শিরোনাম
প্রকাশ : মঙ্গলবার, ১৩ এপ্রিল, ২০২১ ০০:০০ টা
আপলোড : ১২ এপ্রিল, ২০২১ ২৩:০৮

শান্তি রক্ষার চ্যালেঞ্জ

সংঘাত নয় সমঝোতার পথে এগোতে হবে

Google News

বিশ্বশান্তি রক্ষায় বাংলাদেশের প্রতিশ্রুতিবদ্ধ ভূমিকার কথা আবারও সুস্পষ্টভাবে উচ্চারিত হয়েছে রাজধানীতে অনুষ্ঠিত ‘আর্মি চিফস কনক্লেভ’ শীর্ষক এক বহুজাতিক সেমিনারে। সেমিনারে বলা হয়েছে, বৈশ্বিক মহামারীর ফলে বিশ্বশান্তি প্রতিষ্ঠায় চ্যালেঞ্জ বেড়ে গেছে। যুগোপযোগী প্রশিক্ষণের মাধ্যমে শান্তিরক্ষীদের সক্ষমতা বাড়াতে হবে। সেমিনারে অংশগ্রহণকারী বিভিন্ন দেশের সামরিক বাহিনীর নেতৃস্থানীয় ব্যক্তিবর্গ বিশ্বশান্তি রক্ষায় উন্নত প্রযুক্তির ব্যবহার, পর্যাপ্ত লজিস্টিকস সহায়তা এবং শান্তিরক্ষা কার্যক্রমের বাজেট বাড়ানোর ওপর গুরুত্বারোপ করেন। সেমিনারে ‘ফিউচার ট্রেন্ড অব গ্লোবাল কনফ্লিক্ট : রোল অব ইউএন পিস কিপারস’ শীর্ষক কি-নোট স্পিকার হিসেবে বক্তব্য দেন বাংলাদেশ সেনাবাহিনী প্রধান জেনারেল আজিজ আহমেদ। এতে ভারতের সেনাবাহিনী প্রধান জেনারেল মনোজ মুকুন্দ নারাভানে, ভুটান সেনাবাহিনীর ডেপুটি চিফ অপারেশন ব্রিগেডিয়ার জেনারেল দরজি রিনচেন, ফোর্স কমান্ডার ইউএন মাল্টি ডাইমেনশনাল ইন্টিগ্রেটেড স্ট্যাবিলাইজেশন মিশন ইন মালি লে. জেনারেল ডেনিস জিলেনসপোরে এবং ফোর্স কমান্ডার ইউএন মাল্টি ডাইমেনশনাল ইন্টিগ্রেটেড স্ট্যাবিলাইজেশন মিশন ইন দ্য সেন্ট্রাল আফ্রিকান রিজিয়ন লে. জেনারেল সিদকি ড্যানিয়েল ত্রাওর অংশ নেন। বাংলাদেশ সেনাবাহিনী এখন জাতিসংঘ শান্তি কার্যক্রমের একটি অপরিহার্য নাম। জাতিসংঘ শান্তিবাহিনীতে বাংলাদেশের সেনা, নৌ ও বিমান বাহিনীর সদস্যদের অংশগ্রহণ শীর্ষ পর্যায়ে। বিশ্বব্যাপী স্থিতিশীলতা রক্ষায় বাংলাদেশের অঙ্গীকারবদ্ধ অবস্থান নিশ্চিত করেছে জাতিসংঘ শান্তি কার্যক্রমে বাংলাদেশ সশস্ত্র বাহিনীর ব্যাপকসংখ্যক সদস্যের অংশগ্রহণের ঘটনায়। বিদেশে বাংলাদেশের ভাবমূর্তি উজ্জ্বল করার ক্ষেত্রেও তা অবদান রাখছে। আমরা আশা করব আর্মি চিফস কনক্লেভ শীর্ষক সেমিনারের অভিজ্ঞতা বিশ্বের সংঘাতপূর্ণ এলাকায় শান্তি রক্ষার জুতসই কৌশল নির্ধারণে অবদান রাখবে। সংঘাত এড়িয়ে কীভাবে সংশ্লিষ্ট পক্ষগুলোকে সমঝোতার পথে আনা যায় উদ্ভাবনে পথ দেখাবে।