শিরোনাম
প্রকাশ : ২১ নভেম্বর, ২০১৯ ১৮:৩৪

৪ বারের বিধায়কের নাগরিকত্ব বাতিল করল ভারত

অনলাইন ডেস্ক

৪ বারের বিধায়কের নাগরিকত্ব বাতিল করল ভারত
রমেশ চেন্নামানেনি

রমেশ চেন্নামানেনি নামে এক বিধায়কের নাগরিকত্ব বাতিল করেছে ভারতের কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রণালয়। গুরুত্বপূর্ণ তথ্য গোপন রাখার অভিযোগে তেলেঙ্গানা রাষ্ট্রীয় সমিতির ওই বিধায়কের নাগরিক বাতিল করে ভারত। 

এ বিষয়ে বুধবার স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকে ১৩ পাতার একটি বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করা হয়। 

বিজ্ঞপ্তিতে উল্লেখ করা হয়, ওই বিধায়ক গুরুত্বপূর্ণ তথ্য গোপনের মাধ্যমে প্রতারণা করে ভারতীয় নাগরিকত্ব পেয়েছেন। সে কারণে ভারতের মানুষের ভালোর স্বার্থে চেন্নামানেনির নাগরিকত্ব বাতিল করা হলো। ১৯৫৫ সালের ভারতীয় নাগরিকত্ব আইনের ১০ নম্বর ধারা অনুযায়ী এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। এদিকে, এই নির্দেশের বিরুদ্ধে আবারও তেলেঙ্গানা হাইকোর্টের দ্বারস্থ হয়েছেন ওই বিধায়ক।

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রণালয় বলছে, ২০০৯ সালে এক বছরের জন্য বিদেশ ঘুরতে গিয়েছিলেন হায়দরাবাদ থেকে ১৫০ কিলোমিটার দূরে অবস্থিত ভেমুলাওয়াড়ার ওই বিধায়ক। সেই সময় জমা দেওয়া ভারতীয় নাগরিকত্বের আবেদনে তিনি কিছু তথ্য গোপন করেছিলেন। তার কাছে যে জার্মান নাগরিকত্ব আছে তা জানাননি। 

আইন অনুযায়ী, নাগরিকত্বের আবেদন জানানোর আগে ভারতে এক বছর বসবাসও করেননি। স্বরাষ্ট্রমন্ত্রণালয়ের কাছে তথ্য গোপন করে ভারতের সরকারকে ভুল সিদ্ধান্ত নিতে প্রভাবিত করেছেন। তার বিষয়ে সমস্ত তথ্য জানা থাকলে কর্তৃপক্ষ ওই বিধায়ককে কখনোই ভারতীয় নাগরিকত্ব দিত না। 

এ প্রসঙ্গে ওই বিধায়ক রমেশ চেন্নামানেনি বলেন, এ বিষয়ে তেলেঙ্গানা হাইকোর্ট আগে আমার পক্ষেই রায় দিয়েছিল। কিন্তু, তা না মেনে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় আবারও আমার নাগরিকত্ব বাতিল করেছে। তাই আমি আবারও তেলেঙ্গানা হাইকোর্টের দ্বারস্থ হব।

২০০৯ সালে প্রথমে অবিভক্ত অন্ধ্রপ্রদেশে চন্দ্রবাবু নায়ড়ুর টিডিপির হয়ে বিধায়ক নির্বাচিত হন চেন্নামানেনি। তারপর ২০১০ সালে কে চন্দ্রশেখর রাওয়ের তেলেঙ্গানা রাষ্ট্রীয় সমিতিতে যোগ দিয়ে পুনর্নিবাচিত হন। ২০১৪ ও ২০১৮ সালের বিধানসভা নির্বাচনেও জয়ী হন তিনি।


বিডি-প্রতিদিন/বাজিত হোসেন


আপনার মন্তব্য