শিরোনাম
১৮ অক্টোবর, ২০২১ ১৫:২১

যে জন্মদিন বিবর্ণ অনিমেষে চায়!

ড. প্রভাষ কুমার কর্মকার

যে জন্মদিন বিবর্ণ অনিমেষে চায়!

শেখ রাসেল (ফাইল ছবি)

জন্মদিন খুশির দিন, জন্মদিন আনন্দের দিন। আবার কোনো কোনো জন্মদিন মানুষকে কাঁদায়, ভাবায়- নিখিলের সব হাসি কেড়ে বিবর্ণ অনিমেষে কোথায় যেন নিয়ে যায়! কেন এমন হয়? কী কারণে অমিয় সত্তার বোধন, করে ওরা রোদন? দুঃখে, ত্রাসে সোনালি আকাশে এমন রঙের ক্ষয়! বিপুলা পৃথিবীর এ কেমন পরাজয়? উদয়েই অস্ত কেন রবি, নিজ আঙ্গিনায়?  

এ কথাগুলি অবতারণার একটিই কারণ বাবা-মা, বড় আপু ও ভাইয়াদের মমত্বের পরশে ঘেরা হৃদয়ের আবেগময় বন্ধনের ধন, শেখ রাসেলের আজ শুভ জন্মদিন। বাঙালির পথদ্রষ্টা, অনন্ত আকরের নিয়ামক সত্তা জাতির পিতার কনিষ্ঠ পুত্রের জন্মদিনে জাতির উদ্বেলিত আনন্দধারা ও হর্ষধ্বনিতে মুখরিত হওয়ার কথা ছিল চারিদিক। কিন্তু  পুলকিত নয়নে উল্লসিত বদনে মনোমুগ্ধকর অভিব্যক্তির জাগরণ আজ বাঙালির অন্তরে আসে না- স্মৃতির বাতায়নে শোকের আবেগঘন উপস্থিতি মনকে নাড়া দেয়, অশ্রুসিক্ত করে। চিন্তাযুক্ত মননে প্রচেষ্টা, শুধুই কারণ অন্বেষণ- কেন হলো এমন? যদিও অনেকভাবে হয়েছে এ বিষয়ের বিশ্লেষণ- তবুও আজ খুঁজতে চাই এ প্রজন্মের জন্য কিছু কারণ। তবে তার জন্য অবশ্যই দরকার সত্যাগ্রহী মনন।  

ভালো মানুষ হতে মনুষ্যত্বের বিকাশ ঘটানোটাই জরুরি। আর মানবশিশুর মনে মনুষ্যত্বের গুণাবলির দানা বাঁধতে থাকে ছোট্ট বয়স থেকেই। ছোট্ট শিশু শেখ রাসেলের মনুষ্যত্বের পরিষ্ফুটন শুরু বিশ্বমানবতা ও মানবকল্যাণের সূতিকাগার খ্যাত বঙ্গবন্ধু পরিবার থেকেই। যে সূতিকাগারের মূলাধার স্বয়ং বঙ্গবন্ধু-বঙ্গমাতা আর শেখ হাসিনা- সে পরিবারের ছোট্ট শিশু যে মানবতার গুণে গুণান্বিত হবেই। তাইতো বঙ্গবন্ধুর কনিষ্ঠ পুত্র শেখ রাসেলের মানবতাবোধ ছোট বয়স থেকেই অনুকরণীয় হয়ে নজর কাড়তে থাকে।  কারণ তার প্রতিটি শিরায় শিরায় প্রবাহিত হাজার বছরের শ্রেষ্ঠ বাঙালি জাতির পিতার রক্ত। যদিও শেখ রাসেলের জন্মের পর থেকেই পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে শোষিতের অধিকার আদায়ে, দেশের মানুষের মুক্তির জন্য কারা-অভ্যন্তরে কাটাতেই হয়েছে বেশিরভাগ সময়ই। কিন্তু সেদিনগুলিতে ছোট্ট রাসেল সান্নিধ্য পেয়েছে আজকের প্রধানমন্ত্রী তার প্রিয় হাসু আপুর। মানবতার মা, দেশরত্ন শেখ হাসিনা ছিলো তার প্রিয় সঙ্গী। অসাধারণ ব্যক্তিত্ব ও উদার মনের অধিকারী এগারো বছরের ছোট্ট রাসেল আনন্দকে ভাগ করে নেয়ার উদারতায় তার ক্লাসের বন্ধুদের খুব প্রিয় ছিল। তাঁর ব্যক্তিত্বের কথা জননত্রী শেখ হাসিনা তাঁর অনুভূতিতে ব্যক্ত করেছেন।

