শিরোনাম
প্রকাশ : বৃহস্পতিবার, ১৬ জানুয়ারি, ২০২০ ০০:০০ টা
আপলোড : ১৬ জানুয়ারি, ২০২০ ০১:৫৭

সংসদে প্রশ্নোত্তর

সিটি গভর্নমেন্ট গঠনের প্রস্তাব নাকচ

নিজস্ব প্রতিবেদক

সিটি গভর্নমেন্ট গঠনের প্রস্তাব নাকচ

স্থানীয় সরকার পল্লী উন্নয়ন ও সমবায়মন্ত্রী তাজুল ইসলাম সিটি গভর্নমেন্ট গঠনের প্রস্তাব নাকচ করে দিয়ে বলেছেন, জাতির জনক উন্নত বাংলাদেশের যে স্বপ্ন দেখেছিলেন প্রধানমন্ত্রী সেই লক্ষ্য সামনে রেখে পথনকশা অনুযায়ী পরিচালনা করছেন। স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরীর সভাপতিত্বে গতকল একাদশ সংসদের ৬ষ্ঠ অধিবেশনে মন্ত্রীদের জন্য নির্ধারিত প্রশ্নোত্তর পর্বে বিএনপি দলীয় এমপি ব্যারিস্টার রুমিন ফারহানার সম্পূরক প্রশ্নের জবাব দিচ্ছিলেন।

বিল সংসদে উত্থাপিত : বাংলাদেশ প্রকৌশল গবেষণা কাউন্সিল আইন ২০২০ ও বাংলাদেশ বাতিঘর আইন, ২০২০ উত্থাপিত হয়েছে সংসদে।  স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরীর সভাপতিত্বে গতকাল  সংসদের ষষ্ঠ অধিবেশনে বাংলাদেশ প্রকৌশল গবেষণা কাউন্সিল আইন বিলটি উত্থাপন করেন বিজ্ঞান ও প্রযুক্তিমন্ত্রী স্থপতি ইয়াফেস ওসমান। বিলটি উত্থাপনের বিরোধিতা করে জাতীয় পার্টির সদস্য ফখরুল ইমাম বলেন, কাউন্সিল করতে হলে এর সঙ্গে গ্র্যাজুয়েট কাউন্সিলর থাকতে হয়।

কিন্তু এই বিলে তার কোনো উল্লেখ নেই। জবাবে বিজ্ঞান ও প্রযুক্তিমন্ত্রী বলেন, এর সঙ্গে শিক্ষার কোনো সম্পর্ক নেই। শিক্ষিত লোকেরাই এই কাউন্সিলে থাকবেন। অভিজ্ঞ প্রকৌশলী, প্রকৌশল শিক্ষা, প্রতিষ্ঠানগুলোর এবং প্রকৌশল পেশাজীবী সংগঠনের প্রতিনিধিদের সমন্বয়ে কাউন্সিল পরিচালিত হবে। পরে কণ্ঠভোটে বিলটি উপস্থাপিত হয়।

বাংলাদেশ বাতিঘর আইন, বিলটি উত্থাপন করেন নৌ-পরিবহনমন্ত্রী খালিদ মাহমুদ চৌধুরী। সমুদ্র উপকূলীয় অঞ্চলে  নিরাপদ নৌ চলাচল এবং দেশের বন্দরে চলাচলকারী নৌযান থেকে মাশুল ও জরিমানা আদায়ের বিধান রেখে বাংলাদেশ বাতিঘর আইন, ২০২০ উত্থাপিত হয়েছে সংসদে।

বিলের উদ্দেশ্য ও কারণ সংবলিত বিবৃতিতে বলা হয়েছে, ১৯২৭ সালের ‘দ্য লাইট হাউস অ্যাক্ট, ১৯২৭ রহিত করে আইনটি সময়োপযোগী করে পুনঃপ্রণয়ন করা হয়। ২০১৫ সালের ২ নভেম্বর মন্ত্রিসভার বৈঠকে বিলটি বাংলা ভাষায় রূপান্তর, সংশোধন ও পরিমার্জন করে প্রণয়নের সিদ্ধান্ত হয়। সে আলোকে বিলটি প্রণয়ন করা হয়েছে। দেশের বিভিন্ন উপকূলীয় অঞ্চলে বর্তমানে ৩টি বাতিঘর বিদ্যমান রয়েছে। এ ছাড়া আরও ৪টি বাতিঘর স্থাপনের প্রক্রিয়া চলমান রয়েছে।


আপনার মন্তব্য

এই বিভাগের আরও খবর