শিরোনাম
প্রকাশ : ১৯ সেপ্টেম্বর, ২০২০ ১২:৪৭
আপডেট : ১৯ সেপ্টেম্বর, ২০২০ ১৩:৫৮

বৃদ্ধাশ্রম

আবু তাহের খোকন

বৃদ্ধাশ্রম

ছেলে আমার মস্ত মানুষ, মস্ত অফিসার
মস্ত ফ্ল্যাটে যায় না দেখা এপার ওপার।
নানান রকম জিনিস, আর আসবাব দামি দামি
সবচেয়ে কম দামি ছিলাম একমাত্র আমি।
ছেলের আমার, আমার প্রতি অগাধ সম্ভ্রম
আমার ঠিকানা তাই বৃদ্ধাশ্রম!

কিন্তু কেন এই বৃদ্ধাশ্রম?

পৃথিবীর প্রথম বৃদ্ধাশ্রম প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল প্রাচীন চীনে। ঘরছাড়া অসহায় বৃদ্ধ-বৃদ্ধাদের জন্য আশ্রয়কেন্দ্রের এই উদ্যোগ ছিল শান রাজবংশের। খ্রিস্টপূর্ব ২২০০ শতকে পরিবার থেকে বিতাড়িত বৃদ্ধদের জন্য আলাদা এই আশ্রয়কেন্দ্র তৈরি করে ইতিহাসে আলাদা জায়গাই দখল করে নিয়েছে এই শান রাজবংশ।
দুই দশক আগেও আমাদের দেশে বৃদ্ধাশ্রম তেমন একটা ছিল না। সময়ের সাথে সাথে এর সংখ্যা উত্তরোত্তর বৃদ্ধি পাচ্ছে। বৃদ্ধাশ্রমের প্রতিটি জীবন যেনো একেকটি ট্র্যাজেডি। যারা জীবনের সর্বস্ব দিয়ে সন্তান গড়েছেন, তাদের বেশিরভাগেরই ঠাঁই হয়েছে বৃদ্ধাশ্রমে।

বাবা-মা ও পরিবারের প্রতি সন্তানের উদাসীনতার এই যে দায়, এটা কার? এককভাবে সন্তানকে কী দায়ী করা যায়! এখানে গভীর ভাবনার প্রয়োজন আছে। পরিবারের মা-বাবা, বড় ভাইবোনদের অবহেলার শিকার, ভালোবাসাবঞ্চিত সন্তানরা কী ভুল আদর্শে দীক্ষিত হচ্ছে? সুস্থ বিনোদন ও সংস্কৃতিচর্চার অভাব তরুণদের মানসিক বিকাশ কী ব্যাহত করছে? মানবিক বোধই বা কোথা থেকে পাবে তারা?

তরুণ প্রজন্মের সামনে সব সময় অনেক আকর্ষণের হাতছানি থাকে। তারা নিষিদ্ধ জিনিসের  প্রতি বরাবরই আকর্ষণ বোধ করে। ছেলেমেয়েকে সুসন্তান হিসেবে গড়ে তোলা পরিবারের দায়িত্ব। দেখা গেছে, উচ্চ  শিক্ষিত এবং অভিজাত কিংবা ধনী পরিবারের সন্তানদের মা-বাবারা বেশি বৃদ্ধাশ্রমে আছেন। সন্তানের প্রতি ধারাবাহিক অবহেলা, নিজেদের নিয়ে বেশি ব্যস্ত থাকার মধ্য দিয়েই সন্তানদের দূরে ঠেলে দেন বাবা-মা। পরিবারের ভালবাসা বঞ্চিত ছেলে-মেয়েরা একাকিত্ব আর হতাশা নিয়েই বেড়ে উঠে। বড় হয়ে তারাও মা-বাবা আর পরিবারের প্রতি ভালোবাসার টান অনুভব করে না। এসব কারণে বৃদ্ধাশ্রমের ট্র্যাজিক ঘটনাগুলোর জন্য বাবা-মা বা অভিভাবকরা কম বেশি দায়ী নিঃসন্দেহে।

