শিরোনাম
প্রকাশ : বুধবার, ৩১ মার্চ, ২০২১ ০০:০০ টা
আপলোড : ৩০ মার্চ, ২০২১ ২৩:২১

মোংলা বন্দর চ্যানেলে কয়লা বোঝাই লাইটার জাহাজডুবি

বাগেরহাট প্রতিনিধি

মোংলা বন্দরের পশুর চ্যানেলে ৪০০ মেট্রিক টন কয়লা বোঝাই এমভি ইফসিয়া মাহিন নামের একটি লাইটার কার্গো জাহাজ ডুবে গেছে। অতিরিক্ত পানির স্রোতে গতকাল দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে বন্দর জেটির অন্য পাশে কাটাখালী এলাকায় লাইটার কার্গো জাহাজ ডুবে যাওয়ার এই ঘটনা ঘটে। এ সময় ওই জাহাজটিতে থাকা নয়জন স্টাফ ও একজন নিরাপত্তাকর্মী সাঁতরে কূলে উঠে যান। এর আগে গত ২৭ ফেব্রুয়ারি রাতে মোংলা পশুর চ্যানেলে ৭০০ মেট্রিক টন কয়লা নিয়ে ডুবে যায় এমভি  বিবি-১১৪৮ নামের আরেকটি লাইটার কার্গো জাহাজ। সুন্দরবনের অদূরে কয়লা বোঝাই এই লাইটার কার্গো জাহাজডুবির ঘটনায় আবারও হুমকির মুখে পড়েছে সুন্দরবনের জীববৈচিত্র্য। ডুবে যাওয়া লাইটার কার্গো জাহাজ এমভি ইফসিয়া মাহিনের মাস্টার মো. শাহালম জানান, মোংলা বন্দরের হাঁড়িবাড়িয়ার ছয় নম্বরে থাকা একটি বিদেশি জাহাজ থেকে ২৮ মার্চ রবিবার ভোরে কয়লা বোঝাই করেন তারা। কার্গোটিতে প্রায় ৪০০ মেট্রিক টন কয়লা বোঝাই শেষে সকাল ৯টার দিকে পশুর নদীর বাণীশান্তা বাজার বয়ায় অবস্থান নেয়। সেখানে থাকাকালে গতকাল দুপুরের দিকে প্রচ- পানির স্রোতে বয়া থেকে কার্গো জাহাজ বাঁধা রশি ছিঁড়ে যায়। এ সময় এমভি ইফসিয়া মাহিনসহ প্রায় ১০টি জাহাজ ওই বয়া থেকে ছুটে যায়। পরে জাহাজগুলো দুর্ঘটনা এড়াতে যে যার মতো নিরাপদে সরতে থাকে। এ সময় ওই সব কার্গোর মধ্যে একটির সঙ্গে ধাক্কা লাগে ইফসিয়া মাহিনের। এতে ইফসিয়া মাহিনের বাম পাশের হ্যাচ ফেটে যায়। তারপরও জাহাজটি বাঁচাতে মাস্টার শাহালম প্রাণপণ চেষ্টা করেন। জাহাজটি ভাসতে ভাসতে বাণীশান্তা থেকে কাটাখালী গেলে সেখানে ফাটা জায়গা থেকে পানি উঠতে উঠতে এক পর্যায়ে ডুবে যায়। তবে জাহাজের স্টাফ ও এক নিরাপত্তা কর্মী সাঁতরে নদীর কূলে উঠে যান। ডুবন্ত জাহাজটি পশুর চ্যানেলের বাইরের চরের দিকে ডোবায় মূল চ্যানেল নিরাপদ রয়েছে বলে জানিয়েছে বন্দরের হারবার বিভাগ। ডুবে যাওয়া জাহাজটির কয়লা নিয়ে যশোরের নওয়াপাড়ায় যাওয়ার কথা ছিল। জাহাজটির ধারণক্ষমতা ছিল ৫০০ মেট্রিক টন। বোঝাই করা হয়েছিল ৪০০ মেট্রিক টন। মোংলা বন্দর চ্যানেলে ও সুন্দরবনের পশুর নদীতে একের পর এক লাইটার কার্গো জাহাজডুবিতে উদ্বেগ প্রকাশ করে বাংলাদেশ পরিবেশ আন্দোলনের (বাপা) মোংলা উপজেলা সভাপতি মো. নূর আলম শেখ বলেন, বর্তমানে সুন্দরবনের মাছ ও শিলা কাঁকড়ার প্রজনন মৌসুম। এই ভরা প্রজনন মৌসুমে ৪০০ মেট্রিক টন কয়লা বোঝাই এমভি ইফসিয়া মাহিন নামের লাইটার কার্গো জাহাজ ডুবির ঘটনায় মাছ ও শিলা কাঁকড়ার প্রজনন ব্যাহত হবে। একই সঙ্গে সুন্দরবনের জীববৈচিত্র্য আবারও হুমকির মুখে পড়েছে। ওয়ার্ল্ড হ্যারিটেজ সাইড এই ম্যানগ্রোভ বনকে বাঁচাতে সুন্দরবন ও পশুর চ্যানেল দিয়ে মেয়াদোত্তীর্ণ সব লাইটার কার্গো জাহাজ চলাচল বন্ধের দাবি জানান এই পরিবেশবাদী নেতা।


আপনার মন্তব্য