শিরোনাম
শুক্রবার, ৩ ফেব্রুয়ারি, ২০২৩ ০০:০০ টা

যেভাবে পার পাচ্ছে খুনের আসামিরা

মাহবুব মমতাজী

আলী হোসেন নামে এক ব্যক্তিকে খুনের ঘটনায় ১৯৯৮ সালের ২২ ফেব্রুয়ারি রাজধানীর ডেমরা থানায় একটি মামলা হয়। মামলা নম্বর-১২১। ওই মামলায় আসামি করা হয়েছিল চারজনকে। পরে পুলিশ তদন্ত করে দেখে আসামিদের কেউ খুনে জড়িত নন। এর পেছনে অন্য কেউ। দিনের পর মাস, মাসের পর বছর, আর বছরের পর শেষ হয়েছে অন্তত দুই যুগ। এখনো উদ্ঘাটিত হয়নি সেই খুনের রহস্য। খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, এরই মধ্যে মামলার বাদীও মারা গেছেন। রহস্য না পাওয়ায় মামলাটির বিচারও হয়নি।

এভাবে খুনের মামলায় জড়িতরা পার পেয়ে যাচ্ছে। এসব মামলায় অভিযুক্তদের সাজা না পাওয়ার হার বেশি পাওয়া গেছে একটি গবেষণায়। তবে এই সাজা না পাওয়ার কিছু কারণও তুলে ধরেছেন অপরাধ-বিশেষজ্ঞরা।