এখনকার ছেলে মেয়েদের নিয়ে বাবা-মায়েদের অভিযোগের শেষ নেই। বাবা-মার প্রতি সন্তানের দায়িত্ব আন্তরিকতা ও ভালোবাসার অভাব আছে এটা সত্যি। তবে বাবা-মায়েরা নিজেদের অবস্থানের কথা একবার ভেবে দেখেছেন কি! আমরা সন্তানের প্রতি দায়িত্ব ও কর্তব্য কতটুকু আন্তরিকতার সঙ্গে পালন করছি! আমাদের বাবা-মা যেভাবে আমাদের লালন পালন করেছে, বুকে আগলে রেখেছে আমরা তার কতটুকু আমাদের সন্তানের জন্য করছি। আমাদের সময় মায়ের পেটে বাচ্চা আসার সাথে সাথে দাদা-দাদি, নানা-নানিদের ছোটাছুটি লেগে যেতো। দুধ, ডিম, শাক, সবজি, পুষ্টিকর খাদ্য মাকে খাওয়াতেন তারা। মা সুস্থ সবল থাকবেন। আর বাচ্চা মায়ের দুধ খেয়েই বড় হবে। এটা সবাই চাইতো। দশ মাস কষ্টের পর প্রসব বেদনার যে কষ্ট তা পেটের বাচ্চাও বুঝতে পারতো। তাই হয়তো নবজাতক পৃথিবীতে এসেই চিৎকার করে কাঁদতো। শিশুকে কোলে নিয়ে আদর করার জন্য, বুকে নেবার জন্য সবাই অপেক্ষায় থাকতো।

আমরা সেই সন্তানরা কি করছি? মার পেটে বাচ্চা আসার সাথে সাথে নাম করা গাইনি চিকিৎসকের কাছে নিয়ে যাচ্ছি। নয় মাসের ঔষধের ডোজ দেওয়া হচ্ছে। আমরা ডিম দুধের বদলে এসব ওষুধ খাওয়াচ্ছি। তিনমাস পর আলট্রাসনোগ্রাম করে দেখছি কোন লিঙ্গের বাচ্চা। ছেলে না মেয়ে। অভিজ্ঞ চিকিৎসকের তত্ত্বাবধানে আছে তাই মায়ের জন্য চিন্তা নাই। নয় মাসের মাথায় শেষ পর্যবেক্ষণে এসে শুনতে হচ্ছে সুগার বেড়ে গেছে। তাড়াতাড়ি সিজার করতে হবে। অথবা সুস্থ থাকলে মা-বাবার পছন্দের একটি বিশেষ দিন বা তারিখ দেখে পেট কেটে শিশুকে বের করতে হবে। মা বুঝলো না প্রসব যন্ত্রণা কি। আর শিশুও জন্মের কষ্ট বুঝলো না। জন্মের পর কাঁদলও না।

বর্তমানে শিশু পেটে থাকার সময়ই স্কুলে ভর্তির জন্য দরখাস্ত জমা দেওয়া হয়। পৃথিবীতে আসার সাথে সাথে কীভাবে টেনে লম্বা করা যায় তার চেষ্টা চলে। একগাদা বই বোঝাই ব্যাগ কাঁধে তুলে দিয়ে স্কুলে পাঠিয়ে দেওয়া হয়। সেই জন্যে দুধ-ডিম নয়, ব্রান্ডের দুধ খাওয়াতে হবে। বডি ফিটনেস নষ্ট হওয়ার ভয়ে মায়ের বুকের দুধ খাওয়ানো থেকে বাচ্চাকে দূরে রাখা হয়। দাদা-দাদি, নানা-নানির বুকে রাখা তো দুরের কথা মায়ের বুকে থাকাই দুষ্কর হয়। খাওয়া-দাওয়া সব কিছু কাজের লোকের হাতে ছেড়ে দেওয়া হয়। সেই কাজের লোক কতটা যত্ন করছে বাচ্চার তার খোঁজ নেবার সময়ও যেনো নেই আধুনিক বাবা-মাদের। হয়তো বাচ্চাটা অবহেলার শিকার হচ্ছে! হয়ত ঘরের ভিতরে তেলাপোকা দেখে ভয় পাচ্ছে! কিন্তু তাকে বুকে জড়িয়ে ধরে অভয় দেবার জন্য মা-বাবা কোথায়!  কাজের লোকের কাছ থেকে বাচ্চা কখনোই সেই মমতা পাবে না। ভালোবাসা পাবে না।

