শিরোনাম
প্রকাশ : ২৮ ফেব্রুয়ারি, ২০২১ ১৫:২৬
প্রিন্ট করুন printer

গৃহযুদ্ধে আমেরিকার রিপাবলিকান পার্টি

ড. মোস্তফা সারওয়ার

গৃহযুদ্ধে আমেরিকার রিপাবলিকান পার্টি

১৩ ফেব্রুয়ারি সিনেটের ইমপিচমেন্ট বিচারে ট্রাম্পের শাস্তি হলো না। কিন্তু এতে প্রমাণ হয়নি যে তিনি নির্দোষ। বস্তুত ট্রাম্পই ৬ জানুয়ারির ব্যর্থ অভ্যুত্থানের উসকানি এবং মদদদাতা নেতা। বিচারে শাস্তির বিপক্ষে ভোট দেওয়ার কিছুক্ষণ পর রিপাবলিকান নেতা সিনেটর মিচ ম্যাকনাল সিনেট চেম্বারে একটি অদ্ভুত ভাষণ দিয়েছিলেন। 

ম্যাকনাল বলেছিলেন, কার্যত এবং নীতিগতভাবে ট্রাম্পই ৬ জানুয়ারির অভ্যুত্থানের জন্য দায়ী। এটা ছিল ধাপে ধাপে তীব্র হতে তীব্রতর চরম অবস্থার দিকে ধাবমান ষড়যন্ত্র তত্ত্ব, যা ট্রাম্প কর্তৃক সুষ্ঠুভাবে সমন্বিত করা হয়েছিল এক সশস্ত্র অভ্যুত্থানে। 

বিদায়ী প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের উদ্দেশ্য ছিল নির্বাচনে ভোটারদের সিদ্ধান্ত উল্টে দেওয়ার দৃঢ়প্রতিজ্ঞ প্রচেষ্টা। অথবা ট্রাম্পের উদ্দেশ্য ছিল প্রেসিডেন্সি থেকে বিদায়ের আগে যুক্তরাষ্ট্রের প্রতিষ্ঠানগুলোকে আগুনে পুড়িয়ে ফেলা। ম্যাকনাল আরও বলেছেন, ট্রাম্প টেলিভিশনের পর্দায় দেখছিল সন্ত্রাস ও ধ্বংসের অগ্রগতি। দেখছিল উচ্ছৃঙ্খল দাঙ্গাকারী জনতা ক্যাপিটল হিল আক্রমণ করেছে তার নামে। এ দুষ্কৃতিকারীরা বহন করছিল তার ব্যানার, প্রতিস্থাপন করছিল তার পতাকা এবং উচ্চস্বরে চিৎকার করে স্লোগান দিচ্ছিল তার পক্ষে। 

ম্যাকনালের ভাষণে ট্রাম্প নিশ্চিত অপরাধী। প্রশ্ন হলো, ম্যাকনাল কেন এ ইমপিচমেন্টের বিরুদ্ধে ভোট দিয়েছিল? ম্যাকনালের যুক্তি: ট্রাম্প যেহেতু সাবেক প্রেসিডেন্ট এবং তিনি তখন ক্ষমতায় বহাল নেই তাই সংবিধান অনুযায়ী তাকে ইমপিচমেন্টে সাজা দেওয়া সঠিক নয়। ম্যাকনালের যুক্তি অনেকটা অর্থহীন। বিচারের প্রথম পর্যায়ে ৫৬-৪৪ ভোটে সিনেট সিদ্ধান্ত নিয়েছিল যে সংবিধান অনুযায়ী সাবেক প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের ইমপিচমেন্ট বিচার বৈধ। তাছাড়া অতীতের উদাহরণ রয়েছে এই বিচারের বৈধতার পক্ষে। 

আরও ব্যঙ্গাত্মক হলো: স্পিকার পেলোসি ১৩ জানুয়ারি নিম্ন-কক্ষের ইমপিচমেন্টের পরপরই আনুষ্ঠানিকভাবে ইমপিচ আর্টিক্যাল ম্যাকনালের কাছে পাঠানোর প্রস্তাব করেছিল যাতে বিচার তৎক্ষণাৎ শুরু হতে পারে। ম্যাকনাল একটি অতি দুর্বল পদ্ধতিগত অজুহাত দেখিয়ে পেলোসির প্রস্তাব নাকচ করে দিয়েছিলেন। ম্যাকনালের জন্যই প্রেসিডেন্ট থাকাকালীন অবস্থায় ট্রাম্পের বিচার শুরু করা যায়নি। 

