শিরোনাম
প্রকাশ : শনিবার, ৪ এপ্রিল, ২০২০ ০০:০০ টা
আপলোড : ৩ এপ্রিল, ২০২০ ২৩:৩৩

দেশে আরও পাঁচজন শনাক্ত

২৪ ঘণ্টায় কল ৬৫ হাজার : স্বাস্থ্য অধিদফতর, ঢাকায় টিভি সাংবাদিক আক্রান্ত

নিজস্ব প্রতিবেদক

দেশে আরও পাঁচজন শনাক্ত

দেশে আরও পাঁচজনের মধ্যে নভেল করোনাভাইরাসের সংক্রমণ ধরা পড়ায় আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে হয়েছে ৬১ জন। এ পর্যন্ত সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছেন ২৬ জন, মারা গেছেন ছয়জন। গত ২৪ ঘণ্টায় স্বাস্থ্য বাতায়ন, আইইডিসিআরের হটলাইনে করোনাসংক্রান্ত জিজ্ঞাসায় কল এসেছে ৬৫ হাজার ৯৮৪টি। ইনডিপেনডেন্ট টেলিভিশনের এক কর্মী করোনা আক্রান্ত হয়েছেন বলে জানিয়েছে ওই টেলিভিশন কর্তৃপক্ষ।

গতকাল স্বাস্থ্য অধিদফতরের নিয়মিত অনলাইন ব্রিফিংয়ে স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক দেশে করোনাভাইরাস আক্রান্তের তথ্য তুলে ধরেন। তিনি বলেন, ‘সবাইকে অনুরোধ করব, আপনারা বাসায় থাকার চেষ্টা করবেন, সামাজিক দূরত্ব মেনে চলবেন।’ স্বাস্থ্য অধিদফতরের মহাপরিচালক অধ্যাপক ডা. আবুল কালাম আজাদ, অতিরিক্ত মহাপরিচালক অধ্যাপক ডা. নাসিমা সুলতানা, আইইডিসিআরের পরিচালক অধ্যাপক ডা. মীরজাদি সেব্রিনা ফ্লোরা, এমআইএস শাখার পরিচালক ডা. হাবিবুর রহমান এই ভার্চুয়াল সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন।

স্বাস্থ্যমন্ত্রীর বক্তব্যের পর সংবাদ সম্মেলনে নতুন আক্রান্তদের বিষয়ে বিস্তারিত তথ্য জানান ডা. আবুল কালাম আজাদ। এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, এখন পর্যন্ত যে ছয়জন মারা গেছেন, তাদের মধ্যে নারায়ণগঞ্জের বন্দর এলাকায় মারা যাওয়া নারীও রয়েছেন। ব্রিফিংয়ে জানানো হয়, দেশের ৪৩ জেলা থেকে নভেল করোনাভাইরাস পরীক্ষার তথ্য এ পর্যন্ত পাওয়া গেছে। গত ২৪ ঘণ্টায় ৫১৩টি নমুনা সংগ্রহের পর পরীক্ষা করা হয়েছে। এর মধ্যে আইইডিসিআর ১২৬টি নমুনা পরীক্ষা করেছে। বাকিগুলো অন্যান্য ল্যাব এবং জেলায় করা হয়েছে। স্বাস্থ্য অধিদফতরের মহাপরিচালক বলেন, আইইডিসিআরের বাইরের ল্যাবরেটরিতে পরীক্ষা করে তিনটি নমুনা পজিটিভ এসেছে। আমরা সংক্রমণ হয়েছে ধরে নিয়ে যে সাবধানতা অবলম্বন করা দরকার তা করছি। তারা কাদের সঙ্গে মেলামেশা করেছেন তা শনাক্ত করা হচ্ছে। তাদের আলাদা রাখা হচ্ছে। কিন্তু যেহেতু নতুন ল্যাবরেটরি, তাই রিপোর্ট হয়তো আমরা আরেকটু যাচাই-বাছাই করব। আক্রান্তদের মধ্যে ২৯ জন বর্তমানে পর্যবেক্ষণে আছেন। তাদের মধ্যে ২২ জন হাসপাতালে, বাকিরা বাড়িতে থেকে চিকিৎসা নিচ্ছেন বলে জানান আবুল কালাম আজাদ। এই সময়ে জ্বর ও সর্দিসহ শ্বাসতন্ত্রের রোগে আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে গেছে। আবার কভিড-১৯ হলেও সর্দি-কাশি হতে পারে। এ কারণে মানুষ আগের চেয়ে বেশি ভয় পাচ্ছে জানিয়ে আতঙ্কিত না হওয়ার পরামর্শ দেন মহাপরিচালক।