জ্যোতিষশাস্ত্র মতে, একদিনে তিন তিথির মিলনকে ‘ত্র্যহস্পর্শ’ বলে, যা তিথির শুভাশুভ ফল বিচারে অশুভ তিথি বা ক্ষণ হিসেবেই গণ্য হয়- তথায় ঘটে অশুভ যোগ। নবগ্রহের মধ্যে গুরুদেব বৃহস্পতি, শুভ সূচনা যার উপস্থিতি কিন্তু শনির কুদৃষ্টি অশুভ ফলের বোঝা বাড়ায় যে কারণে জাতকের ঘটে মহাবিপর্যয়। পঞ্চম শতকে আর্যভট্ট ও সমসাময়িক জ্যোতিষজ্ঞ হতে চলেছে আজ অবধি সূর্যসিদ্ধান্ত সৌরপঞ্জিকা কিংবা সমজাতীয় অন্য কোনো গণনা মতে এমন ফলাফল বিচার। বাঙালির প্রাণের কবি যার কাছে আমরা ঋণী, বিশ^কবি রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরও ত্র্যহস্পর্শ, অনাসৃষ্টি ও বৃহস্পতির বিদায়ান্তে শনির দৃষ্টি বিষয়ে রেখেছিলেন সজাগ দৃষ্টি। তাইতো তিনি বলেছেন-
‘জন্ম মোদের ত্র্যহস্পর্শে, সকল-অনাসৃষ্টি।
ছুটি নিলেন বৃহস্পতি, রইল শনির দৃষ্টি।’

বাংলাদেশের জন্য পাকিস্তানি স্বার্থান্বেষী শাসকের অনিষ্টচিন্তাতে পাকিস্তানপ্রীতিদের কুমন্ত্রণা ও প্রবল বাংলাদেশ বিরোধী কুচক্রীদের আগ্রাসী আস্ফালন যেন প্রতিষ্ঠালগ্নেই একত্রিতভাবে ত্র্যহস্পর্শরূপ প্রাবল্য সৃষ্টি করে। তাদের রাহুগ্রাস সদ্য স্বাধীন বাংলাদেশের জন্য যতো অনাসৃষ্টি সম্ভব তারা তৈরি করতে থাকে- তাতে গুরুরাজ বৃহস্পতিকে অনুপস্থিত রাখতেই ভূমিকা রেখেছে। আর অবশিষ্ট হিসেবে স্বাধীনতার পক্ষের জন্য শনির দৃষ্টি ছাড়া আর কোনো কিছুই যে অবশিষ্ট থাকেনি তার প্রমাণ মিলেছে ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট! জনকভূকে সাক্ষি হতে হয়েছে অবনীপারের নিকৃষ্টতম নির্মমতা আর হৃদয়বিদারক ঘটনার! মমতার পরশাশ্রয় বাংলাদেশের মহান স্থপতি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানসহ তাঁর পরিবারের সেদিনে উপস্থিত সকল সদস্যকে জীবন দিতে হয়েছে। শ্বেপুষ্পের মতো শুভ্র, নিরপরাধ শিশুটিও বাদ যায়নি অশনি চক্রান্ত থেকে- রক্তাত হতে হয়েছে বসুন্ধরাকে নিষ্পাপ এগারো বছরের ছোট্ট রাসেলের রক্তে। নরপিশাচ ঘাতক-খুনিচক্র ঢাকা ইউনিভার্সিটি ল্যাবরেটরি হাইস্কুলের চতুর্থ শ্রেণিতে পড়া শেখ রাসেলের আতঙ্কিত হয়ে ক্রন্দন ও প্রাণরক্ষার আকুতি সেদিন তারা শোনেনি, রাখেনি অশ্রুসিক্ত কণ্ঠে তার মিনতি ‘আমাকে হাসু আপার (শেখ হাসিনা) কাছে পাঠিয়ে দিন’। শেখ রাসেলের তরতাজা রক্তে তাদের হাত রঞ্জিত করে। বর্বরোচিত জঘন্য এই হত্যাকাণ্ড বাকরুদ্ধ করেছে বিশ্ববিবেককে, রক্তের হরফে লেখা ইতিহাস বাঙালির অন্তরে দগদগে ক্ষতের সৃষ্টি করেছে। 

