২৬ জুলাই, ২০২১ ২০:৩০

ত্বীন ফল চাষ করে রংপুরের দুই ভাইয়ের সাফল্য

নিজস্ব প্রতিবেদক, রংপুর

ত্বীন ফল চাষ করে রংপুরের দুই ভাইয়ের সাফল্য

ত্বীন ফল

মরু অঞ্চলের জনপ্রিয় ফল ত্বীন চাষে রংপুরের তরুণ দুই ভাই সাফল্য পেয়েছেন। খুব অল্প সময়ে এই ফল চাষ করে তারা লাভের মুখ দেখতে শুরু করেছেন। ত্বীন ফল বিক্রির পাশাপাশি এই ফল গাছের চারা বিক্রি করেও ভাল আয় হচ্ছে তাদের।  

করোনা পরিস্থিতিতে স্বল্প সময়ে পুষ্টি ও ওষুধিগুণ সম্পন্ন এ ফলের চাষ করে ব্যাপক সাড়া ফেলেছেন তারা। ফল ও চারা বিক্রি করে তারা সাত মাসে কয়েক লাখ টাকা আয় করেছেন। দেশে অপ্রচলিত এ ফলের সঠিক দাম পেতে সরকারি পৃষ্ঠপোষকতার দাবি করেছেন ত্বীন ফল চাষি এই দুই ভাই। 

রংপুরে মিঠাপুকুর উপজেলার শাল্টিগোপালপুরের বাসিন্দা দুই ভাই ইনাম হাসান রাহাত ও তার বড় ভাই আসিফ হাসান রাতুল গত বছরের অক্টোবর মাসে ৩০০ ত্বীন ফলের চারা দিয়ে ৩৩ শতাংশ জমিতে আবাদ শুরু করেন। বড় ভাই আসিফ হাসান রাতুল  একটি বেসরকারি প্রতিষ্ঠানে চাকরি করেন। ছোট ভাই ইনাম হাসান রাহাত  ব্যবসা করেন।  

রোপণের ৫ মাসের মাথায় ফল বিক্রি করতে শুরু করেন তারা। প্রায় ৪ লাখ টাকা ব্যয় করে সাত মাসের মধ্যে লাভের মুখ দেখেছেন তারা। প্রতিদিনই ক্রেতা আসছেন। মাসে ৪০ কেজি করে ফল পাচ্ছেন। প্রতি কেজি ফল এক হাজার  থেকে ১২০০ টাকা দরে বিক্রি করছেন। 

ইনাম হাসান রাহাত জানান, সৌদি আরবসহ মরু অঞ্চলে পবিত্র ফল হিসেবে ত্বীনের ব্যাপক চাহিদা রয়েছে। মুসলিম অধ্যুষিত মরু অঞ্চলে এই ফল পবিত্র হিসেবে ব্যাপক জনপ্রিয়। এ ফল ওষুধ হিসেবেও ব্যবহার করেন মরু অঞ্চলের মানুষ। এই ফলের অনেক গল্প শুনেছি। এরপর সৌদি আরব থেকে এক ব্যক্তির মাধ্যমে বীজ সংগ্রহ করি। দুই ভাই মিলে নিজেদের ৩৩ শতক জমিতে শুরু করি ত্বীন চাষ। আমাদের এলাকা বালুময় না হলেও লালমাটি সমৃদ্ধ এলাকা। প্রথমদিকে ভেবেছিলাম হয়তো এখানে এই ফলের চাষ ভালো হবে না। কিন্তু অল্প দিনের মধ্যেই ত্বীন ফলের গাছ পুষ্ট হয়ে বড় হতে থাকে। ৫ মাসের মধ্যে সেই গাছে ত্বীন ফল আসে। দেখতে অনেকটা আমাদের দেশের ডুমুর ফল মনে হলেও গোলাপী রঙ ধারণ করা এক একটি ত্বীন ফল খেতে বেশ সুস্বাদু।

রাহাতের বড় ভাই রাতুল বলেন, আমরা ফল বিক্রির পাশাপাশি বাগান থেকে ৫০০ থেকে ৭০০ টাকায় চারা বিক্রি শুরু করেছি। ইতোমধ্যে ফল ও চারা বিক্রি করে কয়েক লাখ টাকা আয় হয়েছে ।

তিনি আরও জানান, বাণিজ্যিক ভিত্তিতে ত্বীন ফলের চাষ করা হলে লাভবান হওয়া যাবে। আমরা আরও জমিতে ত্বীন চাষ করতে চাই। ফল বিক্রির পাশাপাশি চারা বিক্রি করে রংপুরসহ দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে ত্বীন ফলের চাষ ছড়িয়ে দিতে চাই ।  

রংপুর কৃষি সম্প্রসরণ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক কৃষিবিদ  ওবায়দুর রহমান মন্ডল বলেন, ওই এলাকার মাটি খুবই ভাল। এ ফল চাষে উপযোগী। 

 

বিডি-প্রতিদিন/আব্দুল্লাহ আল সিফাত

এই রকম আরও টপিক

এই বিভাগের আরও খবর