তিনি বলেন, ‘আমাদের পরামর্শ হলো, কারও যদি সামান্য জ্বর-গলাব্যথা থাকে তারা বাড়িতেই চিকিৎসা নিন। জ্বর থাকলে প্যারাসিটামল খাবেন, গলাব্যথা থাকলে কুসুম গরম পানি দিয়ে গড়গড়া করবেন। সর্দি-কাশির জন্য এন্টিহিস্টামিন সিরাপ খেতে পারেন। অবস্থা জটিল না হলে হাসপাতালে যাওয়ার প্রয়োজন নেই। বেশি অসুবিধা হলে ১৬২৬৩, ৩৩৩, ১০৬৫৫ এসব হটলাইনে ফোন করে পরামর্শ নিতে পারেন।

তিনি বলেন, এখন পর্যন্ত দেশে ৬৪ হাজার ২৩৬ জনকে কোয়ারেন্টাইন, ২৪৮ জনকে প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টাইনে নেওয়া হয়েছে। গত ২৪ ঘণ্টায় সারা দেশে ৫৪৭ জনকে হোম কোয়ারেন্টাইনে এবং ৫ জনকে প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টাইনে নেওয়া হয়েছে। রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে (রমেক) ৪২ জনের নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন রমেক অধ্যক্ষ নুরুন্নবী লাইজু। ইনডিপেনডেন্ট টেলিভিশনের সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানা যায়, প্রতিষ্ঠানটির একজন কর্মী নভেল করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে রাজধানীর একটি হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন। এ ঘটনার পর ৪৭ জন কর্মীকে হোম কোয়ারেন্টাইনে থাকতে বলেছে টেলিভিশন কর্তৃপক্ষ। ইনডিপেনডেন্ট টেলিভিশনের প্রধান নির্বাহী এম শামসুর রহমান গতকাল এক ভিডিও বার্তায় বলেন, অত্যন্ত দুঃখের সঙ্গে জানাচ্ছি যে, ইনডিপেনডেন্ট টেলিভিশন পরিবারের এক সদস্য কভিড-১৯ রোগে আক্রান্ত। শেষ ২৬ মার্চ তিনি অফিসে কর্মরত ছিলেন। সেদিন রাতে করোনার উপসর্গ দেখা দিলে তিনি আমাদের জানান যে, তিনি অফিসে আসতে পারবেন না। তখন থেকে সেলফ আইসোলেশনে ছিলেন। দুই দিন আগে তিনি আইইডিসিআরের হটলাইনে যোগাযোগ করেন। তার স্যাম্পল নিলে দেখা যায় দুঃখজনকভাবে তিনি এ রোগে আক্রান্ত। ইনডিপেনডেন্ট টেলিভিশনের পক্ষ থেকে তাকে সব ধরনের সহযোগিতা করা হচ্ছে। আইইডিসিআর কর্তৃপক্ষের সঙ্গে আমাদের যোগাযোগ রয়েছে। তিনি আরও বলেন, তার সংস্পর্শে যারা এসেছিলেন তাদের ৪৭ জনের একটি তালিকা আমরা করেছি। এসব সহকর্মীকে সেলফ আইসোলেশনে পাঠানো হয়েছে। ২৬ মার্চ থেকে হিসাব করে আগামী পাঁচ দিনে যদি কোনো সহকর্মীর উপসর্গ দেখা না দেয় তাহলে বলা যাবে আর কোনো সংক্রমণ হয়নি। গণমাধ্যমকর্মীদের ঝুঁকির মধ্য দিয়ে পেশাগত দায়িত্ব পালন করতে হয়। আমি অসুস্থ সহকর্মীর সঙ্গে গতকাল কথা বলেছি। তিনি সুস্থ হয়ে উঠছেন।

চট্টগ্রামে প্রথম করোনা রোগী শনাক্ত : চট্টগ্রামে প্রথম করোনা রোগী শনাক্ত হয়েছে। আক্রান্ত ওই ব্যক্তি একজন পুরুষ। তার বয়স ৬৭ বছর। গতকাল বিকালে তার করোনা পজেটিভ পাওয়া যায়। চট্টগ্রামের সিভিল সার্জন ডা. সেখ ফজলে রাব্বি বলেন, গতকাল চট্টগ্রামের করোনা পরীক্ষাগার ফৌজদারহাট বিআইটিআইডিতে ৩১ জনের নমুনা সংগ্রহ করা হয়। যার মধ্যে একজনের করোনা পজেটিভ পাওয়া গেছে। আক্রান্ত ব্যক্তি বর্তমানে হাসপাতালে চিকিৎসাধীন আছেন।


আপনার মন্তব্য

এই বিভাগের আরও খবর