৪ ডিসেম্বর, ২০২১ ১২:৩৩

শেখ ফজলুল হক মণি ও মুজিববাদ

ড. মুহম্মদ মনিরুল হক

শেখ ফজলুল হক মণি ও মুজিববাদ

শেখ ফজলুল হক মণি

বাঙালির ইতিহাস, ঐতিহ্য, গৌরব, সুখ, দুঃখ এবং বাংলার মাটি ও মানুষের সম্মিলিত রূপকে আত্মস্থ করে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বাংলাদেশের চূড়ান্ত মুক্তির যে পথ দিয়েছেন, সে পথের পূর্ণাঙ্গ তত্ত্বের নাম মুজিববাদ। সোনার বাংলা তার চূড়ান্ত রূপ। মুজিববাদের আলোকে সোনার বাংলা প্রতিষ্ঠার অন্যতম প্রভাবশালী ও নির্ভীক সংগঠক শেখ ফজলুল হক মণি। 

১৩ মার্চ ১৯৭৩ সালে একটি নিবন্ধে শেখ ফজলুল হক মণি বলেছেন, ‘এ সংগ্রাম অতি দুস্তর, মুজিববাদ কায়েমের সংগ্রাম অতি কঠোর সংগ্রাম।’ সেই কঠিন সংগ্রামকেই তিনি ব্রত হিসেবে নিয়েছিলেন। এ জন্য স্বাধীনতার সময় ভারত সরকারের কাছ থেকে পাওয়া শিক্ষকতার প্রস্তাব তিনি গ্রহণ করেননি, স্বাধীনতার পর মন্ত্রিত্ব বা ক্ষমতার চেয়ারেও বসেননি। মুজিববাদ বাস্তবায়নের জন্য তিনি আজীবন লড়াই-সংগ্রাম করেছেন, মুজিববাদের তত্ত্বীয় রূপ বিশ্লেষণের জন্য বার বার কলম ধরেছেন। মুক্তিযুদ্ধের আদর্শের তরুণ নেতা-কর্মীদের মাঝে পড়াশোনা, দেশসেবার দীক্ষা ও সাংস্কৃতিক চেতনা ছড়িয়ে দিতে বিভিন্ন উদ্যোগ নিয়েছেন। 

শেখ ফজলুল হক মণির মৌলিকত্ব হচ্ছে স্বাধীন-সার্বভৌম বাংলাদেশের পাশাপাশি তিনি সমাজবাদী সমাজব্যবস্থাও প্রতিষ্ঠা করতে চেয়েছিলেন, যা মুজিববাদের অন্যতম দর্শন। তার মতে, ‘মুজিববাদের অন্যতম উৎস হচ্ছে সমাজবাদ।’ বঙ্গবন্ধুর ‘প্রস্তাবিত সমাজতান্ত্রিক রাষ্ট্রীয় কাঠামোতে গণতান্ত্রিক অধিকারকে বিলোপ করার প্রশ্ন ওঠেনি। তাকে সংরক্ষণ করার বিষয়টি অনুভূত হয়েছে সর্বতোভাবে। তাই মুুুজিবের সমাজবাদী বাংলাদেশ মূলত গণতান্ত্রিক। তার গণতান্ত্রিক বাংলাদেশ সমাজবাদী। এটা ইতিহাসের এক নতুন ধারা। সামাজিক দর্শনের একটা নতুন সমন্বয়। এটা কোনোক্রমেই মার্কসবাদী নয়। কারণ মার্কস কেবল বস্তুবাদী, গণতান্ত্রিক নন। জাতীয়তাবাদী নন। এটা মাওবাদী নয়, কারণ মাও মূলত বস্তুবাদী ও জাতীয়তাবাদী, গণতান্ত্রিক নন। এটা লিংকনবাদীও নয়। কারণ লিংকন জাতীয়তাবাদী, গণতান্ত্রিক; সমাজবাদী নন। এটা নতুন। এবং সে নতুনত্ব শেখ মুজিবের অবদান। তাই এটা মুজিববাদী।’ 

জাতীয়তাবাদ, সমাজতন্ত্র, গণতন্ত্র ও ধর্মনিরপেক্ষতা মুজিববাদের চার মূলনীতি। এর অন্যতম স্তম্ভ ছয় দফা। ১৯৭২ সালের ৭ জুন বঙ্গবন্ধু বলেছেন, ‘স্লোগান ছিল ৬ দফা, এখন চারটা স্তম্ভ।’ শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত ছয় দফা কর্মসূচিকে জনপ্রিয় ও সফল করতে যুগান্তকারী ভূমিকা রেখেছেন শেখ ফজলুল হক মণি। ৬ দফাভিত্তিক স্বায়ত্তশাসনসহ বাঙালির অধিকার বাস্তবায়নের অনেক গুরুত্বপূর্ণ ইস্যু তিনি ৭০-এর নির্বাচনী ইশতেহারে অন্তর্ভুক্ত করেছিলেন। 