সেই একই ম্যাকনাল ১৩ ফেব্রুয়ারির ভাষণে আরও ইঙ্গিত দিয়েছিলেন, অভ্যুত্থানে উসকানি এবং নেতৃত্বের জন্য ট্রাম্পের বিরুদ্ধে ক্রিমিনাল মামলা দেওয়া যাবে। ওই মামলায় ট্রাম্প দোষী সাব্যস্ত হলে তাকে কারাগারে থাকতে হবে। যুক্তরাষ্ট্রের রাজনীতির সূক্ষ্ম জটিলতা বুঝতে পারা অনেক সময় কষ্টসাধ্য। ঝানু রাজনৈতিক খেলোয়াড় ম্যাকনাল হয়তো ইচ্ছাকৃতভাবে ট্রাম্পকে অব্যাহতি দিয়েছে সিনেটের ইমপিচমেন্ট বিচার থেকে। যাতে ট্রাম্পের বিরুদ্ধে ক্রিমিনাল মামলা দায়ের করা যায়। 

কিছুদিন আগে লিংকন প্রজেক্টের মাইকেল কনওয়ে লিখেছিল, একই অপরাধে একই ব্যক্তিকে দুবার বিচার করা যুক্তরাষ্ট্রের আইনে নিষিদ্ধ। ম্যাকনাল পরিষ্কার ভাষায় বলেছেন, ট্রাম্প অপরাধী কিন্তু তাকে শাস্তি দেয়নি। উল্লেখ করেছে সংবিধান অনুযায়ী সাবেক প্রেসিডেন্টের বিচার সিনেটের ক্ষমতার আওতার বাইরে। মাইকেল কনওয়ে বলেছিলেন, যদি সিনেটের আওতার প্রশ্নে ট্রাম্পকে শাস্তি দেওয়া না যায়, তাহলেই তার বিরুদ্ধে ক্রিমিনাল মামলা দেওয়া যাবে।

ম্যাকনালের সূক্ষ্ম কূটচালে ট্রাম্পের ক্রিমিনাল বিচার কোথায় গিয়ে দাঁড়ায় এখনো নিশ্চিতভাবে বলা যাবে না। তবে লক্ষণ ট্রাম্পের জন্য খুব একটা ভালো মনে হচ্ছে না। ১৬ ফেব্রুয়ারি নিম্ন-কক্ষের হোমল্যান্ড সিকিউরিটি কমিটির চেয়ারম্যান ও মিসিসিপি থেকে নির্বাচিত কংগ্রেসম্যান বেনি টমসন (Bennie Thompson) একটি ফেডারেল মকদ্দমা (Lawsuit) দায়ের করেছেন। তার সঙ্গে যোগদান করেছে এনএএসিপি (NAACP)। ক্যাপিটল হিলে অভ্যুত্থানের জন্য আসামি করেছে ডোনাল্ড ট্রাম্প, রুডি জুলিয়ানি, প্রাউড বয়েজ এবং ওথ কিপারসসহ আর ও অনেককে। অচিরেই আরও অনেক মকদ্দমা দায়ের করা হবে বলে ইঙ্গিত পাওয়া যাচ্ছে। 

আরও একটি গুরুত্বপূর্ণ ব্যাপার ক্রমশই স্পষ্ট হয়ে উঠছে। স্পষ্টভাবে প্রতীয়মান হচ্ছে, রিপাবলিকান পার্টির ফাটল। সত্যিকার ভেঙে যাবে কিনা ভবিষ্যৎ তার সাক্ষ্য দেবে। তবে চারদিকে দৃশ্যমান অশনি সংকেত। ম্যাকনালের অবস্থা দেখলে মনে হয়, গ্রিক পৌরাণিক কাহিনীর অডিসিয়াসের সমুদ্রযাত্রা। অডিসিয়াসকে অতিক্রম করতে হবে মেসিনা নামের সরু ও ভয়ংকর প্রণালি। ক্যারিবডিস নামের এক রাক্ষসী বাস করছে এক তীরে একটি বিশাল পাথরের নিচে। কাছেই প্রণালির জলে রয়েছে এক ঘূর্ণিস্রোত। প্রণালির অন্য তীরে আরেক পাথরের নিচে রয়েছে ছিল্যা (Odysseus) নামের অপর একটি ভয়ংকর রাক্ষসী যাকে দেখতে মনে হবে এক কুৎসিত সরীসৃপ এবং যার রয়েছে ছয়টি ক্ষুধার্ত মুখ। 