মা-বাবার আদরে না থাকার কারণে এসব শিশুর অন্তর পাথরে পরিণত হচ্ছে। তাদের বুকে ভালোবাসা জন্মাচ্ছে না। শিশু কালের অনুভূতি থেকে বঞ্চিত হচ্ছে তারা। নতুন জায়গায়, নতুন মানুষের কাছে যেতে পারছে না। প্রকৃতি থেকে দূরে থাকছে। নতুন নতুন মানুষের সাথে মিশতে না পেরে মানুষের হৃদয়ের আবেগ বুঝতে পারছে না। অন্যের প্রতি ভালোবাসা জাগছে না। পরস্পরের প্রতি আদান প্রদান বুঝতে পারছে না। বাড়ি-স্কুল-বাড়ি। ছোটো একটা গণ্ডির ভিতরে বন্দি করে আমরা সন্তানকে দায়ী করছি।

পশ্চিমা দেশের মানুষ যখন সামাজিক বন্ধন ধরে রাখতে যৌথ পরিবারে বসবাস শুরু করছে, নাটক, উপন্যাসের মাধ্যমে প্রচার চালাচ্ছে আমরা তখন যৌথ পরিবার ছিন্ন করছি। বট গাছের সবুজ শ্যামল ছায়া, মাটির উপর শিশির ভেজা ঘাসের পরশ থেকে তুলে এনে অট্টালিকা, ইট পাথরের মধ্যে বন্দি করে মনটাকে কলুষিত করে ফেলছি। বাবা-মার অনুপস্থিতিতে যেসব অবহেলিত ও বন্দি প্রায় সন্তান দিনের পর দিন পর অন্যদের তত্ত্বাবধানে থেকেছে। বাবা-মার স্নেহ সান্নিধ্যবিহীন শৈশবের অনাবিল মাধুর্য হারিয়েছে। তাদের অনেকে আজ হয়তো জঙ্গি ও সন্ত্রাসী হচ্ছে।

বর্তমান প্রেক্ষিতে ভেবে দেখা জরুরি, কেন ঐতিহ্য এবং আদর্শকে ভুলে গিয়ে শিক্ষার দোহাই দিয়ে নিজেদের সন্তানকে দূরে ঠেলে দিচ্ছি? আবার বাবা-মার প্রতি অবহেলার জন্য এককভাবে সন্তানকে দায়ী করছি?

তবে আমাদের এটাও মনে রাখতে হবে, আজ আমরা পৃথিবীতে এসেছি এই পিতা-মার জন্য। পিতা-মাতা যাই করুক সন্তানের ভালোর জন্যই করে। এই যে এত ব্যস্ততা, কাজের প্রতি এত দরদ, অর্থের পিছনে ছুটে চলা, সবই তো সন্তানের জন্য। তার লেখাপড়ার খরচ যোগানোর জন্য। সন্তানকে সুন্দর একটি জীবন উপহার দেওয়ার জন্য। সুতরাং, বাবা-মায়ের এই ত্যাগকে স্মরণ করে সন্তানদের উচিত পারিবারিক বন্ধনকে সুদৃঢ় করা। পিতা-মাতার প্রতি দায়িত্ব-কর্তব্য পালনে কখনোই অবহেলা করা উচিত নয়।

লেখক: ফটো সাংবাদিক

বিডি প্রতিদিন/ফারজানা


আপনার মন্তব্য

এই বিভাগের আরও খবর