শিরোনাম
প্রকাশ : মঙ্গলবার, ২ মার্চ, ২০২১ ০০:০০ টা
আপলোড : ১ মার্চ, ২০২১ ২৩:৩৪

মানব হত্যাকারী জাহান্নামি

মুফতি মুহাম্মদ এহছানুল হক মোজাদ্দেদী

মানব হত্যাকারী জাহান্নামি

করোনাভাইরাসের এ মহামারীতেও থেমে নেই খুন, নির্যাতন, ধর্ষণ। অথচ ইসলাম শান্তির ধর্ম। এ ধর্ম মানুষের জীবনের সর্বোচ্চ নিরাপত্তা নিশ্চিত করেছে। আল্লাহতায়ালা বলেন, ‘মানব হত্যা কিংবা পৃথিবীতে বিপর্যয় সৃষ্টি করা ছাড়া অন্য কোনো কারণে যে ব্যক্তি কাউকে হত্যা করল সে যেন পৃথিবীর সমস্ত মানুষকেই হত্যা করল। আর যে ব্যক্তি কারও জীবন রক্ষা করল সে যেন পৃথিবীর সমস্ত মনুষের জীবনই রক্ষা করল।’ সুরা মায়েদা আয়াত ৩২। অন্যায়ভাবে কোনো মুসলমানকে হত্যার পরিণাম নিশ্চিত জাহান্নাম। আল্লাহতায়ালা বলেন, ‘আর যে ব্যক্তি জেনে-বুঝে কোনো মোমিনকে হত্যা করে তার শাস্তি জাহান্নাম। সেখানে সে চিরকাল থাকবে। তার ওপর আল্লাহর ক্রোধ ও লানত বর্ষিত হতে থাকবে। আল্লাহ তার জন্য কঠিন শাস্তির ব্যবস্থা রেখেছেন।’ সুরা নিসা আয়াত ৯৩। নিরীহ মানুষকে হত্যা করার চরমপন্থা গ্রহণ বা বাড়াবাড়ির অবকাশ ইসলামে নেই। দুনিয়ায় অহেতুক কারও প্রাণনাশ বা হত্যা সামাজিক অনাচার ও অত্যাচারের অন্তর্ভুক্ত। আল কোরআনে মানব হত্যাকে চিরতরে নিষিদ্ধ ঘোষণা করে বলা হয়েছে, ‘আল্লাহ যার হত্যা নিষিদ্ধ করেছেন যথার্থ কারণ ছাড়া তোমরা তাকে হত্যা কোর না।’ সুরা বনি ইসরাইল আয়াত ৩৩। একবার হজরত হামজা (রা.) রসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের কাছে জিজ্ঞাসা করলেন, ইয়া রসুলুল্লাহ! আমাকে এমন পথ বলে দিন যা আমাকে সুখী করবে। রসুল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বললেন, মানুষের জীবন রক্ষা ও ধ্বংস করা- এ দুটির মধ্যে তুমি কোনটি পছন্দ কর? হামজা (রা.) বললেন, মানুষের জীবন রক্ষা করা। রসুল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বললেন, দুনিয়া ও আখিরাতে সুখী হওয়ার জন্য তুমি এ কাজই করতে থাক। মুসনাদে আহমাদ। যখন কেউ অন্যায় ও অবৈধভাবে মানুষ হত্যায় লিপ্ত হয় তার ওপর থেকে আল্লাহর রহমত ও বরকত উঠে যায়। নরহত্যা, বর্বরতা ও নাশকতার ফলে পৃথিবীর শান্তি বিনষ্ট হয় এবং ভূপৃষ্ঠে একের পর এক শাস্তি, মহামারী ও বিপর্যয় আপতিত হয়। রসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেছেন, ‘একজন প্রকৃত মোমিন তার দীনের ব্যাপারে পূর্ণ প্রশান্ত থাকে, যে পর্যন্ত সে অবৈধ হত্যায় লিপ্ত না হয়।’ বুখারি। পৃথিবীতে যত পাপ আছে তার মধ্যে সবচেয়ে বড় কোনটি? একাধিক হাদিসে রসুল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেছেন, ‘সাতটি মহাপাপ থেকে বেঁচে থাক। এর প্রথমটি হলো আল্লাহর সঙ্গে কাউকে শরিক বা অংশীদার করা। আর তৃতীয়টি হলো অন্যায়ভাবে কাউকে হত্যা করা।’ বুখারি, মুসলিম। ইমাম কুরতুবি (রহ.) মুসনাদে বাজ্জারের উদ্ধৃতি দিয়ে বলেন, রসুল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেছেন, ‘পৃথিবীর সব মানুষ একসঙ্গে যদি একজন নিরপরাধ মানুষকে হত্যার সিদ্ধান্ত নেয় তবে আল্লাহ সব মানুষকেই জাহান্নামে দেবেন। এর পরও অন্যায়ভাবে হত্যাকে কখনো মেনে নেবেন না।’ কিয়ামতের দিন মানুষ হত্যার বিচার করা হবে সবার আগে। তারপর অন্য অপরাধের বিচার। রসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেছেন, ‘কিয়ামতের দিন মানুষের মধ্যে সর্বপ্রথম যে মোকদ্দমার ফয়সালা হবে তা হলো রক্তপাত (হত্যা) সম্পর্কিত।’ বুখারি, মুসলিম।

আসুন আমরা সবাই কোরআন-সুন্নাহ মেনে চলি। জবান ও হাত থেকে মুসলমানসহ সব ধর্মের লোকদের ভালোবেসে নিরাপদে রাখি। আল্লাহ আমাদের আমল করার তৌফিক দান করুন।

লেখক : মুফাসসিরে কোরআন।


আপনার মন্তব্য