প্রকৃতপক্ষে শেখ রাসেলের মৃত্যু কোনো স্বাভাবিক বিষয় নয়, কুচক্রীদের নীলনক্সার শেষ প্রান্ত, শেষ আঘাত। সেদিনের ছোট্ট রাসেলের জীবন নাশই যে  গভীর ষড়যন্ত্রকারীদের মূল উদ্দেশ্য তা কিন্তু নয়, তাদের ভোগবিলাসী-স্বার্থান্বেষী ইচ্ছার প্রতিফলন ঘটাতে যেন বাদ সাধার অবশিষ্ট কেউ থাকতে না পারে, যেন নিশ্চিহ্ন হয় বঙ্গবন্ধুর সব চিহ্ন, ক্ষত বিক্ষত বাংলাদেশের অবশিষ্ট কাল যেন সাম্প্রদায়িক সুবিধাভোগীদের অভয়ারণ্যে পরিণত করতে পারে।  

কিন্তু দমন-পীড়ন আর ষড়যন্ত্রের মাধ্যমে যে চিরদিন কাটানো যায় না- অন্যের অনিষ্টের ফল যে সুখকর নয় তা ওরা না বুঝলেও মনীষীদের কাছে তা সুস্পষ্ট জ্ঞাত বিষয়, অন্যের অনিষ্ট বিষয়ে তাইতো তাদের কড়া প্রতিবাদ! আমাদের জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলাম বলেছেন- 

‘শোনো মর্ত্যরে জীব!
অন্যেরে যত করিবে পীড়ন, নিজে হবে তত ক্লীব!’।

এই চরম সত্যকে অস্বীকারের ক্ষমতা আছে কার? প্রকৃতির বিচারের মুখোমুখি যে হতেই হবে- যে কারণে হয়তো সৃষ্টিকর্তা বঙ্গবন্ধুকন্যা জননেত্রী শেখ হাসিনা ও শেখ রেহেনাকে এই পৃথিবীতে আগলে রেখেছেন, ওই ঘাতকচক্রকে বিচারের কাঠগড়ায় দাঁড় করানোর জন্য। বাংলাদেশের মানুষের না বলা ব্যথা, আর প্রতিশোধের অনলে ষড়যন্ত্রকারী  নিপীড়নকারীদের যে পুড়তেই হবে। দেশের তরে বঙ্গবন্ধু, বঙ্গমাতা, শেখ রাসেলসহ বঙ্গবন্ধু পরিবারের সেদিনের সকল শহিদের এ জীবন উৎসর্গ পৃথিবীর ইতিহাসে অক্ষয় হয়ে থাকবে- দেশরত্ন শেখ হাসিনার দৃঢ়প্রত্যয় ও ভিশন-মিশনের আলোকে গঠিত উন্নত বাংলাদেশ অবনত মস্তকে তাঁদের রক্তঋণে ভর করে বিশ্বসভায় জাগ্রত থাকবে। অন্তরের ব্যথাতুর আর্তি নিয়েই জাতি শেখ রাসেলের জন্মদিনকে অনুকরণীয় করতে তোমার না বলা কথামালা, এ জাতির জন্য তোমার চাওয়া, দীপ্ততা অনুধাবন করে ভবিষ্যত শিশুদের তরে গীতসুধায় পরিণত করতে মোরা বদ্ধপরিকর। ঐ জল্লাদ বর্বর নরঘাতকদের ধিক্কার-ঘৃণা জানাবে এদেশের শিশুসমাজ আর তোমার জন্মদিনের শুভবার্তা এ দেশের প্রতিটি শিশুর অন্তরে জাগ্রত রাখবে, ছড়িয়ে দিবে অহঙ্কারের পুষ্পবৃষ্টিতে। 

