প্রকাশ : বুধবার, ১৩ নভেম্বর, ২০১৯ ০০:০০ টা
আপলোড : ১২ নভেম্বর, ২০১৯ ২৩:০৭

টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপ

টাইগারদের নতুন মিশন

ইন্দোর টেস্ট শুরু কাল

আসিফ ইকবাল

টাইগারদের নতুন মিশন
মুস্তাফিজের কাটারে আর ধার নেই! - সত্যি কি তাই? টি-২০তে নিজেকে মেলে ধরতে না পারলেও টেস্টের দিকে তাকিয়ে আছেন দ্য ফিজ। তার দিকে তাকিয়ে আছে পুরো বাংলাদেশ - সৌজন্য ছবি

১৪-১৮ নভেম্বর ইন্দোরের হোলকার স্টেডিয়ামে প্রথম টেস্ট। নাগপুর শেষ টি-২০ ম্যাচ খেলে দুপুরে ইন্দোরে পা রেখেছে ক্রিকেটাররা। ইন্দোরে খেলেই কলকাতা উড়ে যাবেন মুমিনুলরা। সেখানে ক্রিকেটারদের রাজকীয় সংবর্ধনা দেবে ভারতীয় ক্রিকেট বোর্ড

 

ক্রস সিমে কখনো অফ কাটার, কখনো লেগ কাটার, আবার কখনো দুর্দান্ত ইয়র্কার। ২৩ বলের ছোট্ট অথচ বিধ্বংসী স্পেলে টি-২০ ক্রিকেটের বোলিংয়ের সব রেকর্ড ভেঙে দিয়েছেন দীপক চাহার। অথচ জশপ্রীত বুমরাহ, মোহাম্মদ সামি কিংবা ভুবনেশ্বর কুমার থাকলে সুযোগই পেতেন না খেলার। নিয়মিত তিন পেসারের বিশ্রামের সুযোগকে কাজে লাগিয়েই বাজিমাত চাহারের। সিরিজ নির্ধারণী ম্যাচে স্বাগতিক ভারত জিতেছে তার জাদুকরী বোলিংয়ে। দিল্লিতে লাল-সবুজ পতাকা উড়িয়ে মাহমুদুল্লাহরা শুভ যাত্রায় হোঁচট খায় রাজকোট ও নাগপুরে। বিশেষ করে নাগপুরের হারটি ভীষণ বেদনার। তরুণ মোহাম্মদ নাঈম শেখ যখন স্বপ্ন দেখাচ্ছিলেন প্রথমবারের মতো ভারত জয়ের, তখনই চাহারের জাদুতে ল-ভ- হয়ে গেল স্বপ্নের। নাঈমের দেখানো পথে মুশফিক, মাহমুদুল্লাহরা হাঁটলেই টেস্ট সিরিজের আগে সোনালি কালিতে নতুন ইতিহাস লিখে ফেলতো বাংলাদেশ। 

জেতা হয়নি টি-২০ সিরিজ। কিন্তু ভারতের মাটিতে লড়াইয়ের রসদ ঠিকই নিয়ে নিয়েছে রাসেল ডোমিঙ্গোর শিষ্যরা। লড়াইয়ের এই রসদকে পুঁজি করে নতুন অধিনায়ক মুমিনুল হকের নেতৃত্বে বাংলাদেশ ১৪ নভেম্বর সাদা পোশাকে, গোলাপি বলের লড়াইয়ে নামবে লতা মুঙ্গেশকর, সালমান খান, রাহুল দ্রাবিড়ের প্রিয় ইন্দোরে। মুমিনুল বাহিনী এরপর দ্বিতীয় টেস্ট খেলবে চানক্যের চারশত বছরের পুরনো কলকাতায়। ‘নন্দন কানন’ ইডেন গার্ডেনে খেলতে নেমেই ইতিহাসের ব্রাকেটবন্দী হবে বাংলাদেশ ও ভারত। প্রতিবেশী দুই দেশ প্রথমবারের মতো খেলবে গোলাপি বলে দিবারাত্রির টেস্ট। টস করতে নেমে ্ইতিহাস হবেন মুমিনুল হক ও বিরাট কোহলি। ১৯ বছর আগে ২০০০ সালে বঙ্গবন্ধু স্টেডিয়ামে ইতিহাস হয়েছিলেন নাইমুর রহমান দুর্জয় ও ভারতীয় ক্রিকেট বোর্ডের বর্তমান সভাপতি সৌরভ গাঙ্গুলী।

সাদা পোশাকের টেস্ট ক্রিকেটে ১৯ পেরিয়ে ২০ বছরে পা রেখেছে বাংলাদেশ। অভিষেকের পর টাইগাররা এখন পর্যন্ত টেস্ট খেলেছে ১১৫টি। জয়ের সংখ্যা সাকল্যে ১৩। ভারতের বিপক্ষে ৯ টেস্টের আটটিই খেলেছে বাংলাদেশের মাটিতে। একটি হায়দরাবাদে ২০১৭ সালে। চার সেঞ্চুরির ওই টেস্ট আবার ভারতের মাটিতে প্রথম। সূচনা টেস্ট হলেও স্মরণীয় করে রাখতে পারেনি টাইগাররা। ২০৮ রানে হারের টেস্টটি আবার মুশফিকের জন্য বিশেষ কিছু। ভুবনেশ্বর কুমার, উমেশ যাদব, ঈশান্থ শর্মা, রবীচন্দন অশি^ন, রবীন্দ্র জাদেজাদের বিপক্ষে প্রতিরোধের দেয়াল তুলে খেলেছিলেন ১২৭ রানের স্বপ্নের এক ইনিংস। এবারও টাইগারদের প্রতিপক্ষ হয়ে খেলবেন কোহলি, চেতেশ্বর পুজারা, আজিঙ্কা রাহানে, অশি^ন, জাদেজা, ঈশান্থ, বুমরাহরা। বিশে^র সেরা টেস্ট দলের বিপক্ষে খেলতে মুমিনুল বাহিনী এখন ইন্দোরে। টি-২০ সিরিজ খেলে ঢাকায় ফিরেছেন নাঈম শেখ, আবু হায়দার রনি, ইয়াসির আরাফাত, সৌম্য সরকাররা।

১৪-১৮ নভেম্বর ইন্দোরের হোলকার স্টেডিয়ামে প্রথম টেস্ট। নাগপুর শেষ টি-২০ ম্যাচ খেলে দুপুরে ইন্দোরে পা রেখেছে ক্রিকেটাররা। ইন্দোরে খেলেই কলকাতা উড়ে যাবেন মুমিনুলরা। সেখানে ক্রিকেটারদের রাজকীয় সংবর্ধনা দেবে ভারতীয় ক্রিকেট বোর্ড। বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও পশ্চিম বাংলার মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জি গোলাপি বলের টেস্টের সূচনা করবেন ঘণ্টি বাজিয়ে। টেস্ট দেখতে উপস্থিত থাকবেন ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। এ্ছাড়া বাংলাদেশের অভিষেক টেস্টের স্কোয়াডের ক্রিকেটাররাও থাকবেন ইডেনে। টেস্ট শুরুর আগে গান গাইবেন বাংলাদেশের কিংবদন্তি গায়িকা রুনা লায়লা। সব মিলিয়ে গোলাপি বলে ও দিবারাত্রির টেস্ট আয়োজনে হিমালয়সম আয়োজন করছেন ভারতীয় ক্রিকেট বোর্ডের সভাপতি সৌরভ গাঙ্গুলী। সব মিলিয়ে টেস্টটিতে নতুনত্ব থাকছে।


আপনার মন্তব্য