প্রণালিটি এতই সরু যে, অডিসিয়াসকে এ প্রণালি অতিক্রম করতে যদি মাঝখান দিয়ে তার বজরা পাড়ি দিতে হয় তাহলে তাকে দুই রাক্ষসীর কোপানলে পড়তে হবে, যেটা হবে ভয়ংকর পরিস্থিতি। ধ্বংস ও মৃত্যু অনিবার্য। কাজেই তাকে বজরা চালাতে হবে যে কোনো পাড়ের কাছাকাছি দিয়ে। সে যদি ছিল্যা যে পাড়ে রয়েছে তার কাছ দিয়ে বজরা চালায় তবে তাকে শুধু ছিল্যার সঙ্গে যুদ্ধ করতে হবে। ওখানে অন্তত তার সঙ্গী ছয়জন নাবিককে বিসর্জন দিতে হবে ছিল্যার ছয়টি ক্ষুধার্ত মুখের বিশাল গহ্বরে। বিকল্প পথে সে যদি ক্যারিবডিসের তীরের কাছ দিয়ে যেতে পারত সেক্ষেত্রে তার গোটা বজরা, সমস্ত নাবিক ও সঙ্গী-সাথীসহ ঘূর্ণিস্রোতে ডুবে গিয়ে ঢুকে যেত রাক্ষসী ক্যারিবডিসের পেটে। 

ম্যাকনালকে ধরে নেওয়া যাক অডিসিয়াসের রূপকল্প হিসেবে। ট্রাম্পের চার বছর শাসনের সময় যথেচ্ছাচার, আইনের প্রতি বৃদ্ধাঙ্গুলি, রীতির প্রতি অবজ্ঞা, স্বৈরতান্ত্রিক প্রবণতা, দুর্নীতি, অদক্ষতার ভুরি ভুরি প্রমাণ রয়েছে। ট্রাম্প রেখে গেছে দুস্থ অর্থনীতি এবং প্যানডেমিকে অসুস্থ আমেরিকা। তার দল রিপাবলিকান পার্টির লণ্ডভণ্ড অবস্থা। পার্টি এখনো ভাঙেনি কিন্তু ফাটলের চিহ্ন খুবই স্পষ্ট। বর্তমানে রিপাবলিকান পার্টির আপাত নেতা মিচ ম্যাকনাল। তার সামনে রয়েছে আপাতত তিনটি বিকল্প।

(১) ট্রাম্পকে বাদ দিয়ে রিপাবলিকান পার্টির প্রচলিত নীতি ও আদর্শ নিয়ে দলকে সংঘবদ্ধ করা। এতে দলের উগ্র দক্ষিণপন্থি ট্রাম্পিয়ান বাচালরা হয়তো বিদ্রোহ করবে। গঠন করবে নতুন দল। ফল স্বরূপ আগামী কয়েকটি নির্বাচনে (যেমন ২০২২, ২০২৪, ২০২৬, ২০২৮) পার্টি হেরে যেতে পারে। 

(২) দ্বিতীয় বিকল্প: ট্রাম্পিয়ানদের সঙ্গে নিয়ে অগ্রসর হওয়া। দলের অর্ধেকেরও বেশি আপাতত ট্রাম্পিয়ান বলে মনে হচ্ছে। এতে দলের ফাটল গভীরতর হয়ে দল ভেঙে যেতে পারে। মধ্যপন্থি রক্ষণশীল ও লিবারেটারিয়ানরা হয়তো নতুন দল গঠন করতে পারে। এর আলামত স্পষ্ট হয়ে উঠছে। আগামী নির্বাচন সাইকেলগুলোতে ফলাফল হবে না-সূচক।

