শহরে সবাই আইন ভাঙলে আপাত কঠোর সড়ক পরিবহন আইন কোনো কাজেই আসবে না। অন্যদিকে মানুষ যেন ফুটপাথ দিয়ে স্বাচ্ছন্দ্যে, নির্বিঘ্নে হেঁটে চলতে পারে সেই ব্যবস্থাটা নিশ্চিত করতে হবে। রাজধানীর অনেক ফুটওভারব্রিজ সঠিক জায়গায় নেই। আরও বেশি সংখ্যক ফুটওভারব্রিজ জায়গা মতো স্থাপন করতে হবে।

রাজধানীতে কোম্পানিভিত্তিক বাস পরিচালনার একটি প্রকল্প প্রয়াত মেয়র আনিসুল হকের সময়ে নেওয়া হয়েছিল। এর আগে ঢাকা যানবাহন সমন্বয় বোর্ড (ডিটিসিবি) এই বাস রুট প্রবর্তনের উদ্যোগ নেয়। কিন্তু দীর্ঘ দিনেও সেটি বাস্তবায়ন হচ্ছে না। এই কোম্পানিভিত্তিক বাস রুট প্রবর্তন হলে একটি রুটে শুধু একটি কোম্পানির বাস চলতে পারবে। চালক হেলপাররা নির্দিষ্ট হারে বেতন পাবেন। ফলে অতিরিক্ত আয়ের আশায় সড়কে বাসের রেস করতে হবে না। যাত্রী তোলার প্রতিযোগিতায় নামতে হবে না। সড়ক পরিবহনে শৃঙ্খলা ফিরে আসবে।

প্রতিটি বাস স্ট্যান্ডে আরও বেশি পরিমাণ জায়গা নিয়ে বাস বে করতে হবে। এটি করা গেলে বাস স্টপেজে বাসের অরাজকতা বন্ধ করা সহজ হবে। যেসব গাড়ি যাত্রী তুলবে তারাই কেবল বাস বেতে প্রবেশ করবে। যাদের যাত্রী তোলার প্রয়োজন নেই তারা সোজা চলে যাবে স্টপেজ পেরিয়ে। ফলে বাস স্টপেজে গাড়ির জটলা কমে যাবে। বাস বেতে একটি গাড়ি কতক্ষণ অবস্থান করতে পারবে সেটি নির্ধারণ করবে ট্রাফিক পুলিশ। ফলে বাস স্টপেজকেন্দ্রিক নৈরাজ্য সহজেই বন্ধ করা যাবে। রাজধানীর পুরো সড়ক পথে ক্লোজ সার্কিট টিভি ক্যামেরার পর্যবেক্ষণ রাখতে হবে। যাতে স্টপেজের বাইরে মাঝ রাস্তায় যাত্রী ওঠানামার প্রবণতা বন্ধ করা যায়। মাঝ রাস্তায় যাত্রী তোলা বা নামানো হলে সিসি ক্যামেরার ফুটেজ দেখে তাৎক্ষণিক ব্যবস্থা নেওয়ার সুযোগ থাকতে হবে। দেড় কোটি মানুষের এই রাজধানীতে উন্নত মানের বাস পরিষেবা নিশ্চিত করতে পারলে প্রাইভেট কার আরোহীর সংখ্যা অনেক কমে যাবে। কমবে দুঃসহ যানজট। যত্রতত্র বিশৃঙ্খল পার্কিং কঠোরভাবে নিয়ন্ত্রণ করতে হবে। রাস্তা যতটুকু রয়েছে সবটাই যেন যানবাহনের প্রয়োজনে ব্যবহৃত হয় তা নিশ্চিত করতে হবে। সড়ক ও ফুটপাথ দখল করে কোনো বাণিজ্যিক কর্মকা  যেন চলতে না পারে সেটি নিশ্চিত করা গেলে মানুষ ও যানবাহনের চলাচলে নতুন গতি আসবে। যানজটে স্থবির রাজধানী ঢাকা গতি ফিরে পাবে। বেড়ে যাবে যানবাহন চলাচলের গড় গতিবেগ। 


আপনার মন্তব্য