মুজিববাদ একটি বাস্তব ও বৈজ্ঞানিক মতবাদ। শেখ ফজলুল হক মণি ‘মুজিববাদ’ তত্ত্বের অন্যতম প্রধান দার্শনিক, বাঙালির মর্যাদা এবং মুজিবীয় আদর্শের মৌলিকতার প্রতীক। মুজিববাদী দর্শনের প্রয়োজনীয়তা তার মতো কেউ অনুধাবন করেননি, মুজিববাদী মতবাদ বাস্তবায়নে তার মতো কেউ উদ্যোগও নেননি। তিনি বলেছেন, ‘বাংলাদেশে একটি যুদ্ধ ও একটি সমাজ বিপ্লব যুগপৎ অনুষ্ঠিত হয়েছে।’ সোনার বাংলা কায়েম করার জন্য প্রয়োজন সেই বিপ্লবের সফলতা। যার একমাত্র পথ মুজিববাদ। মুজিববাদকে যথাযথ ব্যাখ্যার জন্য ‘মুজিববাদ দর্শন ও বাস্তবে’ শিরোনামে তিনি নিয়মিত কলাম লিখেছেন। পুঁজিবাদের অসম বিকাশ ও তার ক্ষতিকর দিক এবং ক্ষমতাচর্চার সঙ্গে সম্পৃক্তদের ভুল-ত্রুটি চিহ্নিত করে তিনি মুজিববাদী মতবাদের আলোকে সমাধান ও মুক্তির পথ দেখিয়েছেন। শাসক শ্রেণির সচেতনতা খ্যাত শেখ ফজলুল হক মণি অপ্রিয় হলেও সত্য ও স্পষ্ট কথা বলতেন। মিমিক্রি ভূমিকার সুবিধাবাদী ও মুখোশধারী রাজনীতিকদের তিনি চরমভাবে ঘৃণা করতেন। ৩০ নভেম্বর ১৯৭৪ সালে এক নিবন্ধে তিনি বলেছেন, ‘সাবোটাজকারীরা ক্ষমতার আশপাশে এমনই সুকৌশলে ও সুসজ্জিতভাবে জমজমাট বসিয়া রহিয়াছে যে, সাহায্য করিতে গেলেও দণ্ড ভোগ করিতে হইবে।’

সুবিধাবাদীরা অপব্যাখ্যা করলেও শেখ ফজলুল হক মণির সোনার বাংলা এবং মুজিববাদের পথ ধীর-সংঘাতহীন। এ পথের বিপ্লব রক্তপাতহীন। এ বিপ্লবে সফলতার জন্য প্রয়োজন ধাপে ধাপে অগ্রসর। জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ১৯৭৫ সালের ২৫ জানুয়ারি সংবিধানের চতুর্থ সংশোধনী এনেছিলেন। বঙ্গবন্ধু যাকে ‘সিস্টেম চেইঞ্জ’ বা ‘দ্বিতীয় বিপ্লব’ হিসেবে অভিহিত করেছেন। ‘সোনার বাংলা’ ছিল তার লক্ষ্য এবং মুজিববাদ ছিল তার অন্তর্মূলে। কিন্তু বঙ্গবন্ধুর গৃহীত নতুন পদক্ষেপ বা দ্বিতীয় বিপ্লব বাস্তবায়িত হওয়ার আগেই একদল খুনি, সামরিক-বেসামরিক ঘাতকচক্র বঙ্গবন্ধুকে সপরিবারে, স্ববান্ধব হত্যা করেছিল। ৪ ডিসেম্বর ১৯৩৯ সালে জন্মগ্রহণকারী শেখ ফজলুল হক মণি নিজের জীবন দিয়েও বঙ্গবন্ধুকে বাঁচাতে পারেননি। 

স্বল্প জীবনে শেখ ফজলুল হক মণি আমাদের অনেক দিয়েছেন। ছয় দফা আন্দোলনে, অসহযোগিতার সংগ্রামে, ৭০-এর নির্বাচনে, মুক্তিযুদ্ধে, মুক্তিযুদ্ধোত্তর রাজনীতি, শোষণহীন সমাজ বিনির্মাণ ও ‘সোনার বাংলা’ গঠনে। তার জীবনকাহিনি এবং দেশপ্রেমের সাহসী রাজনীতি বাংলাদেশের ঐতিহাসিক স্বরূপ, মুজিববাদের পরিপূরক এবং ‘সোনার মানুষ’ তৈরির অনন্য পথ। তার প্রবন্ধ-নিবন্ধ-গ্রন্থ শুধু মুজিববাদের ঐতিহাসিক সম্পদ নয়, সে সময়ের রাজনীতি বিশ্লেষণেরও প্রামাণ্য দলিল। স্বাধীনতা ও মুক্তিযুদ্ধের অন্যতম রূপকার এবং মুজিববাদী রাজনীতির কাণ্ডারি শহীদ শেখ ফজলুল হক মণিকে নতুন প্রজন্মের কাছে যথাযথভাবে তুলে ধরা হলে, তাকে অধ্যয়ন ও গবেষণার জন্য প্রতিষ্ঠান করা হলে জাতি হবে মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় আরও বেশি শানিত, মুজিববাদের পথিকরা হবে সমৃদ্ধ, ‘সোনার বাংলা’ ও ‘সোনার মানুষ’ তৈরির পথ হবে পরিশীলিত। শেখ ফজলুল হক মণির জন্মদিনে জানাই বিনম্র শ্রদ্ধা। 

লেখক: শিক্ষা ও উন্নয়ন বিশেষজ্ঞ
[email protected]

বিডি-প্রতিদিন/সালাহ উদ্দীন

সর্বশেষ খবর