যদিও ১৮ই অক্টোবর শেখ রাসেলের জন্মদিনে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ও স্থানীয়ভাবে আলোচনা সভা কিংবা সেমিনারের আয়োজন স্বল্প পরিসরে হয়েছে- এবারই প্রথম সরকারের ‘ক’ শ্রেণির দিবস হিসেবে পালনের ব্যবস্থা করা হয়েছে, এজন্য সরকারকে সাধুবাদ জানাই। সাথে সাথে গতানুগতিক আলোচনা, বক্তব্যানুষ্ঠানের সাথে সাথে বিশ্লেষণাত্বক আবেশ যুক্ত করতে আমরা অনুরোধ করছি। আমাদের উচিৎ দেশের ইতিহাস-ঐতিহ্য, স্বাধীনতা ও মুক্তির বিষয়গুলি আজকের কোমলমতি শিক্ষার্থীদের মাঝে ছড়িয়ে দেওয়ার ব্যবস্থা করা। এ দেশের শিশুদেরকে এই ছোট্ট মানবশিশু শেখ রাসেলের মানবতাবোধ, ব্যক্তিত্ব শিশু শিক্ষার্থীদের মাঝে ছড়িয়ে দেওয়া- এবং শিশুদেরকে এ জঘন্য হত্যাকণ্ডের জন্য সেইসব জল্লাদদেরকে ঘৃণা করতে শেখানো, তাদের অনাকাঙ্খিত ঘটনারোধে সোচ্চার হয়ে অধিকারবোধ জাগাতে শেখানো। শিশুপাঠ্যসূচিতে এই ন্যাক্কারজনক ঘটনা অন্তর্ভূক্ত করা এবং ভবিষ্যতে তারা কিংবা যে কেউ যেন গবেষণাধর্মী মনোভাবে এ ঘটনা পরম্পরার চুলচেরা বিশ্লেষণে ব্রতী হয়। আর তাতেই আগামী দিনের শিশুরা বিমল আনন্দে নির্মল পরিবেশে বেড়ে উঠবে, এই বাংলাদেশ তথা সারা বিশ্ব শিশুরদের বাসযোগ্য স্থলে পরিণত হবে। বিবর্ণ অনিমেষে চাওয়ার অবসান ঘটিয়ে শেখ রাসেলের শুভ জন্মদিন সকল শিশুর জন্য শক্তি আর আলোকচ্ছটার অমৃতধারায় পরিণত হবে।
শুভ, শুভ শুভ জন্মদিন, বঙ্গবন্ধুর কনিষ্ঠ পুত্র, সবার প্রিয় শেখ রাসেল।

লেখক: অধ্যাপক, পরিসংখ্যান বিভাগ ও সাবেক প্রশাসক, জনসংযোগ দপ্তর, রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়।


বিডি প্রতিদিন/হিমেল

সর্বশেষ খবর