(৩) তৃতীয় বিকল্প হলো কালক্ষেপণ না করে রক্ষণশীল ও লিবারেটারিয়ান সহকর্মীদের নিয়ে নতুন দল গঠন করা। এ ক্ষেত্রেও আগামী নির্বাচনী সাইকেলে পরাজয়ের সম্ভাবনা প্রকট। 

আগামী ২০২২ সালের প্রাইমারি নির্বাচনে সিনেট এবং নিম্ন-কক্ষের কংগ্রেস আসনগুলোতে ম্যাকনাল ও ট্রাম্পিয়ানরা একে অন্যের বিরুদ্ধে প্রতিদ্বন্দ্বিতার ঘোষণা দিয়েছেন। প্রচলিত রীতি অনুযায়ী যুক্তরাষ্ট্রে পদাধিকারী (incumbent) সিনেটর এবং কংগ্রেসম্যানদের বিরুদ্ধে একই দল থেকে কেউ প্রতিদ্বন্দ্বিতা করে না। ২০২২ সালে রিপাবলিকানরা এই রীতির ব্যত্যয় ঘটাবে; এটা দিন দিন স্পষ্ট হয়ে উঠছে। রিপাবলিকান সিনেটর এবং কংগ্রেসম্যানরা যারা ইমপিচমেন্টে ট্রাম্পের বিরুদ্ধে ভোট দিয়েছিল তাদের অনেকের আসন ২০২২ সালের নির্বাচনে উন্মুক্ত হবে। তাদের পুন-নির্বাচিত হতে হবে। তাদের বিরুদ্ধে ট্রাম্পিয়ানরা প্রতিদ্বন্দ্বী দাঁড় করিয়ে দিয়েছে।

১৬ ফেব্রুয়ারি ম্যাকনাল বলেছেন, সেও ট্রাম্পিয়ানদের বিরুদ্ধে অন্য প্রার্থী দাঁড় করাবে। উভয় ফ্যাকশন বিপুল অঙ্কের চাঁদা তোলা শুরু করেছে। যুক্তরাষ্ট্রের নির্বাচনে ডলারের খেলা নজর কাড়ার মতো। মিচ ম্যাকনাল গ্রিক পুরাণের অডিসিয়াসের রূপকল্প হিসেবে রিপাবলিকান পার্টির বজরা নিয়ে তিনটা বিকল্প পথের যেটাই গ্রহণ করুক না কেন, সামনে সমূহবিপদ। রিপাবলিকান গৃহযুদ্ধে ম্যাকনাল এবং ট্রাম্পের অনুমোদনে ধস নেমেছে। 

১৭ ফেব্রুয়ারির অনলাইন নিউজ উইকের প্রতিবেদন অনুযায়ী রিপাবলিকানদের মতামত জরিপে ম্যাকনালের অনুমোদন তার হোম স্টেট কেনটাকিতে শতকরা মাত্র ৪১ ভাগ। গৃহযুদ্ধের আগে নভেম্বরে ছিল শতকরা ৭০ ভাগ। জানুয়ারি মাসের ১৬ থেকে ১৯ তারিখ পর্যন্ত আমেরিকান রিসার্চ গ্রুপ কর্তৃক মতামত জরিপে ট্রাম্পের অনুমোদন গোটা যুক্তরাষ্ট্রে মাত্র শতকরা ২৯ ভাগ। উভয়ের কপালেই মনে হচ্ছে ফাটা বাঁশ।

দলীয় গৃহযুদ্ধের রাজনৈতিক ফাঁদে ট্রাম্প ও ম্যাকনালের করুণ অবস্থা দেখে মহামারীতে স্বেচ্ছায় গৃহবন্দী সুদূর পরবাসে হৃদয় চাইছে রিপাবলিকানদের নিয়ে প্রাণ খুলে গাইতে বাংলাদেশের এক চিরায়ত পল্লী সংগীত ‘ফান্দে পড়িয়া বগা কান্দে রে’। 

লেখক: ইমেরিটাস অধ্যাপক এবং সাবেক উপ-উপাচার্য: ইউনিভার্সিটি অব নিউ অরলিয়েন্স।

বিডি প্রতিদিন/আবু জাফর


আপনার মন্তব্য

এই বিভাগের আরও খবর