ঢাকায় মামলা তদন্তে ভুলভ্রান্তি তুলনামূলক কম। তাই অভিযুক্তের খালাস পাওয়ার ঘটনাও সেভাবে পাওয়া যায়নি। দূরের কিছু বড় জেলার বহুদিন আগের কিছু মামলার তথ্য সংগ্রহ করা হয়। অনেকটা দ্বৈবচয়ন পদ্ধতিতে সংগ্রহ করা এসব মামলার রায় হয়েছে ২০১৫ ও ২০১৬ সালের দিকে। পুলিশের মাধ্যমে সিলেটের তিনটি থানার চারটি মামলার তথ্য সংগ্রহের পর পর্যালোচনা করে দেখা যায়, বিশ্বনাথ থানায় ২০১১ সালের ১১ জুলাই একটি মামলা হয়। মামলার নম্বর-৯। পূর্বশত্রুতার জেরে পিটিয়ে হত্যার ঘটনা এটি। প্রায় তিন বছর বিচার চলার পর ২০১৫ সালের ২০ সেপ্টেম্বর মামলার রায় হয়। রায়ে খালাস পান অভিযুক্ত। একই বছর আরও তিনটি মামলার রায়ে খালাস হয়েছে। সেগুলো হলো- ২০১৪ সালের ১২ জানুয়ারি বিশ্বনাথ থানার আরেকটি মামলা; গোলাপগঞ্জ থানার ২০০২ সালের ২০ আগস্টের একটি মামলা; বিয়ানীবাজার থানার ২০০৪ সালের ৪ অক্টোবরের মামলা। থানা পুলিশের তদন্ত-সংশ্লিষ্টদের ভাষ্য, বিচারের দীর্ঘ সময়ের কোনো এক পর্যায়ে ভুক্তভোগীর স্বজন ও অভিযুক্তদের মধ্যে এক ধরনের আপস হয়ে যায়। ফলে আদালতে বাদী শক্তভাবে তথ্য-প্রমাণ উপস্থাপন না করায় আসামির খালাস হয়ে যায়। এদিকে সিলেটের মতো ময়মনসিংহের তিনটি থানার মামলার তথ্য সংগ্রহ করা হয়। ২০১৬ সালে এ তিনটি মামলার রায়ে কয়েকজন অভিযুক্ত খালাস পান। এর মধ্যে পারিবারিক কারণে খুনের ঘটনায় ২০১২ সালের ৬ অক্টোবর ফুলবাড়িয়া থানায় একটি মামলা হয়। পূর্বশত্রুতার জেরে কুপিয়ে হত্যার ঘটনায় একই বছর ১৮ জানুয়ারি হালুয়াঘাট থানায় একটি মামলা হয়। একই ধরনের খুনের ঘটনায় ২০০৮ সালের ৭ এপ্রিল গৌরীপুর থানায় আরেকটি মামলা হয়। খুনের মামলা নিয়ে পুলিশের অপরাধ তদন্ত বিভাগের (সিআইডি) ২০১৯ সালের একটি পরিসংখ্যান পাওয়া যায়। সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা জানান, ওই বছরের পর বাৎসরিক অপরাধ পরিসংখ্যানের কোনো প্রকাশনা পুলিশ সদর দফতর থেকে আর বের করা হয়নি। ২০১৯ সালের পরিসংখ্যানে দেখা যায়, ওই বছর পর্যন্ত মোট ২ হাজার ২৫১টি খুনের মামলা তদন্ত করে সিআইডি। এর মধ্যে ৬৪০টি মামলার অভিযোগপত্রে ৪ হাজার ২২৭ জনকে অভিযুক্ত করা হয়। খুনের ঘটনা সত্য হওয়ার পরও রহস্য না মেলায় চূড়ান্ত প্রতিবেদন (ফাইনাল রিপোর্ট) দেওয়া হয়েছে ১৮৭টি মামলায়। আর মিথ্যা খুনের ঘটনায় করা মামলায় চূড়ান্ত রিপোর্ট দেওয়া হয়েছে পাঁচটি। তদন্তাধীন মামলার সংখ্যা ছিল ১ হাজার ২৫০টি। তাদের হিসাবে মামলায় অভিযোগপত্র দাখিলের হার ছিল ৬৪ শতাংশ। খুনের মামলার বিচার নিশ্চিত করতে তদন্ত তদারকিতে থাকা পুলিশের কর্মকর্তাদের মধ্যে একজনের সঙ্গে কথা হয় এ প্রতিবেদকের। তিনি হলেন ঢাকা মহানগর পুলিশের (ডিএমপি) গুলশান বিভাগের অতিরিক্ত উপকমিশনার (এডিসি) ইফতেখায়রুল ইসলাম। এ কর্মকর্তা বলেন, ‘খুন সংঘটিত হওয়ার পর একজন তদারক কর্মকর্তা হিসেবে আমরা ঘটনাস্থল পরিদর্শন করি এবং একই সঙ্গে বিভিন্ন এভিডেন্স সংগ্রহ করি। অভিযুক্ত ঘটনার সঙ্গে সংশ্লিষ্ট থাকলে বা এর বাইরে আরও কেউ ঘটনার সঙ্গে জড়িত থাকলে তাকে বা তাদের গ্রেফতারের জন্য তদন্ত কর্মকর্তাকে সব ধরনের সহায়তা নিশ্চিত করার পাশাপাশি তথ্য-প্রযুক্তির সহায়তাও প্রদান করা হয়। সংগৃহীত সাক্ষ্য বিশ্লেষণের জন্য বিশেষজ্ঞ মতামতের ওপর গুরুত্ব আরোপ করা হয়। সর্বোপরি বিশেষজ্ঞ মতামত ও ঘটনার সঙ্গে সংশ্লিষ্ট সব বিষয়ের আলোকে পুরো মামলাকে সঠিক পথে রাখার মাধ্যমে সুবিচার নিশ্চিত করার সর্বাত্মক চেষ্টা করা হয় একজন সুপারভাইজিং অফিসার হিসেবে।’ খুনের মামলাগুলোর সর্বশেষ অবস্থা খুঁজতে গিয়ে পুলিশের বিশেষায়িত তদন্ত সংস্থা পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশনের (পিবিআই) একটি গবেষণা প্রতিবেদন পাওয়া যায়। ওই গবেষণা প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ২৩৯টি খুনের মামলার রায় পর্যালোচনা করে তারা দেখেছে- এসবের মধ্যে সর্বোচ্চ সাজা মৃত্যুদণ্ড ও যাবজ্জীবনসহ বিভিন্ন সাজা প্রদান করা হয়েছে ১১৬টি মামলায়। খালাস প্রদান করা হয়েছে ১২৩টিতে, যা খুনের মামলায় রায় প্রদানের ৫১ শতাংশ। তারা রায়ের কপিগুলো পর্যালোচনা করে দেখেন, শুধু আপস-মীমাংসার কারণে ঠিকমতো সাক্ষ্য প্রদান না করায় আদালত খালাস প্রদান করেন এবং এসব ক্ষেত্রে সাক্ষীদের বৈরী ঘোষণা করে রাষ্ট্রপক্ষ জেরা করেন। এমন মামলার সংখ্যা ৪৫টি। এ ছাড়া তদন্ত কর্মকর্তার তদন্তের ত্রুটির কারণে অভিযোগ প্রমাণ করতে না পারায় কোনো কোনো মামলায় খালাস প্রদান করা হয়েছে। শুধু তদন্তে ত্রুটিজনিত কারণে খালাসপ্রাপ্ত মামলার সংখ্যা ১৬। সাক্ষীরা ঠিকভাবে সাক্ষ্য প্রদান না করাসহ এর সঙ্গে রয়েছে ময়নাতদন্ত রিপোর্টের সামঞ্জস্যহীনতা, এজাহারের ত্রুটি। পিবিআইর প্রধান অতিরিক্ত আইজিপি বনজ কুমার মজুমদার বলেন, ‘তদন্ত কর্মকর্তাকে মামলার তদন্ত ঠিকঠাকভাবে গুছিয়ে দিতে হবে। তাকে শক্তিশালী সাক্ষী নির্বাচন করতে হবে। যখন মামলার অভিযোগপত্র আদালতে দেওয়া হয়, তখন ওই মামলার সব কাগজপত্র দেখভালের দায়িত্বে থাকেন রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী। এরপর তদন্ত কর্মকর্তার আর কোনো কাজ থাকে না। সব কাজ চালিয়ে নেওয়ার দায়িত্ব তখন রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবীর। বিচার যেন নিশ্চিত হয় এ জন্য আমরা ব্যক্তিসাক্ষীর সংখ্যা কমিয়ে এনে অন্যান্য এভিডেন্সভিত্তিক সাক্ষ্য সংগ্রহের ওপর জোর দিই। ব্যক্তিসাক্ষী হিসেবে তাকেই নিতে বলি যিনি আদালতে সাক্ষ্য দেওয়ার জন্য মানসিকভাবে প্রস্তুত থাকবেন।’ সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী ব্যারিস্টার এস এম আশরাফুল ইসলাম বলেন, ভুল কাউকে আসামি করলে পরে দেখা যায় তিনি ঘটনায় জড়িত নন। তখন তদন্ত কর্মকর্তা তার সম্পর্কে চূড়ান্ত রিপোর্ট দেন। মামলা করার সময় ত্রুটি হলে অভিযুক্ত খালাস পেতে পারেন।

কারণ ঘটনার সঙ্গে সামঞ্জস্যপূর্ণ ধারা মামলায় না থাকলে সে মামলা টেকে না। আর আদালত কাগজপত্র ও সাক্ষীদের বক্তব্যের ভিত্তিতে বিচার করে থাকেন।

সর্বশেষ খবর