শিরোনাম
প্রকাশ : বুধবার, ২১ নভেম্বর, ২০১৮ ০০:০০ টা
আপলোড : ২১ নভেম্বর, ২০১৮ ০০:০৩

পবিত্র ঈদে মিলাদুন্নবী

সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ মানবের প্রতি শ্রদ্ধা

পবিত্র ঈদে মিলাদুন্নবী

পবিত্র ঈদে মিলাদুন্নবী আজ। মহানবী হজরত মুহাম্মদ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের জš§দিন হিসেবে পালন করা হয় হিজরি সনের ১২ রবিউল আউয়ালকে। এই দিনেই ওফাত লাভ করেন মানবতার এই মুক্তিদূত। আরবের মক্কা নগরীতে জš§গ্রহণকারী মহানবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামকে সর্বশেষ ও সর্বশ্রেষ্ঠ রসুল শুধু নয়, সর্বকালের শ্রেষ্ঠ মানব হিসেবে অভিহিত করা হয়। মানবজাতিকে তিনি ভ্রাতৃত্বের বন্ধনে আবদ্ধ হতে উদ্বুদ্ধ করেন। প্রচার করেন সত্য, সুন্দর ও কল্যাণের অমিয় বাণী। সহনশীলতার সর্বশ্রেষ্ঠ উদাহরণ ছিলেন এই মহাপুরুষ। এমন একসময় তিনি পৃথিবীতে আবির্ভূত হন যখন আল্লাহবিমুখ হয়ে মানবজাতি বিপথে পরিচালিত হচ্ছিল। হানাহানি সমকালীন মানবসমাজের অভ্যাসে পরিণত হয়েছিল। মানবসমাজ থেকে সুনীতি ও সুবিবেচনা নির্বাসনে যাওয়ার উপক্রম হচ্ছিল। নারীর সম্মান সর্বনি পর্যায়ে পৌঁছেছিল সেই সময়ে। পবিত্র ভূমি মক্কায় মহানবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম যে সময়ে জন্ম গ্রহণ করেন সেই সময় আরব উপদ্বীপ ও সংলগ্ন জনপদগুলোর অবস্থা ছিল সবচেয়ে ভয়াবহ। তিনি ছোটবেলা থেকেই ছিলেন শুদ্ধাচারী মনোভাবের অধিকারী। অসত্য ও অবিশ্বস্ততা যখন আরব সমাজের নিয়ামক শক্তিতে পরিণত হয়েছিল তখনো মহানবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম মক্কাবাসীর কাছে সম্বোধিত হতেন ‘আল-আমিন’ বা বিশ্বাসী হিসেবে। মহানবীর ওপর সর্বশক্তিমান আল্লাহর ঐশীগ্রন্থ আল কোরআন নাজিল হয়। মানবজাতিকে আলোর পথে উদ্বুদ্ধ করেছে এই ঐশীগ্রন্থ। ন্যায়ভিত্তিক শান্তির সমাজ গঠনে আল কোরআন ও মহানবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের শিক্ষা সর্বযুগেই নন্দিত। তিনি আরবের মদিনায় দুনিয়ার প্রথম কল্যাণ রাষ্ট্রের সূচনা করেন। সব ধর্মের মানুষের সমঅধিকার স্বীকৃত হয় এই রাষ্ট্রব্যবস্থায়। বাংলাদেশে ঈদে মিলাদুন্নবী ধর্মীয় মর্যাদায় পালিত হয়। এটি সরকারি ছুটির দিন। এ উপলক্ষে রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রী বাণী দিয়েছেন। পবিত্র ঈদে মিলাদুন্নবীতে আমরা মহানবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের প্রতি আমাদের শ্রদ্ধা ও সালাম জানাই। হানাহানি ও অশান্তিতে ভরা বিশ্বে তাঁর শিক্ষা মানবজাতিকে সঠিক পথ দেখাতে পারে। মানুষে মানুষে ভ্রাতৃত্ব-বোধ ও শান্তিপূর্ণ সহাবস্থানের জন্য রসুল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের রেখে যাওয়া আদর্শের কোনো বিকল্প নেই।

 


আপনার মন্তব্য